সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৫৩ অপরাহ্ন
Uncategorized

‘কীর্তিমানদের ভিড়ে আমরা গর্দভ শ্রেণীর আম জনতা’

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০২০

সংস্কৃতি হচ্ছে একটা জাতির পরিচয় জানার শ্রেষ্ট মাধ্যম। আমরা, অর্থাৎ বাঙ্গালী জাতি অর্থ-বিত্তে সুপার পাওয়ার না থাকলেও চিরকালই আমাদের হাজার বছরের ঐতিহ্য সমৃদ্ধ সংস্কৃতি নিয়ে গর্ববোধ করেছি। কিন্তু ক্রমশ কেমন যেনো আমাদের ওই অহংকার কিংবা গর্বের জায়গাটায় ঘুণ ধরতে শুরু করেছে। ক্রমাগত আমরা সাংস্কৃতিক দেউলিয়াত্বের দিকে ধাবিত হচ্ছি।

কদিন আগে শুনলাম আমাদের দেশের সিনেমা হলে বলিউডের হিন্দী ছবি মুক্তির আয়োজন চলছে। বলিউডের ছবিতে অনেক কিছুই দেখানো হয় যা আমাদের কৃষ্টি কিংবা সংস্কৃতির সাথে মেলে না। তবু আমাদের জোর করেই যদি ওসব গেলানোও হয় তবু আপত্তি থাকতো না যদি আমাদের দেশীয় চলচ্চিত্র অন্তত কাঙ্ক্ষিত পৃষ্ঠপোষকতা এবং আর্থিক সহায়তা পেতো। আমাদের নিজেদের চলচ্চিত্র শিল্পকে ধ্বংস করে ভিনদেশী সিনেমা আমাদেরই হলে চালালে একটু আপত্তি তো থাকবেই। কিন্তু, সত্যি কি আমাদের চলচ্চিত্রের কাঙ্ক্ষিত পৃষ্ঠপোষকতা এবং আর্থিক সহায়তা পেলে ঘুরে দাঁড়ানোর ক্ষমতা আছে? এমন ভাবনা থেকেই ২০১৯ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের দীর্ঘ তালিকাটা দেখছিলাম আর ভাবছিলাম, আমাদের মতো গর্দভ শ্রেণীর আমজনতার এসব বিষয় নিয়ে কথা বলার যোগ্যতা আসলেই কি আছে?

বেশ ক’বছর ধরেই জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারকে ঘিরে কেমন যেনো এক উটকো কান্ড ঘটছে। যৌথ প্রযোজনা (পড়ুন যৌথ প্রতারণা)-এর নামে একটা কোম্পানী অনেকগুলো সিনেমা বানিয়েই শুধু ক্ষ্যান্ত হয়নি, ওরা বিশেষ কায়দায় নিজেদের পছন্দের লোকদের জাতীয় পুরষ্কার পাইয়ে দিতেও সক্ষম হয়েছিলো। ওদের তাণ্ডবের মাত্রা এতোটাই বেড়ে গিয়েছিলো যে, একজন নৃত্য পরিচালকের নাম ওদেরই কোনো এক ছবিতে জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত হিসেবে ঘোষণা হলে ওই নৃত্য পরিচালক পুরষ্কার গ্রহণই করেননি। এই ঘটনায় আর কিছু হোক বা না হোক, জাতীয় পুরস্কারের মর্যাদা ভীষণভাবে ক্ষুণ্ন হয়েছিলো।

২০১৯ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার নিয়ে এরই মাঝে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুণকীর্তন শুরু হয়ে গেছে। যারা পেয়েছেন তারাও চুপচাপ নেই। নিঃসন্দেহে যারা পুরষ্কার পেলেন ওদের জন্যে এটা বিশাল অর্জন। যদিও এসব ভাঙ্গিয়ে আজকাল রুজি-রোজগার বাড়ানোর সুযোগ আর নেই। এসব এখন আর গুণের স্বীকৃতির পরিচয়ও বহন করে কিনা আমার সন্দেহ। তবু যারা পুরষ্কার পেলেন, ওনাদের অভিনন্দন। আমাদেরকে অন্তত করোনা সংকটের এই কঠিন সময়ে একটু হলেও প্রমোদিত করায় – মন ভরে হাসতে দেয়ায়!

লেখক: সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক, গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞ এবং ইংরেজী পত্রিকা ব্লিটজ সম্পাদক।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ