মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন
Uncategorized

সিনেমার উন্নয়নে কেউর মাথা ব্যথা নেই: হক মিয়া

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২১

রঞ্জু সরকার: চলচ্চিত্রে নায়ক-নায়িকার রূপে মুগ্ধ হন সাধারণ দর্শক। মেকআপ শিল্পীর তুলির ছোঁয়ায় ঝলমলে হয় শিল্পীর মুখমণ্ডল। তেমনই একজন মেকআপ শিল্পী হক মিয়া। মিডিয়ায় আসার স্বপ্ন দেখেন সিনেমা হল থেকে। ‘অজান্তে’ সিনেমা দেখে হল থেকে কেঁদে কেঁদে বের হয়ে ঠিক করলেন মিডিয়ায় কাজ করবেন। সুযোগ খুঁজতে থাকেন কিভাবে এ পেশার সাথে জড়িত হওয়া যায়। এফডিসিতে নিয়মিত যাতায়াত এক জনের পরামর্শে এক মেকআপ শিল্পীর সাথে যোগাযোগ করে কাজের আগ্রহ জানান। পরে ছয় মাস পর একটি কাজের সুযোগ পান। সহকারী মেকআপ শিল্পী হিসেবে প্রথম কাজ করেন প্রয়াত নায়ক মান্না অভিনীত ‘রাজা নাম্বার ওয়ান’ সিনেমায়। শুরুতে কাজে পরিবার থেকে অনেক বাঁধা আসে। পরিবার চেয়েছিল বিদেশে পাঠিয়ে দিতে। তবে হক মিয়া ভালোবেসে বেছে নেন মেকআপ শিল্পীর পেশা। মিডিয়ায় ২৪ বছর ধরে কাজ করছেন তিনি। সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন পাঁচশতর মতো সিনেমায়। প্রথম মেকআপ শিল্পী হিসেবে কাজের সুযোগ করে দেন পরিচালক জিল্লুর রহমান।

মেকআপ শিল্পী হিসেবে এ পর্যন্ত মুক্তি পাওয়া সিনেমা ৫২টি। হাতে আছে চারটি সিনেমার কাজ। তার মধ্যে রয়েছে ‘গিভ অ্যান্ড টেক’, ‘উন্মাদ’ ও ‘গোপন সংকেত’। করোনার কারণে সিনেমা নির্মাণ কমে যাওয়ায় সবার মতো হক মিয়াও বিপাকে পড়েন। নতুন স্বাভাবিক অবস্থায় কাজ শুরু হলে এরইমধ্যে অপূর্ব রানা পরিচালিত ‘গিভ অ্যান্ড টেক’ সিনেমায় কাজ করেছেন। হক মিয়াকে কাজ করতে গিয়ে হতে হয়েছে বিভিন্ন ফিল্ম পলিটিক্সের শিকার। এমনও হয়েছে কাজ করে পারিশ্রমিক পায়নি। দেখা গেছে ৫২টি ছবির ৪০টিতেই ঠিক মতো পারিশ্রমিক পাননি আলাপকালে এমনটাই জানান তিনি।

হক মিয়া জমজমাটকে বলেন, আগে বছরে ৭০-৮০টি সিনেমা নির্মাণ হতো যা কমে ২০ এর ঘরে এসেছে। দিন দিন সিনেমা নির্মাণ কমে যাচ্ছে। যার ফলে অনেকেই পেশা বদল করছেন। সিনেমা নির্মাণ হলে আমরাও কাজ পেতাম। অনেকের আবার ব্যক্তিগত মেকআপ শিল্পী আছে। যার কারণে আমরা অনেক সময় কাজ পাই না। যাই হোক না কেন সিনেমার উন্নয়নে সে ভাবে সরকারের হস্তক্ষেপ দেখছি না। বন্ধবন্ধুর তৈরি এফডিসি এখনও লোহার গেটই রয়েছে। উন্নয়নে কেউর মাথা ব্যথা নেই।

যোগ করে তিনি বলেন, আপনি যদি বিটিভিতে যান মনে হবে না এটা বাংলাদেশের কোন চ্যানেল তারা অনেক আপডেট। কিন্তু আমাদের প্রাণের এফডিসির দায়িত্ব নিচ্ছে না সরকার। আমাদের ২টি ফ্লোর ভেঙে ফেলা হয়েছে কেউর কোন বাঁধা দেখলাম না। এভাবে চলতে থাকলে একটা সময় সিনেমাই থাকবে না। এখন এফডিসি গেলে মনে হয় ভূতের বাড়ি এসেছি। অনেক সময় বরাদ্ধ হয় শুনতে পাই তবে আশার আলো দেখি না। বিভিন্ন পার্কে সিনেমার শুটিংয়ের অনুমতি দেওয়া হয় না। অথচ গল্পে প্রয়োজন হলেও আমরা ঠিক মতো লোকেশন দেখাতে পারছি না। অবহেলায় আমাদের এ শিল্পীটি শেষ হয়ে যাচ্ছে। এখনও সময় আছে এটি রক্ষা করার। ছবি নির্মাণেও অনেক বাঁধা থাকে। নির্মাণে একজন পরিচালক পূর্ণ স্বাধীনতা পান না। মাননীয় সরকারের কাছে অনুরোধ সিনেমা ও এফডিসির উন্নয়নে নজর দেওয়ার। সিনেমা বাঁচলেই আমরা বাঁচব।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ