মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:০১ পূর্বাহ্ন

ঘূৃর্নিঝড়ে কাঁদছে মানুষ হাসছেন পরীমণি

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২২

জমজমাট প্রতিবেদক 

বাংলা চলচ্চিত্রের আলোচিত ও সমালোচিত চিত্রনায়িকা পরীমণি। পরীমনির জন্মদিন মানেই বিশেষ কিছু। প্রতিবছরই ধুমধাম করে নিজের জন্মদিন পালন করেন । অনুষ্ঠানের সাজসজ্জা থেকে শুরু করে পরীমনি নিজের পোশাক দিয়ে আমন্ত্রিত অতিথিদের চমকে দেন। অনুষ্ঠানের নানা কর্মকাণ্ডের ছবি, ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়।

গত ২৪ অক্টোবর (সোমবার) ৩০-এ পা রেখেছেন এই নায়িকা। রাজধানীর একটি কনভেনশন সেন্টারে জমকালো আয়োজনে পরীর জন্মদিন উদযাপন করা হয়। যেখানে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন বিনোদন মাধ্যমের তারকারা সহ অনেকেই। রাত আটটা থেকেই ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে আমন্ত্রিত অতিথিরা কনভেনশন হলে উপস্থিত হতে থাকেন। আর জন্মদিনের মধ্যমণি পরী আসেন রাত দশটার পরে।

শান্তির বার্তা দিতে এবার সাদা পোশাকে রাত সাড়ে দশটায় কনভেনশন হলে প্রবেশ করেন পরী। পায়রা রূপে পোশাকটি নকশা করেন জেমি। এসময় পরীর সাথে ছিলেন তাঁর স্বামী শরিফুল রাজ। এবারের জন্মদিনের মঞ্চ সাজানো হয় সাদা রংয়ে পায়রার পালকের আদলে।

এরপর স্বামীর হাত ধরে মঞ্চে উঠেন পরীমনি। এরপর তার জীবনের ওপর নির্মিত একটি ডকু ফিকশন প্রদর্শিত হয়। এতে রাজের সঙ্গে প্রেমসহ অজানা কিছু কথা সবার সাথে ভাগাভাগি করে নেন। এটি নির্মাণ করেছেন পরী নিজেই। এর দৈর্ঘ্য ছিল ১৫ মিনিট। যদিও ডকু ফিকশনটিতে অনেক তথ্যই ছিলো এলোমেলো। যার বাস্তব চিত্রটি ছিলো ভিন্ন। তবুও সবাই পরীর এই ডকু ফিকশনটি দেখে হাতে তালি দেন।

এরপর দেখিয়ে পুত্র রাজ্য, স্বামী রাজ ও নানাকে নিয়ে কেক কাটেন তিনি। শুধু তাই নয়, নেচে-গেয়ে জন্মদিন জমিয়ে তোলেন নায়িকা।

এদিকে পরীমনির জন্মদিনের শুরু থেকে দেশের অবস্থা তেমন ভালো ছিলনা। এই নায়িকা সহ অনেকেই যখন তার জন্মদিন উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তখন প্রায় এক শ কিলোমিটার গতিতে ধেয়ে আসছিল ঘূর্ণিঝড় চিত্রাং। আশ্রয়কেন্দ্রের ছয় লাখ মানুষ যে মুহূর্তে উৎকণ্ঠার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছিলেন। রাজধানী ঢাকা সহ দেশের অনেক এলাকাই জনজীবন বিপর্যস্ত তখন পরীমনি ব্যস্ত নিজের জন্মদিনের আনন্দ নিয়ে। একদিকে মানুষ কাঁদছে অন্য দিকে হাসছেন এই নায়িকা।

প্রতিবারই পরীমনির জন্মদিন নিয়ে নানা বিতর্ক দেখা দেয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। দেশের মানুষের এমন বিপদের সময়ে পরীমনির জন্মদিনের এমন আয়োজন অনেকেই ভিন্ন ভাবে দেখছেন। তাঁর জন্মদিনে এবার দেশের অনেক টিভি চ্যানেলই লাইভ দেখিয়েছেন। আর সেই সব লাইভে অনেকেই পরীর এমন কর্মকান্ডে তাকে বিবেকহীন বলেও আখ্যায়িত করছেন।

দুর্যোগ উপেক্ষা করে অতিথিরা জন্মদিনে হাজির হওয়ায় কৃতজ্ঞতা জানাতে ভোলেননি পরী। তিনি বলেন, ‘ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে কাছের মানুষেরা যে আমার জন্মদিনে এসেছেন, সেজন্য আমি হ্যাপি। হ্যাপি বার্থ ডে টু মি।’ কিন্তু দেশের মানুষের কথা ভেবে তিনি মুখ দিয়ে একটি শব্দ পর্যন্ত বের করেননি। কিন্তু এই দেশের মানুষই তাঁর খারাপ সময়ে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন রাজপথে মানববন্ধন করে। তবে কী পরীমনি দেশের মানুষের সেই সব কথা ভুলে গিয়েছেন? তাহলে কী দেশের মানুষের বিপদের থেকে তাঁর নিজের আনন্দটাই বড়?

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ