রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০২:০৬ পূর্বাহ্ন

কোরবানির তাৎপর্য ও বর্তমান ভ্রান্ত লৌকিকতা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪

এম এ হোসাইন

কোরবানি শব্দটি আরবীতে “কোরবুন” মূল ধাতু থেকে এসেছে। অর্থ হলো- নৈকট্য লাভ, সান্নিধ্য অর্জন, প্রিয় বস্তুকে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে উৎসর্গ করা। ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায়, নির্দিষ্ট প্রিয় জন্তুকে একমাত্র আল্লাহ পাকের নৈকট্য ও সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট সময়ে নির্ধারিত নিয়মে মহান আল্লাহ পাকের নামে জবেহ করাই হলো কোরবানি। কিন্তু, বর্তমানে আমাদের সমাজে কোরবানি নিয়ে যে আচরণ করা হয় তা নিঃসন্দেহে একটি পবিত্র ইবাদতের পুণ্য লাভের পরিবর্তে পরকালীন ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি এবং ধোকায় পড়ে রয়েছি। এখন সমাজে কোরবানি নিয়ে কেবল অনুষ্ঠান সর্বস্বতা ও লৌকিকতা ব্যাপকভাবে দেখা যায়। অথচ আল্লাহ পাক পবিত্র কুরআনে উল্লেখ করেন, “তোমরা যাহা ভালোবাসো তাহা হইতে ব্যয় না করা পর্যন্ত কখনো পূর্ণ লাভ করিবে না।…… (আল ইমরান ৯২)”। প্রশ্ন হচ্ছে, সত্যিই কি আমরা রিয়া মুক্ত প্রিয় বস্তুকে উৎসর্গ করি? যদি আজ হাবিল-কাবিলের কোরবানির মত কবুল হয়েছে কি হয়নি – তা অগ্নিসুচির মাধ্যমে আল্লাহ দেখাতেন তাহলে কতটা লজ্জাস্কর পরিস্থিতির সৃষ্টি হতো তা ভাববার বিষয়।

মানব সৃষ্টির শুরু থেকেই কোরবানির বিধান চলে আসছে। সকল ধর্মে কোরবানি ছিল একটি অপরিহার্য অংশ। পবিত্র কুরআনে সর্বপ্রথম কোরবানির ঘটনা হিসেবে আল্লাহতালা আদম(আঃ) এর দুই ছেলে, হাবিল ও কাবিল এর কোরবানির ঘটনা বর্ণনা করেছেন। তবে কোরবানির ইতিহাসে এক বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন হযরত ইব্রাহিম (আঃ)ও ইসমাইল (আঃ)। মহান আল্লাহর জন্য হযরত ইব্রাহিম (আঃ) এর সর্বোৎকৃষ্ট ত্যাগ এবং হযরত ইসমাইল (আঃ) এর আত্মোৎসর্গ আল্লাহর কাছে এতই পছন্দ হয়েছিল যে তিনি ইব্রাহিম (আঃ) কে বন্ধু রূপে গ্রহণ করেন এবং মুসলিম জাতির পিতা হিসেবে ভূষিত করেন। অপরদিকে, ইসমাইল (আঃ) এর বংশে সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) আবির্ভাবের মাধ্যমে তাকে সম্মানিত করেন। এর পাশাপাশি আল্লাহতালা তাদের এই উৎসর্গকে শিক্ষা হিসাবে চিরঞ্জীব করে রাখার জন্য কেয়ামত পর্যন্ত সকল সচ্ছল মানুষের জন্য কোরবানি ওয়াজিব করলেন।

জিলহজ মাসের ১০ থেকে ১২ তারিখের মধ্যে সুস্থ মস্তিষ্ক ও প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির কাছে যদি দৈনন্দিন খরচের অতিরিক্ত নেসাব পরিমাণ অর্থ (রুপার সাড়ে ৫২ তুলা) থাকলে তার উপর কোরবানি করা ওয়াজিব হবে অন্যথায় নয়। পবিত্র কুরআনে আল্লাহতালা ইরশাদ করেন, “আমি প্রত্যেক সম্প্রদায়ের জন্য কোরবানির বিধান দিয়েছি। তিনি জীবন উপকরণের জন্য যে চতুষ্পদ জন্তু দিয়েছেন, সেগুলোর উপর তারা যেন আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে।( সূরা হজ্জ, আয়াত-৩৪)”। তিনি অপর এক সুরায় ইরশাদ করেন, “এবং কা’বার নামে উৎসর্গকৃত উটকে আমি তোমাদের জন্য আল্লাহর অন্যতম নিদর্শন করেছি। এতে তোমাদের জন্য মঙ্গল রয়েছে। সুতরাং সারিবদ্ধভাবে বাঁধা অবস্থায় তাদের জবাই করার সময় তোমরা আল্লাহর নাম উচ্চারণ করো। অতঃপর যখন তারা কাত হয়ে পড়ে যায়, তখন তা থেকে তোমরা আহার করো এবং আহার করাও যে কিছু ধৈর্যশীল অভাবগ্রস্থ তাকে এবং যে যাচ্ঞাকারী অভাবগ্রস্ত তাকে। এমনিভাবে আমি এগুলোকে তোমাদের বশীভূত করে দিয়েছি, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করো। এগুলোর গোশত ও রক্ত আল্লাহর কাছে পৌঁছে না, কিন্তু তার কাছ পৌঁছে তোমাদের মনের তাকওয়া। এমনিভাবে তিনি এগুলোকে তোমাদের বশ করে দিয়েছেন, যাতে তোমরা আল্লাহর মহত্ত্ব ঘোষণা করো এ কারণে যে, তিনি তোমাদের পথ প্রদর্শন করেছেন। সুতরাং সৎ কর্মশীলদের সুসংবাদ শুনিয়ে দিন (সূরা হজ্জ, আয়াত ৩৬-৩৭)”। এই আয়াত দ্বয়ের মাধ্যমে আল্লাহ তা’আলা কোরবানির তাৎপর্য ও শিক্ষা বর্ণনা করেছেন তাছাড়া কোরবানির গোশতের বন্টনের নিয়মও বলে দিয়েছেন তাই আমরা কোরবানির গোশতকে তিন ভাগে ভাগ করে থাকি।

কোরবানির একমাত্র উদ্দেশ্য হলো আল্লাহ তালার সন্তুষ্টি ও তাকওয়া অর্জন, আর কিছুই না। আল্লাহ বলেছেন তার কাছে রক্তমাংসের কোন দাম নেই তিনি দেখবেন অন্তরের তাকওয়া বা আল্লাহ ভীতি। কোরবানি কেবল পশু জবাই করে তা আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে আমোদ ফুর্তিকে বুঝায় না বরং ঈদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো সৃষ্টিকর্তার প্রতি নিজের সবচেয়ে প্রিয় বস্তুর কে উৎসর্গ করার মত দৃঢ় ঈমান প্রদর্শন করা। আমরা যদি লক্ষ্য করি, ইব্রাহিম (আঃ) তার বার্ধক্যে অর্থাৎ ৮৬ বছর বয়সে পুত্র সন্তান লাভ করেছিলেন। সন্তানটি তার কাছে কত প্রিয় ছিলেন তা সহজেই অনুমেয়। কিন্তু, আল্লাহতালা তার সেই প্রিয় সন্তানকে নিজ হাতে জবাই করে, আল্লাহর প্রতি উৎসর্গের আদেশ দিলেন। অতঃপর তারা যখন পরীক্ষায় কৃতকার্য হলেন তখন আল্লাহ বলেন, “তখন আমি তাকে ডেকে বলি: এই ইব্রাহিম, তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে। এভাবে আমি সৎ কর্মীদের পুরস্কার দিয়ে থাকি। নিশ্চয়ই এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা। আমি তার পরিবর্তে দিলাম জবাই করার জন্য এক মহান জন্তু। (সাফফাত, ১০৫ -১০৭)”। সুতরাং কোরবানির মাধ্যমে আল্লাহ তা’আলা আমাদের পরীক্ষা করে নেন যেন আমরা ইব্রাহিম (আঃ) এর কোরবানির শিক্ষা অর্জন করে পরিপূর্ণভাবে খাঁটি মনে কেবলই আল্লাহর সন্তুষ্টি এবং নৈকট্য লাভ করতে পারি।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তা’লা এরশাদ করেন, “আপনি বলুন, নিশ্চয়ই আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন, আমার মৃত্যু আল্লাহরই জন্য। (সুরা আনআম- ১৬২)”। অন্য সূরায় বলেন, “অতএব আপনার পালনকর্তার উদ্দেশ্যে নামাজ পড়ুন এবং কোরবানি করুন। (সূরা কাওসার-০২)”। এতে এটাই সুস্পষ্ট ভাবে প্রতিমান হয়, কোরবানি শুধুই আল্লাহর উদ্দেশ্যে করতে হয়। অপর এক আয়াতে আল্লাহতা’লা উল্লেখ করেছেন, “উহারা কি জানে না যে আল্লাহ তো তাহার বান্দাদের তওবা কবুল করেন এবং সাদকা গ্রহণ করেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। (সূরা তাওবার-১০৪)”। তাই আমাদের কোরবানির টাকা অবশ্যই পবিত্র বা হালাল হতে হবে। এ ব্যতীত, যত টাকাই আমরা কোরবানির জন্য ব্যয় করি না কেন তা আল্লাহ তাআলার নিকট গ্রহণীয় নয়। হাদিসে উল্লেখ আছে, আল্লাহ পবিত্র, তিনি পবিত্রতা পছন্দ করেন এবং পবিত্র বস্তু তিনি কবুল করেন। হালাল উপার্জনে একটি নির্ধারিত জন্তু কোরবানি করা সকল সামর্থ্যবানদের জন্য বাধ্যতামূলক। তবে একের অধিক জন্তু কোরবানি করতে চাইলে অতিরিক্ত গুলো হবে সাদাকা সরূপ। অপরদিকে, অপবিত্র টাকায় যত সংখ্যায় কোরবানি করুক না কেন তা সকল কিছুই তাৎপর্যহীন আল্লাহর নিকট।

কোরবানিতে সকল প্রকার প্রদর্শন বা অহংকার মুক্ত হতে হবে। বর্তমানে কেউ কেউ বাহবা পাওয়ার জন্য বা নাম জাহির করতে লক্ষাধিক টাকায় পশু কিনে তা প্রদর্শন করে থাকে, এটা যেমন কোরবানি কবুলের অন্তরায় তদ্রুপ সমর্থ্যবান ব্যক্তি যদি স্বল্প মূল্যে দুর্বল পশু কোরবানি করে তাও অনুচিত। পশুটি কত বড়, কত দাম তা আল্লাহর কাছে গুরুত্বহীন। তিনি কেবল ব্যক্তির সর্বোত্তম প্রচেষ্টার মাধ্যমে তাকওয়ার পরীক্ষা নেন। কোরবানি নিয়ে আমাদের সমাজে এক ধরনের অসুস্থ প্রতিযোগিতা বা ঋণ করে হলেও কোরবানি দেওয়ার যে মানসিকতা তা শরীয়তে কোনভাবেই বৈধ নয়। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত এবং নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণীর পরিবারের কর্তা ব্যক্তিকে কোরবানির ঈদ আসার আগে মানসিক চাপে পড়ে যান। সামাজিকতা রক্ষার নামে এই শ্রেণী ধর্মীয় অবজ্ঞা করে থাকেন যা পূর্ণের পরিবর্তে পাপের অংশীদার হয়ে থাকেন। কোরবানী কেবল শরীয়ত অনুযায়ী সামর্থ্যবানদের জন্য প্রযোজ্য। এখানে লোক দেখানো কিংবা মাংস ভক্ষণ উদ্দেশ্য হলে কোরবানি কবুল হবে না।

আমাদের সমাজে কোরবানি সম্পর্কে আরো কিছু ভ্রান্ত ধারণা বা প্রচলন রয়েছে। যেমন কয়েকজন মিলে কোরবানি দিয়ে থাকেন। এটা কেবল মাত্র মুসাফির অবস্থায় বৈধ অন্যথায় নয়। দ্বিতীয়তঃ মৃত ব্যক্তি, মৃত বাবা-মা, আত্মীয়-স্বজন বা রাসূলুল্লাহ (সাঃ) নামে কোরবানি করে থাকেন এটার কোন ধর্মীয় ভিত্তি নেই, এটা এক ধরনের বিদআত। নিয়ম হচ্ছে, আল্লাহর নামে যিনি কোরবানি করবেন তিনি বলবেন, আমি এবং আমার পরিবারের পক্ষ থেকে এই কোরবানী। আরেকটি ভ্রান্ত ধারণা হচ্ছে, গরু কোরবানি করতেই হবে, সামর্থ্য থাকুক বা না থাকুক, শরীকে হলেও দিতে হবে। এটাও ভুল ধারণা, সামর্থ্য অনুযায়ী ব্যক্তি একটি পশু কোরবানী করবে।

আমাদের জীবন সম্পদ সবই আল্লাহর দান। মহান আল্লাহর জন্য প্রিয় বস্তুকে উৎসর্গ করতে পারাই কোরবানির আসল উদ্দেশ্য। এই কোরবানির মাধ্যমে আল্লাহর কাছে তার প্রিয় বান্দার তাকওয়া প্রকাশ পায়। কাজেই আল্লাহ দান আল্লাহর প্রতি উৎসর্গ করতে আমরা কতটুকু প্রস্তুত তাই একটি গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা হল কোরবানি। সুখ দুঃখ এবং স্বচ্ছলতা ও অসচ্ছলতা, সর্বাবস্থায় ইসলামই একমাত্র অনুশাসন হিসেবে মেনে নিতে পারলেই আমরা নিজেকে প্রকৃত মুসলিম হিসেবে দাবি করতে পারব।

 

এম এ হোসাইন,  একজন রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ