সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৩৪ অপরাহ্ন
Uncategorized

কথা দিয়ে, কথা রাখছেন না শিল্পী সমিতির নেতারা!

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই, ২০২২

রঞ্জু সরকার

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের সময় অনেক প্রার্থীই বলেছিলেন নির্বাচনে বিজয়ী হলে চলচ্চিত্র শিল্পকে আরও সমৃদ্ধ করে তুলবেন। একইসঙ্গে চলচ্চিত্রের অচলাবস্থা কাটিয়ে তুলতে ব্যক্তিগত-সাংগঠনিকভাবে কাজ করে যাবেন তারা। নির্বাচনের পর বিজয়ী অনেকেই স্বশরীরে মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমার প্রচারে নেমেছিলেন।

এমনকি গত ঈদে শুভেচ্ছা কার্ডে সিনেমার পোস্টার দিয়ে বাংলা সিনেমা দেখার আমন্ত্রণ জানায় শিল্পী সমিতি। সে সময় সিনেমার প্রচার নিয়ে শিল্পী সমিতির বৈষম্যমূলক আচরণের অভিযোগও উঠেছিল। এরপর নতুন বেশ কয়েকটি সিনেমা মুক্তি পায়। তবে শিল্পী সমিতিকে আর কোনও সিনেমার প্রচারণায় দেখা যায়নি।

বরং নির্বাচনের পর ৭ মাস পার হতেই দেখা গেলো উল্টো চিত্র। সিনেমার প্রচার তো দূরের কথা, দুই একজন নেতা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমার সমালোচানা করে নিজেকে জাহির করার চেষ্টায় ব্যস্ত। বিষয়টি ভালোভাবে নিচ্ছে না সিনেমা সংশ্লিষ্টরা।

ঈদুল আজহা উপলক্ষে এবার মুক্তি পেয়েছে তিনটি সিনেমা। যার মধ্যে অনন্ত জলিলের বড় বাজেটের সিনেমা ‘দিন: দ্য ডে’, শরিফুল রাজ, বিদ্যা সিনহা মিমের ‘পরান’ ও রোশান-পূজা চেরির ‘সাইকো’। কিন্তু একটি সিনেমার প্রচারে ইলিয়াস কাঞ্চনকে ছাড়া দেখা যায়নি বর্তমান কমিটির নির্বাচিত কোনো নেতাকে।

এমনকি ‘দিন: দ্য ডে’র নায়ক অনন্ত জলিল তার সিনেমাটি দেখার জন্য শিল্পীদের দাওয়াত করলেও সেখানে শাহনূর ও কেয়া ছাড়া অন্যদের উপস্থিত লক্ষ করা যায়নি। বিষয়টি নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন নায়ক-প্রযোজক অনন্ত জলিল।

বিষয়টি নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন প্রযোজক ইকবাল। তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি গঠনই হয়েছে চলচ্চিত্রের জন্য। এখন বাংলাদেশের সিনেমার নাজুক অবস্থা। এই সময় চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি যদি শিল্পীদের সঙ্গে না থাকে, চলচ্চিত্রের পাশে না থাকে তাহলে সিনেমা আরও ধ্বংসের দিকে যাবে। আমার মনে হয়, রেষারেষি, হিংসা বিদ্বেষ বাদ দিয়ে শিল্পী সমিতির সবাইকে সিনেমার জন্য এগিয়ে আসা উচিত।’

ক্ষোভ প্রকাশ করে পরিচালক দেলোয়ার জাহান ঝন্টু বলেন, ‘চলচ্চিত্রের জন্য শিল্পী সমিতি কী কাজ করেছে? এখন যারা কমিটিতে আছে তারা নিজেদের কাজ ছাড়া অন্য কারো জন্য কাজ করেনি। মূলত যারা সিনেমার জন্য কাজ করেন তারা সমিতিতে নেই। যেমন আলমগীর সাহেব। তবে চলচ্চিত্রের সেবাও হলো সমাজ সেবা। ডাকলে যাবো, না-ডাকলে যাবো না; এমন মানসিকতা দূর করতে হবে। যারা শিল্পী সমিতির দায়িত্বে আছেন, দেশের সিনেমা বাঁচানোর জন্য হলেও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নিঃস্বার্থে কাজ করা উচিত।’

শিল্পী সমিতির ক্রীড়া সম্পাদক  মামনুন ইমন (নায়ক ইমন) বলেন, ‘দুই মেয়াদে আমি শিল্পী সমিতির একজন নির্বাচিত প্রতিনিধি। আমার জায়গা থেকে আমি দুই মেয়াদে কাজ করেছি। রোজার ঈদে যে সিনেমাগুলো মুক্তি পেয়েছিল সেগুলো প্রচারে কাজ করেছি। দীর্ঘদিন দেশের বাইরে থাকার কারণে আমি এবারের ঈদের সিনেমার প্রচারে অংশগ্রহণ করতে পারিনি। শিল্পী সমিতির পক্ষ থেকে সিনেমার প্রচার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে কি-না, আমি জানি না।’

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ