রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৬:৩৯ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

আন্তর্জাতিক মার্কেটের কথা মাথায় রেখে কাজ করতে হবে: চঞ্চল চৌধুরী

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২১

জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। মঞ্চ, ছোট-বড়পর্দা যেখানেই কাজ করেছেন সেখানেই পেয়েছেন সাফল্য। মেধার ছাপ রেখেছেন ওটিটিতেও। চঞ্চল অভিনীত ‘তাকদীর’ ওয়েব সিরিজ মুক্তির পর তার অভিনয় বেশ প্রশংসিত হয়েছে। সমসাময়িক বিষয়ে জমজমাট এর সঙ্গে কথা বলেছেন এ তারকা অভিনেতা।

সবার মুখে মুখে এখন আপনার ‘তাকদীর’ সিরিজের কথা। এই সিরিজ নিয়ে কী বলবেন?

‘তাকদীর’ নিয়ে বলার তেমন আর কী আছে? (হেসে) দর্শক খুব প্রশংসা করছেন। শুধু এপার ওপার বাংলা না ‘তাকদীর’ সারা ভারতবর্ষের মানুষ দেখেছেন এবং প্রশংসা করেছেন। বিষয়টি আমাদের ইন্ডাস্ট্রির জন্য ভালো বলে মনে করি। সবাই বুঝতে পেরেছে আমাদের আসলে কী ধরনের প্রোডাক্ট আছে। সবচেয়ে বড় যে বিষয়টি সেটি হচ্ছে আমরা আন্তর্জাতিক মানের কাজ করতে পেরেছি। এই কাজের মাধ্যমে আমাদের সাহস বেড়েছে। ‘তাকদীর’ আমার তাকদীরে ছিলো। কাজটি করতে পেরে আমার ভালো লেগেছে। কারণ ভালো চরিত্রে অভিনয় করতে পারা একজন অভিনেতার জন্য আনন্দের। ‘তাকদীর’ আমাদের দেশের সম্মান বাড়িয়েছে। এ জন্যই আমি বেশি খুশি। সবসময় একটি কথা মাথায় রাখি সেটি হচ্ছে আমাদের নাটক-সিনেমা শুধুই আমাদের। যেমন ‘তাকদীর’ পুরোটাই আমাদের প্রোডাকশন। এখানে যারা অভিনয় করেছেন সবাই দেশী। ভারত তাদের সুবিধার জন্য আমাদের কাজ তিনটি ভাষায় ডাবিং করেছে। এটা আমাদের দেশের জন্য সম্মানের।

‘তাকদীর’-এ অভিনেতা চঞ্চলের অভিনয় দেশের বাইরেও ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। বিষয়টিকে কিভাবে দেখছেন?

বিষয়টি নিয়ে বলার কিছু নেই। ভালো কাজ করলে প্রশংসা আসবে এটাই স্বাভাবিক। এখন আমাদের চিন্তা করতে হবে আন্তর্জাতিক দর্শকদের নিয়ে। তাই প্রশংসা বিষয় না, ভালো কাজ করে আমাদের দেশ এবং ইন্ডাস্ট্রির সুনাম বয়ে নিয়ে আসাই হচ্ছে মূল লক্ষ্য।

২০২১ সালে নতুন কোনো স্বপ্ন?

আমি স্বপ্নবাজ মানুষ। আর আমার তো স্বপ্ন তো থাকবেই। এ বছর নিজেকে আরো ভালো করে দর্শকদের সামনে উপস্থাপন করতে চাই।

এ বছর দর্শকদের জন্য কী চমক দিচ্ছেন?

২০২০ সালে আমার দুইটি চলচ্চিত্র মুক্তির কথা ছিলো। এর মধ্যে একটি হচ্ছে গিয়াস উদ্দিন সেলিমের ‘পাপ-পুণ্য’, আরেকটি হচ্ছে মেসবাউল হকের ‘হাওয়া’। সিনেমা দুটি করোনার কারণে গত বছর মুক্তি দেয়া হয়নি। আশা করছি এ বছর মুক্তি পাবে। দর্শক দুটি চলচ্চিত্রেই অন্য এক চঞ্চল-কে দেখতে পাবেন। আশা করি সবার কাছেই চলচ্চিত্র দুটি ভালো লাগবে।

গত বছর কেমন ছিল?

২০২০ সালে বেশ কয়েকজন সহকর্মীকে হারিয়েছি। আমাদের ইন্ডাস্ট্রির জন্য বছরটি ছিল ভয়াবহ। তবে এ বছর আশার আলো জাগিয়েছে ওয়েব সিরিজ। যদিও আমি প্রফেশনালি গান গাই না, তবে গত বছর একটি গাইলাম। তাই ভালো-খারাপ মিলিয়ে গত বছরটা আমার কাছে সাধারণ একটি বছরের মতই ছিল।

সবাই এখন ওটিটিতে ঝুঁকছে। কেমন মনে হচ্ছে এর ভবিষ্যৎ?

আসলে এর ভবিষ্যৎ প্রথমেই খারাপ বলা যাবে না। আমাদের চলচ্চিত্রের একটি উজ্জ্বল ইতিহাস আছে, যার ভবিষ্যৎ এখন হুমকির মুখে। যেমন এক সময় টেলিভিশন নাটকের যে পরিমাণ দর্শক ছিল, তা এখন কোথায়? ভালো কিছু করতে না পারলে, সবকিছুই একদিন হারিয়ে যাবে, এটাই স্বাভাবিক। চলচ্চিত্র-নাটকের মান আগের থেকে অনেক কমে গিয়েছে। ভালো চলচ্চিত্র বছরে দুই একটা তৈরি হয়। এভাবে তো দর্শক ধরে রাখা সম্ভব না। ওটিটিতে সবাই ঝুঁকছে বিষয়টি কিন্তু এমন না। আবার সবাই যে ভালো কাজ করছেন তাও কিন্তু নয়। যাদের কাজে কোয়ালিটি থাকবে, ওটিটির ভবিষ্যৎ তাদের জন্যই ভালো। কারণ এটি একটি আন্তর্জাতিক মার্কেট। এখানে আন্তর্জাতিক মানের কাজ করতে পারলেই টিকে থাকা সম্ভব। ওটিটিতে যাদের কাজের মান ভালো, তাদের ভবিষ্যৎও ভালো।

বড় পর্দা না বড় মার্কেট কোনটি বেশি পছন্দ?

আমি একজন অভিনেতা যে কোনো পর্দাই আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ। আমি কাজটাকে ইবাদতের অংশ মনে করি। ভালো কাজ করতে না পারলে পর্দা যতই বড় হোক না কেন আমি কিন্তু দিন দিন ছোট হয়ে যাবো। আর মার্কেট বলতে যদি বলেন সেটা ভিন্ন বিষয়। ওটিটি হচ্ছে আন্তর্জাতিক মার্কেট। যেখানে সব ধরনের দর্শক পাবেন। তাই নিজেকে মেলে ধরতে হলে প্রতিযোগিতামূলক কাজ করার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মার্কেটের কথাও মাথায় রাখতে হবে। দেশের সুনাম বয়ে আনার জন্য সবার সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য আন্তর্জাতিক মার্কেটে আসতেই হবে। তবে আমার কাছে মার্কেট বলতে কোনো বিষয় নেই। ভালো কাজ করতে পারাটাই আমার কাছে মুখ্য বিষয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ