রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন

ঈদুল আযহা, কোটি টাকার গরু ও কাকের কষ্ট

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪

সালাহ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

পত্রিকার দিকে তাকালেই গা শিউরে ওঠে। এক থেকে তিন কোটি টাকায় কোরবানীর গরু কেনার রীতিমত প্রতিযোগিতা চলছে। ষাঁড়গুলোর গলায় ঝুলছে বাইশ ক্যারেটের বিশাল চেইন, যার এক-একটার দামই কম করে হলেও চার লাখ টাকা। হঠাৎ করে ষাঁড়ের গলায় স্বর্ণের চেইন পরানোর এই সংস্কৃতি কোথা থেকে এলো – কেনোই বা চালু হলো, এসব আমার মগজে ঢোকেনা। বাংলাদেশে স্বর্ণের খনি নেই। এই চেইনগুলো বিদেশ থেকে আসা। সম্ভবত চোরাই পথে। কিভাবে এগুলো বাংলাদেশে এলো – কারা আনলো – ট্যাক্স দিয়েছে কিনা, এসব প্রশ্ন যাদের করার কথা, ওনারা ব্যস্ত লাখ-লাখ কিংবা কোটি টাকা দিয়ে গরু কেনায়। ভোক্তা অধিকার পরিষদ ব্যস্ত সড়কের পাশে গরীব হকারদের জরিমানা করায়।

এবারের ঈদেই দেখছি কোটি টাকায় গরু বিক্রি হচ্ছে – পনেরো লাখে ছাগল। যারা কিনছেন, ওনারা আমার মতো সাধারণ জনগন নন। ওনারা এলিট শ্রেনীর লোকজন কিংবা জেনারেল আজিজ অথবা বেনজিরের মতো অলিম্পিক মেডেল প্রাপ্ত দুর্নীতিবাজ। ওনাদের লোম স্পর্শ করার সাহস জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের নেই। কোটি টাকার গরু কেনা লোকদের ওরা প্রশ্ন করতেও সাহস করবেনা – বছরে ট্যাক্স কতো দেন।

 কাতার বিশ্বের অন্যতম ধনী দেশ। আরবদেরও টাকার অভাব নেই। অথচ ওসব দেশেও কোটি টাকায় উট কিংবা দুম্বা বিক্রি হয়েছে, এমন খবর অন্তত আমার চোখে পড়েনি। অথচ বর্তমানে চলমান আর্থিক সঙ্কটের পাশাপাশি বিদেশী মুদ্রার চরম টানাটানির মাঝেই ঈদকে কেন্দ্র করে কিছু লোকের ফ্রি ষ্টাইল টাকা ওড়ানো দেখছি আর ভাবছি – দেশটা আদতে যাচ্ছে কোথায়।

 সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ডিএমপির সাবেক কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়ার বিপুল সম্পদের তথ্য ভাসছে। জানিনা এসব তথ্য কতোটা সত্যি। যদি আদতেই তথ্যগুলো নেহায়েত গুজব না হয়ে থাকে তাহলে দেশের একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে প্রশ্ন করতেই পারি – এমন বেপরোয়া দুর্নীতির সাহস ওরা পাচ্ছে কোথেকে। এটাও প্রশ্ন করতে পারি, এমন আজিজ, বেনজির কিংবা মিয়ার প্রকৃত সংখ্যাটা কতো। কেউ কি খতিয়ে দেখছেন?

 প্রতি বছর নাকি বিদেশে হাজার-হাজার কোটি টাকা পাচার হচ্ছে। ব্যাংক লুট থেকে শুরু করে শেয়ার বাজার কেলেঙ্কারিসহ বহুমাত্রিক লুটপাট আর দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত সম্পদ বিদেশে জমা করছেন অনেকেই। সেখানে ওনাদের বাড়ি-ব্যবসা সবই আছে। অজানা সংখ্যক বাংলাদেশি নাগরিক বিভিন্ন দেশের নাগরিকত্ব কিনেছেন কিংবা কথিত সেকেন্ড হোম গড়েছেন বিপুল টাকা দিয়ে। আমরা সাধারণ মানুষ এসব বর্গির তাণ্ডব দেখছি বোবার মতো।

 যারা বিরোধী দলে আছেন, ওনারা বর্তমান সরকারের পনেরো বছরের শাসনামলে দুর্নীতি আর লুটপাট নিয়ে কথা বলেন অহর্নিশি। অথচ ওনাদের সময়ও যে এর ব্যতিক্রম ছিলোনা, এটা ওরা স্বীকার করতেও নারাজ। বিএনপির নেতা তারেক রহমান গত সতেরো বছর লন্ডনে আছেন রাজার হালতে। অথচ ওনার দৃশ্যমান কোনো আয়ের উৎস নেই। কোথায় পান তিনি এতো টাকা? এই প্রশ্নটা কেউই করেনা। আজ বেনজির আহমেদ কিংবা আসাদুজ্জামান মিয়ার নাম উঠছে। বিএনপির আমলে দুর্নীতিবাজ বহু পুলিশ অফিসারের নাম আমরা জানি, যা এখন আর উচ্চারিতই হচ্ছে না। পুলিশের বহু অফিসারের আমেরিকা, কানাডা, অষ্ট্রেলিয়াসহ বিভিন্ন দেশে বাড়ী আছে – ব্যবসা আছে। ওনাদের সন্তানেরা বিদেশের দামী প্রতিষ্ঠানে লেখাপড়া করছেন। এই টাকার উৎস কি – কিভাবে এতো টাকা এলো – এসব প্রশ্ন কেউ করেছেন?

ফিরে যাই কোরবানির ঈদ প্রসঙ্গে। কোটি টাকার ষাঁড় কিংবা লাখ-লাখ টাকার ছাগল যেসব হাট কিংবা এগ্রো ফার্মে বিক্রি হচ্ছে ওগুলোয় সাংবাদিকরা যান ঢাউস স্বর্ণের চেন পরা গরুর ছবি তুলতে – ক্রেতা অথবা বিক্রেতার সাক্ষাৎকার নিতে। কারণ, ওসব নিতে পারলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিউজ আসে। একজনও সাহস করে ক্রেতাদের প্রশ্ন করেন না – আপনি বছরে ট্যাক্স দেন কতো টাকা কিংবা আপনার আয়ের উৎস কি। কারণ, এসব প্রশ্ন করতে হলে ব্যক্তিত্ব চাই – সাহস চাই। ওরা এখন ব্যক্তিত্ব বিসর্জন দিয়ে কলমধারি পতিতায় পরিণত হয়েছে। এখন ওদের চেয়ে কোটি টাকা দামের গরুর মুল্য বেশী।

 একটা দৈনিকের প্রথম পৃষ্ঠার কার্টুন। একটা কাক আক্ষেপ করে বলছে – “আজ কাউ না হইয়া কাউয়া হইছি বলে দাম নাই!” ঠিক আমাদেরও অনেকেরই এখন ওই “কাউয়ার” মতো অবস্থা।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ