শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

আমার নায়িকা হওয়ার পেছনে রাজ্জাক ভাইয়ের অনেক অবদান: অঞ্জনা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২১ আগস্ট, ২০২০

বাংলা চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি নায়ক, শক্তিমান অভিনেতা, প্রযোজক ও পরিচালক নায়করাজ রাজ্জাকের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৭ সালের ২১ আগস্টের এই দিনে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি পরলোকগমন করেন। বাংলা চলচ্চিত্রে দীর্ঘ সাড়ে ছয় দশক এই নন্দিত অভিনেতা অত্যন্ত দক্ষতার সাথে অভিনয় করে নায়করাজ হিসেবে উপাধি লাভ করেন। নন্দিত এই নায়কের সাথে প্রায় ৩৫টির মতো চলচ্চিত্রে জুটি হিসেবে কাজ করেছেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী অঞ্জনা সুলতানা।

রাজ্জাকের তৃতীয় প্রয়াণ দিবসে স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, নায়ক রাজ রাজ্জাক আমাদের বাংলা চলচ্চিত্রের সর্বশ্রেষ্ঠ মহানায়ক। রাজ্জাক ভাইকে সত্যিকার অর্থে অনেক মিস করি। তার সাথে প্রায় ৩৫টির মতো ছায়াছবিতে জুটি হিসেবে কাজ করেছি! রাজ্জাক ভাইয়ের সাথে অসংখ্য স্মরনীয় ঘটনা আছে। বিশেষ করে রাজ্জাক ভাইয়ের সাথে আমার প্রথম নায়িকা হিসেবে আজিজুর রহমান ভাই পরিচালিত ‘অশিক্ষিত’ ছায়াছবিতে ‘ঢাকা শহর আইসা আমার আশা ফুরাইছে’ গানটার শুটিংয়ের সময় রাজ্জাক ভাই আমাকে এতোটা সহযোগিতা করেছে যা কোনো দিন ভুলার নয়! তারপর শেখ নজরুল ইসলাম পরিচালিত ‘বিধাতা’ ছায়াছবির একটি গানের শুটিং করতে কাপ্তাই গেলাম সেখানে স্পীড বোটে গানের একটি মুহূর্তে আমি পরে যাচ্ছিলাম রাজ্জাক ভাই এমন শক্ত করে আমাকে ধরে রাখলেন যে গানটি দেখে কেউ মনেই করবে না আমি এতোটা ভয় পেয়েছিলাম।

অঞ্জনা বলেন, একটি বিশেষ উল্লেখ্যযোগ্য ঘটনা যা মনে হলে এখনও গা শিউরে উঠে আলমগীর কুমকুম পরিচালিত ‘রাজার রাজা’ ছায়াছবিতে একটি এ্যাকশন দৃশ্য ছিলো আমাকে এবং রাজ্জাক ভাইকে একসাথে বেঁধে ফেলা হবে তারপর পাহাড় থেকে নিচে ছুড়ে ফেলবে। নিচে যথেষ্ট প্রটেকশন দেয়া ছিলো। যেনো আমরা কোনো ব্যাথা না পাই। কিন্তু আমাদের হাতের রশিটা যেমন করে বাঁধার কথা ছিলো সেটা শক্ত করে বাঁধা হয়নি! যখন নিচে লাফ দিলাম রশি ছুটে গেলো দুইজন দুইদিকে পড়ে গেলাম। আমি নিচে পরে অজ্ঞান হয়ে যাই। রাজ্জাক ভাই নিচে পারার পর শুধু বলছে অঞ্জনা কুমকুম ভাই অঞ্জনা কোথায় পাগলের মতো করছিলো। আমাকে মাথায় পানি দিয়ে সাথে সাথে হাসপাতালে ভর্তি করা হলো। রাজ্জাক ভাইও পায়ে মারাত্মক আঘাত পেয়েছিলেন তাকেও ভর্তি করা হলো। তিনি নিজে এতো ভয়ানক এক্সিডেন্ট এর পরেও আমার কথাটি চিন্তা করেছিলেন। রাজার রাজা ছবিটি সুপার বাম্পার ব্যবসা করে। রাজ্জাক ভাইয়ের সাথে দেখা হলেই এই ঘটনাটা বলতেন। আমি কোনো দিন আপনার ঋন শোধ করতে পারবো না রাজ্জাক ভাই। আজকে আমি অঞ্জনা হয়েছি সেটা শুধু আপনার অবদান। আপনি সারাটি জীবন আমাদের মনের মনিকোঠায় থাকবেন।

উল্লেখ্য, আজিজুর রহমানের ‘অশিক্ষিত’ নায়ক রাজের সঙ্গে অঞ্জনার সবচেয়ে বিখ্যাত ছবি। ‘ঢাকা শহর আইসা আমার আশা ফুরাইছে’ গানের জন্যও বিখ্যাত এ ছবিটি। নায়করাজ তার নিজের প্রযোজনায়ও অঞ্জনাকে নিয়ে কাজ করেছেন ‘অভিযান’ ছবিতে। রাজ্জাক-অঞ্জনা অভিনীত ছবিগুলো দর্শকরা বেশ পছন্দই করেছেন। শেষের দিকে দুজনের আর ছবি করা হয়নি। অঞ্জনা অভিনীত মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রের সংখ্যা প্রায় তিন শতাধিক। গাংচিল ও পরিণীতা চলচ্চিত্রে অনবদ্য অভিনয়ের জন্য দুইবার শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়াও তিনি মোহনা, পরিণীতা, রাম রহিম জন চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেত্রী বিভাগে তিনবার বাচসাস পুরস্কার লাভ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ