রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৮:০৭ অপরাহ্ন

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বাংলাদেশী অপরাধীদের একাধিক মধুফাঁদ

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৭ মে, ২০২৪

জমজমাট প্রতিবেদন

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার আদতেও নিহত হয়েছেন কিনা এনিয়ে ধোঁয়াশার সৃষ্টি হচ্ছে ক্রমশ। এরই মাঝে জার্মান টিভি চ্যানেল ডয়েচে ভেলের সাংবাদিক খালেদ মহিউদ্দিন তাঁদের দিল্লি সংবাদদাতার মুখে ঘটনার যে বর্ণনা দিয়েছেন তাতে জানা যায় কলকাতা পুলিশ এখনও আনারের মৃত্যুর ব্যাপারে নিশ্চিত নয়। কারণ, ঘটনার ১৪ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও এখন অব্দি ঢাকা কিংবা কলকাতায় এবিষয়ে হত্যা মামলা রুজু হয়নি। বরং এখনও পুলিশের খাতায় আনারকে নিখোঁজ দেখিয়েই তদন্ত চলছে।

ডয়েচে ভেলে এমন কথাও বলছে, কোনো একটা মহলের ইশারায় কোলকাতা পুলিশ গণমাধ্যমকে নানা ধরনের বিভ্রান্তিমূলক তথ্য দিয়ে যাচ্ছে। আবার কেউকেউ বলছেন পশ্চিমবঙ্গের প্রভাবশালী কোনো মহল গোটা বিষয়টা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে।

এরই মাঝে জানা গেছে, মার্কিন নাগরিক ও চোরাচালানি আক্তারুজ্জামান শাহিনের কলকাতা শহরেই দুটো ভাড়া ফ্ল্যাট এর পাশাপাশি গাড়ি, ড্রাইভার, গৃহ পরিচারিকা – সবই আছে। একজন বিদেশী নাগরিক কিভাবে কলকাতায় বাড়ি ভাড়া নিচ্ছেন এ প্রশ্নের জবাবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটা সূত্র জানায়, কেবলমাত্র কলকাতা শহরেই নয়, গোটা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে বিদেশী নাগরিক, বিশেষ করে বাংলাদেশীদের এমন অসংখ্য ফ্ল্যাট ও স্বতন্ত্র বাড়ি আছে। এদের কেউকেউ কলকাতা শহরেই পার্ক স্ট্রিটের মতো এলাকায় অফিসও চালাচ্ছেন, যেগুলো মূলত হুন্ডি এবং স্বর্ণ ও মাদক চোরাচালানের সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করে। কলকাতা থেকেই হুন্ডির টাকা গোটা ভারতে লেনদেন হয়।

আরো জানা গেছে, পশ্চিমবঙ্গে অবস্থানরত বহু বাংলাদেশী, যাদের প্রায় সবাই পুলিশের ওয়ান্টেড তালিকায় আছে কিংবা শীর্ষ সন্ত্রাসী, এরা সেখান থেকেই বাংলাদেশের আন্ডার ওয়ার্ল্ড নিয়ন্ত্রণ করে, বাংলাদেশে প্রতিমাসে কোটিকোটি টাকা চাঁদা আদায় করে ওই টাকা ভারতে নিয়ে যায়। বিনিয়োগ করে বিভিন্ন ব্যবসায়।

সূত্রটির দাবী, পশ্চিমবঙ্গে শুধু বাংলাদেশের অপরাধচক্রের সদস্যরাই নয় বরং সেখানে মিয়ানমার থেকে পালানো রোহিঙ্গাদেরও ফ্ল্যাট, বাড়ি এবং ব্যবসা আছে। এমনকি জঙ্গিগোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মি বা আরসা-এর গোপন অফিস আছে পশ্চিম বঙ্গের ২৪ পরগনা জেলায়।

অন্য আরেক সূত্রে জানা গেছে, পশ্চিমবঙ্গের অপরাধ জগতের সদস্যদের সাথে মিলে বাংলাদেশী অপরাধীরা কলকাতা শহরেই একাধিক মধুফাঁদ পরিচালনা করছে, যেখানে বিত্তবান লোকদের টার্গেট করে সুন্দরী নারীদের মাধ্যমে টোপে ফেলে গোপনে ভিডিও ধারণের পর ওসব দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের মাধ্যমে আদায় করা হয় অর্থ। শহরে বিদ্যমান এসব মধুফাঁদের অস্তিত্বের খবর প্রশাসনের উঁচু মহলের অজানা নয়। বরং এসবের সাথে ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রভাবশালী কিছু নেতানেত্রীর সম্পৃক্ততা আছে বলেও শোনা যায়। এসব মধুফাঁদের নারী সদস্যরা সন্ধ্যা নামলেই কলকাতা শহরের অভিজাত বার, নাইটক্লাব কিংবা হোটেলগুলোয় নানা অজুহাতে গিয়ে শিকার খোঁজে। এমনকি কলকাতা শহরে বেড়াতে আসা পশ্চিমা, জাপানি, কোরিয়ান এবং আরব পর্যটকরাও মধুফাঁদ চক্রের খপ্পরে পড়ছেন।

এদিকে বাংলাদেশী এমপি আনারের হত্যা রহস্যের জট এখনও খুলছেনা। এরই মাঝে কেউকেউ প্রশ্ন তুলছেন, তিনি আদতেই খুন হয়েছেন নাকি পরিকল্পিতভাবেই আত্মগোপনে গেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ