মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:৫৪ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

আদিম’র মস্কো জয়ের গল্প

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২

রিয়েল তম্ময়

ল্যাংড়ার ভাসমান জীবন। খুনের দায় এড়াতে সে এক স্টেশন থেকে অন্য স্টেশনে ঘুরে বেড়ায় । যেখানেই যায় সেখানেই সে নতুন মানুষের সঙ্গে নতুন সম্পর্কে জড়ায়। এমনই একদিন টঙ্গী রেলওয়ে স্টেশনে কালা এবং কালার স্ত্রী সোহাগীর সঙ্গে তার পরিচয় ঘটে। যে পরিচয় ল্যাংড়ার জীবনে নানারকম জটিলতার জন্ম দেয়। ছোট করে বললে এটাই আদিম সিনেমার মূল গল্প। ‘আদিম’ সিনেমাটি মস্কো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের ৪৪তম আসরে জিতে নিয়েছে ‘নেটপ্যাক জুরি অ্যাওয়ার্ড’। আদিমের গল্পে জটিলতা আছে অনেক তবে আদিমের গল্পের মতই জটিলতা, বাধা, তিরস্কার, মানুষের হামলা, নিন্দা, লজ্জা, নির্ঘুম রাত কাটানো, অর্থাভাবসহ নানা প্রতিকূলতার বাস্তব গল্প রয়েছে আদিম সিনেমা নির্মাণের পিছনের গল্পে। এই সিনেমা নির্মাণে কতটা চরাই উতরাই পার করতে হয়েছে এই সিনেমার পরিচালক ও শিল্পীদের সেসব অভিজ্ঞতার কথা জানাতেই আদিম পরিবার আয়োজন করে সংবাদ সম্মেলনের।

গত ৮ সেপ্টেম্বর আগারগাঁওয়ে অবস্থিত ফিল্ম আর্কাইভের সেমিনার হলে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন অভিজ্ঞতার কথাই তুলে ধরলেন ‘আদিম’ সিনেমার পরিচালক ও শিল্পীরা। স্বপ্নবাজ এক তরুণ যুবরাজ শামীম। সিনেমায় পদার্পনও করলেন যুবরাজের বেশে। সিনেমার পোকা যার মাথায় সারাক্ষণ বিচরণ করে। ২০১৬ সালে আদিম বানানোর পরিকল্পনা করেন। কিন্তু একটি সিনেমা বানাতে যা প্রয়োজন বলতে গেলে কিছুই ছিলো না সে মুহুর্তে। তবুও সাহসী তরুণ নাছোড় বান্দা । সিনেমা তিনি বানাবেনই। ২০১৭ সালে যখন নেদারল্যান্ডসের এক নির্মাতা আদিমের গল্প শুনে সেটি নির্মাণের জন্য ২০০ ইউরো দিয়ে যায় সেই থেকে সাহসী যুবরাজ যেন আদিম নিয়ে আরও দূরে যাওয়ার এক অনুপ্রেরণা পায়। এই সিনেমার কাজ সম্পন্ন করতে অনেক টাকার দরকার ছিল । পরবর্তীতে এই সিনেমার শেয়ার বিক্রি করা হয়। এভাবেই গণঅর্থায়নে সকলের সহযোগিতায় একদিন নির্মান করা হয়ে যায় আদিম সিনেমা। কথায় বলে আপনি যদি ভালো কাজ করতে চান তাহলে আপনাকে আটকায় কে। বাধা আসবেই, সেই বাধা অতিক্রম করেই আপনাকে এগিয়ে যেতে হবে। আদিম সিনেমার পরিচালক যুবরাজ শামীমই তার প্রমাণ হতে পারে।

রেলওয়ে বস্তিকে ঘিরে গল্প। পরিচালক চিন্তা করলেন চরিত্রগুলোও বস্তির হলেই ভালো হবে। সেই চিন্তা থেকেই তিনি আবিষ্কার করেন বাদশা, দুলাল সোহাগীদের মত মানুষদের। যাদের জীবনটাই কেটেছে অভাব আর হতাশায় টঙ্গী বস্তিতে। তাদেরকে নিয়েই আজ নির্মিত হয়েছে সিনেমা। সত্যিকার অর্থে তাদের কি কোন লাভ হয়েছে?

এমন প্রশ্নের জবাবে সিনেমার ক্যাপ্টেন যুবরাজ শামীম বলেন, ‘সত্যিকার অর্থে লাভ আমারই হয়েছে। আজ মস্কোতে আদিম দেখানো হয়েছে অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে। সবাই কিন্তু আমাকেই চিনছে। তাদের (শিল্পীদের) কেউ ওইভাবে চিনছে না। আমি চাই তাদেরও লাভ হোক। তাদেরকে সবাই চিনোক। তারা কাজ করুক। আপনারা প্লিজ একটু এই বিষয়টা দেখবেন তাদের যেন কিছু একটা হয়। তারা যেন একটু ভালো থাকতে পারে।

অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে শিল্পীরা বলেন, শামীম ভাই যখন আমাদের বস্তিতে এসে থাকা শুরু করলেন আমরা তাকে তখন পাগল ভেবেছি। তারপর যখন উনি আমাদের একটা সিনেমার কথা বললেন তখন অনেক হেসেছি । আমরা বস্তির মানুষ আমরা কি করে সিনেমায় অভিনয় করব। শামিম ভাই তারপরও বুঝালেন। উনার কথা ভালো লাগলো তারপর রাজী হয়ে গেলাম। উনার সাথে কাজ করতে গিয়ে আমাদের অনেক মানুষের অনেক কথা শুনতে হয়েছে। শুটিং এর সময়ও পুলিশ আমাদের অনেক সমস্যা করেছে। শামীম ভাইকে ধরেও নিয়ে গেছিল, পরে ছেড়ে দিছে। বস্তির অনেক লোক আমাদের বলত, আমরা নাকি পাগলের সাথে চলি। এসব নাকি টিভির পিছনে দেখা যাবে, আমরা নাকি ইউটিউব করি। এসব নানান কথা বার্তা বলত লজ্জা দিত, অপমান করত। আজ যখন আমাদের সিনেমাটা বিদেশে পুরষ্কার পেয়েছে। আজ সবাই নিজ থেকে এসেই আমাদের কাছে জানতে চায় সিনেমাটা কোথায় দেখা যাবে। এখন সবাই আমাদের সাথে মিশে,  আমাদেরকে অন্যরকম ভাবে দেখে। এটা খুব ভালো লাগছে। সবকিছুই হয়েছে যুবরাজ শামীম ভাইয়ের জন্য। আমরা তার কাছে কৃতজ্ঞ। আমাদের ছবি বিদেশে পুরস্কার পাওয়ায় আমরা অনেক আনন্দিত। আমরা আরও ভালো ভালো কাজ করতে চাই ।

সংবাদ সম্মেলনে নিজের ‘আদিম’ নিয়ে যাত্রা ও মস্কোতে অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার অভিজ্ঞতা ও অনুভূতির কথা বলতে গিয়ে পরিচালক যুবরাজ শামীম বলেন, আজ আমরা একত্র হয়েছি আমার মস্কো ঘুরে আসা সম্পর্কে অভিজ্ঞতা জানাতে। আপনাদের ধন্যবাদ জানাতে, যারা বিশ্বাস করে আমার পাশে ছিলেন। আমার শিল্পীরা, আমার প্রযোজকেরা, আমার প্রিয় মিডিয়ার ভাইবোনেরা সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। পাঁচটা বছর অনেক বিশ্বাস-অবিশ্বাসের দোলায় দুলেছি। যখন মস্কো থেকে আমন্ত্রণ পেলাম মনে হলো কিছু একটা করতে পেরেছি ৷ তবে আমি ভাবিনি সেখানে পুরস্কার পাব, আমার ছবিটি প্রশংসিত হবে। আজ আমার সব পরিশ্রম, কষ্ট সার্থক।

আদিম নির্মাণে ব্যয় হয়েছে প্রায় ১৫ লাখ টাকা। তবে এর মধ্যে পরিচালক, শিল্পী, এডিটিং ব্যয়সহ আনুষাঙ্গিক অনেক কিছুই অন্তর্ভুক্ত নয় এমনটাই জানালেন পরিচালক যুবরাজ শামীম ।

প্রসঙ্গত, টঙ্গীর একটি বস্তিতে শুটিং হয়েছে ‘আদিম’ সিনেমার। এর কাহিনীও বস্তিকে কেন্দ্র করে। গণঅর্থায়নে নির্মাতার নিজস্ব প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান রসায়ন-এর ব্যানারে নির্মিত এবং সহ প্রযোজক হিসেবে সিনেমাকার ও লোটাস ফিল্ম যুক্ত রয়েছে। এর বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন বাদশা, দুলাল, সোহাগী, সাদেক প্রমুখ। চলচ্চিত্রটির চিত্রগ্রহণে ছিলেন আমির হামযা এবং সাউন্ড ও কালার করেছেন সুজন মাহমুদ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ