রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের চলচ্চিত্র এবং বিনা টিকিটে সারাবেলার জমজমাট বিনোদন

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০২৪

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

প্রতি শুক্রবার একটা নতুন সিনেমা মুক্তি পেতো। এর কোনোটাটা ব্যবসা সফল, কোনোটা মোটামুটি আবার কোনোটা ফ্লপ। তারপরও শুক্রবার এলেই নতুন সিনেমা হলে আসতো। কোনো একসময় গুলিস্তান এলাকা ছিলো ফিল্মপাড়া। বিশেষ করে গুলিস্তান বিল্ডিং। এরপর নায়ক রাজরাজ্জাক-সহ বেশকিছু প্রযোজক কাকরাইল এলাকায় ওনাদের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের অফিস খুললে ক্রমশ গুলিস্তান থেকে কাকরাইল এলাকাতেই অধিকাংশ ফিল্ম কোম্পানির অফিস স্থানান্তরিত হতে থাকে। কাকরাইলের ফিল্ম পাড়াতেই একটা ভবনে বহুবছর আমার অফিস ছিলো। আশেপাশে সবই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। বৃহস্পতিবার এলেই চারপাশে নতুন পোষ্টারের মৌমৌ গন্ধ। সিনেমা মুক্তি দেয়ার জোর আয়োজন। বুকিং এজেন্টদের ভিড়। এটাই ছিলো আজ থেকে পনেরো বছর আগের আমাদের চলচ্চিত্রের চিত্র।

২০১৮ সালের শেষদিকে চিত্রনির্মাতা তাজুল ইসলামকে কল দিলাম। ওর সাথে আমার পরিচয় ২০১০ সালে। তখন সে যোগ দেয় আমার প্রতিষ্ঠানে। কয়েক মাস পরই ওর মাথায় ফিল্ম ডিরেক্টর হওয়ার ভূত চাপে। সে চলে যায় এবং কামরুল ইসলাম, যাকে এখন সবাই তাজু কামরুল নামে চেনেন, তার সাথে জুটি বেঁধে নেমে পড়ে সিনেমা নির্মাণে। তাজুলের ঠিকানা হয়ে যায় এফডিসি। সময় গড়াতে থাকে।

তাজুলকে কল দিয়ে বললাম একটা প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান খুলবো, অফিস নিতে হবে। এরই মাঝে কেউকেউ বললো রামপুরা কিংবা মগবাজার মিডিয়া গলির কথা। আমি ওই এলাকাগুলোয় অফিস করাতে অনিচ্ছুক। কারণ, অধিকাংশ ভবনে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা নেই। অবশেষে যখন নিকেতন এলাকায় অফিস নিলাম তখন অনেকেই বললেন এটা মিডিয়ার লোকজনের জন্যে একটু দূরে হয়ে গেছে। আমি ওনাদের বলেছি, এখানেই মিডিয়া অফিসের জমজমাট হাট বসবে। বসেছেও।

আমরা নাটক, টেলিফিল্ম ইত্যাদি প্রযোজনা করলেও সিনেমার খোঁজখবর রাখি। চলচ্চিত্রাঙ্গনের অনেকেই আমাদের অফিসে আসেন। আমাদের ডাবিং ষ্টুডিওতে ফিল্মের কাজ চলে। কিন্তু পনেরো বছর আগে বাংলাদেশের ফিল্ম জগতে যে কর্মচাঞ্চল্য আর প্রাণ ছিলো সেটা আর চোখে পড়েনা। কারনটা হয়তো ক্রমশ সিনেমা হলের সংখ্যা কমে যাওয়া এবং ঘরেঘরে ওটিটি চ্যানেলের উপস্থিতি।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের বিরাট ক্ষতি করেছে পাইরেসি। এরপর এলো কাটপিসের তাণ্ডব। পাশাপাশি কিছু ছবিতে কয়েকজন অভিনেতার ইতরসুলভ সংলাপ। এসব বিশ্রী কারবারে সভ্য কোনো মানুষের পক্ষেই পরিবার-পরিজন নিয়ে সিনেমা দেখার পরিবেশ আর রইলো না। যদিও এই নোংরা সময়ের মাঝেই কিছু সুস্থ বিনোদনের সিনেমা মুক্তি পেলো। যার মধ্যে উল্লেখ্য মনপুরা, যা ব্যাপক বাণিজ্যিক সাফল্য অর্জন করে। কিন্তু এই সাফল্যকে সামনে রেখে অসুস্থ ছবির বদলে সুস্থ বিনোদনের ছবির দিকে সিনেমাহল মালিকদের আগ্রহটা তৈরি হলো না। ওনারা ছুটলেন ইতর মার্কা সিনেমার পেছনে। হ্যাঁ, সুস্থ বিনোদনের কিছু সিনেমা যে আসেনি তা নয়। এগুলো বাণিজ্যিক সাফল্যও পেলো। কিন্তু কোথায় যেনো একটা তালহীন পরিস্থিতির জন্ম হলো। এমন প্রতিকূল পরিস্থিতির মাঝেই মোটা অংকের বিনিয়োগ নিয়ে এলো জাজ মাল্টিমিডিয়া এবং অনন্ত জলিলের মুনসুন ফিল্মস। জাজ-এর ছবিগুলো ঢাকা-কলকাতা কেন্দ্রিক। এগুলোর প্রতি দর্শক এবং হল মালিকদের দারুণ আগ্রহ তৈরি হলো। অন্যদিকে অনন্ত জলিলের সিনেমাগুলো সাফল্য কেনো পায়নি এটা আমি লিখতে চাচ্ছিনা। জনতা ব্যাংক থেকে প্রায় সাত হাজার কোটি টাকার ঋণ নিয়ে আইনি ঝামেলায় পড়ে গিয়ে আব্দুল আজিজ গা ঢাকা দিলে জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্মচাঞ্চল্য ক্রমশ মিইয়ে যায়।

সিনেমা প্রযোজনায় এরপর আসে শাপলা মিডিয়া নামের একটা কোম্পানি, যার মালিক সেলিম খান। খুবই অপরিকল্পিতভাবে একটার-পর-একটা সিনেমা বানালেও এদের চলচ্চিত্রগুলো বাণিজ্যিক সাফল্য পায়নি। এরই মাঝে সেলিম খান দুর্নীতি দমন কমিশনের মামলায় গ্রেফতার হন। থেমে যায় ওনার সব প্রতিষ্ঠান। শাপলা মিডিয়ার বাতিও নিভে যায়।

বর্তমানে বাংলাদেশের ফিল্মগুলো মূলত দুই ঈদকে টার্গেট করেই নির্মিত হচ্ছে। তার মানে, বছরের বাকি সময় এফডিসি প্রায় প্রাণহীন। এর মাঝেই অনুদানের কিংবা গবেষণাধর্মী কিছু সিনেমা মুক্তি পেলেও ওগুলো দর্শক টানতে পারছেনা। সম্প্রতি ঢাকার সিনেপ্লেক্স থেকে মাত্র দুদিন পর মুক্তিপ্রাপ্ত দুটো সিনেমা নেমে গেলো। ছবির প্রযোজকদের একজন সংবাদ সম্মেলন করে হুমকি দিলেন, সিনেপ্লেক্স এমন আচরণ করলে ওনারা সিনেপ্লেক্স বয়কট করবেন। অনুজপ্রতিম কিছু বিনোদন সাংবাদিক ওসবে সুর মিলিয়ে সিনেপ্লেক্স বয়কটের ডাক দিলেন। এরপর সিনেপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ সাফ জানিয়ে দিলেন, মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা দর্শক টানতে ব্যর্থ হলে ওনারা ওগুলো চালাবেন না বা মুক্তি দিলেও নামিয়ে দেবেন। আমি এই কথার সাথে সম্পূর্ণ একমত। সিনেপ্লেক্স তো আর সরকারের অনুদানের টাকায় চলেনা। ওরা ব্যবসার উদ্দেশ্যে সিনেপ্লেক্স খুলেছেন। ব্যবসা না হলে ওরা কি অচল সিনেমা চালিয়ে দেউলিয়া হয়ে ঢাকার ফুটপাতে ডিমসিদ্ধ বিক্রি করবেন?

বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প এক কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি। এমন পরিস্থিতি চলতে থাকলে এক সময় এর শবযাত্রার আয়োজন দেখবো। এদেশের বিনোদন জগতে এখন নাটক সেক্টরেই কর্মচাঞ্চল্য ক্রমশ বাড়ছে। মানুষ বিনা টিকিটে টিভি চ্যানেল কিংবা ইউটিউবে নাটক দেখে বিনোদন পাচ্ছেন। অন্যদিকে ক্রমশ নিষ্প্রাণ হতে থাকা ফিল্ম সেক্টরও লোকজনদের এখন বিনা টিকেট বিনোদন দিচ্ছে ওখানকার সমিতিগুলো। নির্বাচন ঘিরে ফিল্ম সেক্টরের সদস্যদের নিত্য কাইজ্জা এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিংবা ইউটিউবে সুপার হিট বিনোদন।

সম্প্রতি শিল্পী সমিতির নির্বাচনকে ঘিরে নিপুণ আর ওনার প্রতিপক্ষের দ্বন্দ্ব জমে উঠছে। পত্রিকায় দেখলাম লন্ডনে বসে এক সাক্ষাৎকারে ডিপজলকে ‘অশিক্ষিত’ বলে মন্তব্য করেছেন সাধারণ সম্পাদক পদে হেরে যাওয়া নিপুণ আক্তার। এই অভিনেত্রী বলেন, “স্যরি টু সে, আমাকে বলতে হচ্ছে- শিল্পী সমিতিতে এমন একজন সেক্রেটারি পদে এসেছেন যার কোনো শিক্ষা নেই। এটা ২০২৪ সাল। আমরা ২০২৪ সালে দাঁড়িয়ে আছি। এটা অশিক্ষিত লোকদের জায়গা না, এটা আনকালচারদের জায়গা না। এটা কাজ করে দেখিয়ে দেওয়া লোকদের জায়গা”।

এরপর নিপুণ বলেন, “শুধু কাজ করলেই হবে না। জ্ঞান থাকতে হবে, শিক্ষিত হতে হবে। আমি একজন গ্রাজুয়েট। আমার তিন প্রজন্ম গ্রাজুয়েট”।

নিপুণের এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে এক অভিনেত্রী, যার মুক্তিপ্রাপ্ত সবগুলো ছবি সুপার ফ্লপ, সে কমেন্ট করেছে, “একটা প্রশ্ন আছে এই ইন্ডাস্ট্রিতে যে কয়েকজন পুঁথিগত বিদ্যার দ্বারা সার্টিফিকেট প্রাপ্ত তারা কেনো নিজের মুখে সারাদিক নিজেকে শিক্ষিত শিক্ষিত বলে?

“সুশিক্ষা, স্বশিক্ষা এবং অশিক্ষার মধ্যে পার্থক্য এরা কেনো বোঝেনা? লজ্জা হয় প্রত্যেকের কর্মকাণ্ড দেখলে”।

এক্ষেত্রে আমারও একই প্রশ্ন। মাত্র পনেরোদিন চায়না ঘুরে এসে বলতে হবে কেনো অমুক বিষয়ে মাস্টার্স করেছে, আবার যাবে পিএইচডি করতে? একটা সত্যি কথা বলে সহজ স্বীকারোক্তি দিলে ক্ষতি কি? বললে সমস্যা কোথায় পুঁথিগত বিদ্যার দ্বারা অর্জিত সনদ তার নেই? এমন ডাহা মিথ্যাচার করতে হবে কেনো? চীনের কোন ইউনিভার্সিটিতে পনেরো দিনে মাস্টার্স হয়? এসব বালখিল্য ফালতু কথা ছড়িয়েই বা কি লাভ?

আমি নিপুণ আক্তারকে চিনিনা। সঙ্গত কারণে ওনার পক্ষে কিংবা বিপক্ষে অবস্থান নেয়ার প্রশ্নও উঠবেনা। আমি অভিনেতা ডিপজল সম্পর্কেও কিছুই বলবো না। আমার কথা হলো ওসব উড়ে আসা অভিনেত্রী যারা নিজেদের পাণ্ডিত্য জহির করতে এখানেওখানে কমেন্টবাজি করে ওদের সম্পর্কে। এরা ইচ্ছে করেই আগুনে ঘি ঢেলে বিদ্যমান মনোমালিন্য আরো চাঙ্গা করে দিতে চায়। এদের সম্পর্কে সবার সজাগ থাকা উচিত।

শিল্পী সমিতির নির্বাচনের পর নিপুণ আক্তার বিজয়ীদের ফুলের মালা পরিয়ে নিজেকে যে উচ্চতায় নিয়ে গেছেন এটা থেকে আশাকরি তিনি পড়ে যাবেন না। সিনেমা বিনোদনের জায়গা। দয়া করে এটাকে বারবার হাইকোর্ট দেখাবেন না।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ