মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৩:২৭ অপরাহ্ন

আস্থার সংকটে সেন্সরবোর্ড, বিচক্ষণদের সুযোগের দাবি

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ৮ এপ্রিল, ২০২৪

জমজমাট প্রতিবেদক

আগামী ১৬ এপ্রিল সেন্সরবোর্ডের বর্তমান কমিটির বিলুপ্তি হচ্ছে। এরপর শুরু হবে নতুন কমিটির জন্য এক্সপার্ট খুঁজে নাম ঘোষণার কাজ। প্রশ্ন উঠেছে বিগত দিনের বিশেষ সুবিধাভোগীরা কি এবারও থাকবেন নাকি নতুন ও বিচক্ষণ মুখের দেখা মিলবে এবারের বোর্ডে? ইতিমধ্যে কেউ কেউ দৌড়ঝাঁপও শুরু করেছেন বলে জানা গেছে।

১৯৬৩ সালের সেন্সরশিপ আইনের ধারা ৩ এবং ১৯৭৭ সালের বাংলাদেশ সেন্সরশিপ অব ফিল্মস রুলসের বিধি ৪ মোতাবেক আগামী ১ বছরের জন্য দায়িত্ব পালন করবেন নতুন সদস্যরা। বরাবরের মতো বোর্ডের চেয়ারম্যান থাকছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব।

গত কমিটিতে সেন্সর বোর্ডে দায়িত্ব পালন করেছেন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের সচিব, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (চলচ্চিত্র), স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের প্রতিনিধি, চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং চলচ্চিত্র গবেষক অনুপম হায়াৎ, পদাধিকার বলে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি (কাজী হায়াৎ), অভিনেত্রী সুজাতা আজিম, নির্মাতা-প্রযোজক দেওয়ান নজরুল, প্রযোজক খোরশেদ আলম খসরু, অভিনেত্রী রোজিনা ও অরুণা বিশ্বাস এবং অভিনেত্রী-সাংবাদিক ফাল্গুনী হামিদ।
এদের মধ্যে অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাসকে রেকর্ড পঞ্চমবারের মতো দেখা গেছে সেন্সরবোর্ডে। রোজিনা টানা দ্বিতীয়বার, অপরদিকে খোরশেদ আলম খসরু চতুর্থবারের মতো সেন্সরবোর্ডকে সেবা দিয়েছেন।

এরআগে পরিচালক সমিতির সভাপতি থাকাকালীন পদাধিকার বলে টানা চারবার সেন্সরবোর্ডের সদস্য ছিলেন মুশফিকুর রহমান গুলজার। একইভাবে প্রদর্শক সমিতির সভাপতি থাকাকালীন মধুমিতার সিনেমা হলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ চারবার সেন্সরবোর্ডে ছিলেন। মাঝে এক টার্ম ড্যানি সিডাক ও রানা হামিদ দায়িত্ব সামলেছেন। এ নিয়ে তখন বিতর্ক ওঠে।

অর্থাৎ ঘুরেফিরে তিন চার মুখেই আটকে গেছে সেন্সরবোর্ড। তাদের বিরুদ্ধে মন্ত্রণালয়কে মেনেজ করে একাধিকবার সেন্সরবোর্ড আঁকড়ে থাকার অভিযোগ থাকলেও তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় তাদের ওপর আস্থা রেখেছে। আগামী ১৬ এপ্রিল এই কমিটির বিলুপ্ত হবে। যে কারণে নতুন করে সেন্সরবোর্ড নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে কেউ কেউ মন্ত্রণালয়ে দৌড়ঝাঁপও শুরু করেছেন বলে খবর এসেছে। আবার কেউ সেন্সরবোর্ডকে এড়িয়ে গিয়ে নিজের কাজটাই ঠিকঠাক করতে চান। তোষণনীতির বিরুদ্ধে নিজেকে আড়াল রাখাটাই তাদের লড়াই। যাদের দিয়ে সামাজিক, পারিবারিক ও পেশাদারিত্বের মর্যাদা রক্ষা হতে পারে।

বোদ্ধাদের মতে সেন্সরবোর্ডে এমন বিশেষজ্ঞদের দেওয়া উচিৎ যারা সর্বজন শ্রদ্ধেয়। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে শানিত করতে সর্বোচ্চ ত্যাগ করতে প্রস্তুত। নিজের মেধা ও মননের লড়াইয়ে যারা সফলভাবে এগিয়ে চলছেন। তরুন মানসের স্বপ্নপুরুষ। এমন নামের জন্য সেন্সরবোর্ডে একাধারে অপেক্ষাকৃত তরুন ও বিচক্ষণ কিছু নামকে বিবেচনা করতে পারে বলে সিনেমা সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। সেন্সরবোর্ডকে আস্থার সংকট থেকে বের করে আনতে প্রদর্শক সমিতির পক্ষে লায়ন সিনেমাসের কর্ণধার মির্জা আব্দুল খালেকের নাম সর্বাগ্রে আসে। প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জল বলেন ‘দীর্ঘদিন ধরে সেন্সরবোর্ডে আমাদের প্রতিনিধি নেই। আমরা চাই এবারের সেন্সরবোর্ডে মির্জা খালেকের মতো বরেণ্যকে বিবেচনা করা হোক।

এ ব্যাপারে খালেক বলেন, চলচ্চিত্রের সকল সেক্টরেই আমার বিচরণ, মর্যাদা অক্ষুণ্ন রেখে চেষ্টা করবো সর্বোচ্চ করতে।

অপরদিকে চলচ্চিত্র সঙ্গীত সংশ্লিষ্টদের ভাবনায় জাতীয় পুরস্কারজয়ী মকসুদ জামিল মিন্টু ও মিল্টন খন্দকারের নাম বিবেচনার জন্য দাবি এসেছে এই প্রতিবেদকের কাছে। তেমনি অভিনয় ক্যাটাগরিতে জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী রাইসুল ইসলাম আসাদ, আশিষ খন্দকার ও স্থপতি অপি করিমের মতো গুণীর নাম উঠে এসেছে। সংশ্লিষ্ট পরিচালকদের মতে উঠে এসেছে বরেণ্য পরিচালক দেওয়ান নজরুল, খিজির হায়াৎ খান ও মুস্তাফিজুর রহমান মানিকের নাম। প্রস্তাব এসেছে নাট্যকার, লেখক ও স্থপতি শাকুর মজিদ এবং জগন্নাত বিশ্বিবিদ্যালয়ের শিক্ষক ও নির্মাতা রাকিবুল হাসানের নাম। ক্যামেরায় আসাদুজ্জামান মজনু আর সাংবাদিক ক্যাটাগরিতে কায়কোবাদ মিলন ও ইমরুল শাহেদের মতো প্রাজ্ঞজনের নাম বিনোদন সাংবাদিক সহকর্মীরা প্রস্তাব রেখেছেন।

ঘুরেফিরে দু-চার নামের ব্যাপারে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সাইফুল ইসলাম (চলচ্চিত্র) বলেন, সত্যি বলতে আমরাও চাই পরিবর্তন কিন্তু সেন্সরবোর্ডে অনেকেই আসতে আগ্রহ দেখায় না। যার ফলে যাদের আমরা সবসময় সিনেমার কাজে পাই তাদের ডাকি বা ডাকতে বাধ্য হই। এক্ষেত্রে যদি বিচক্ষণ কারো নাম প্রস্তাব আসে তবে আমরা তাকেও অনুরোধ করবো সেন্সরবোর্ডে আমাদের সঙ্গে থাকতে।

প্রস্তাব দেওয়ার পরও কেন সেন্সরবোর্ডে আগ্রহী নন এ ব্যাপারে জানতে একাধিক বিশিষ্টজনের কাছে জানতে চাইলে তারা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, এখানে যে মানের সিনেমা হয় তাতে ওগুলো দেখে সময় নষ্ট। আর ওপরমহলের চাপের একটা ব্যাপার থাকে। অর্থাৎ স্বাধীনভাবে কাজ করার সুযোগ কম। যে কারণে এখানে এসে বিতর্কিত হতে চান না তারা।

তবে সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য গ্রহণযোগ্য বিচক্ষণ ব্যক্তিরা দূরে থাকলে আগাছারাই দণ্ডমুণ্ডের কর্তা হয়ে বসে থাকবে। তাই প্রধানমন্ত্রীর সদিচ্ছা বাস্তবায়নে সুস্থধারার বিনোদনের পথ দেখাতে বিচক্ষণরাই হোক সেন্সরবোর্ডের ভরসা।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ