মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১৩ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা, দেশ তথা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নাটকে পৃষ্ঠপোষকতার অভাব!

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২১

সৈয়দ ইকবাল

প্রতিবছর ১৮ অক্টোবর জাতীয়ভাবে পালিত হবে ‘শেখ রাসেল দিবস’। শেখ রাসেল দিবস ‘ক’ শ্রেণী ভুক্ত দিবস হিসেবে পালনের বিষয়ে মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয়েছে। সম্প্রতি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ শেখ রাসেল দিবস পালনের প্রস্তাব এবং যৌক্তিকতা মন্ত্রিসভায় পেশ করলে মন্ত্রিসভা বৈঠকে প্রস্তাবটি অনুমোদিত হয়। গতবছরের ১৮ অক্টোবর ‘শেখ রাসেল দিবস-২০২০’ উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের জন্মদিনকে জাতীয় দিবস হিসেবে ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেল ১৯৬৪ সালের ১৮ অক্টোবর ধানমন্ডির বঙ্গবন্ধু ভবনে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সময় ঘাতকদের হাত থেকে শিশু শেখ রাসেলও রক্ষা পাননি। বর্তমান প্রধামন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অন্য এক আবেগের নাম ‘শেখ রাসেল’। পরিবারের সর্বকনিষ্ঠ সদস্যকেও ঘাতকরা সেই কালো রাতে ছেড়ে দেয়নি। বিভীষিকাময় সেই রাতে যখন শেখ রাসেল মা মা… বলে ছুটছিল- তখন ঘাতকরা- ‘মা উপরে আছে’ বলে নিয়ে যায় এবং সেই ছোট্ট আদুরে বুকেও বুলেটে ক্ষতবিক্ষত করে। এবছর ‘শেখ রাসেল দিবস’ অন্য এক মর্যাদায় পালিত হওয়ার বিষয়ে এরইমধ্যে তোড়জোড় শুরু হয়েছে। দিবসটিকে কেন্দ্র করে এরইমধ্যে নেয়া হয়েছে নানান কর্মসূচী।

এ বছর ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবসও বেশ ঝাকজমকপূর্ণভাবে পালিত হবে। একইভাবে গুরুত্বপূর্ণ ছিল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদত বার্ষিকী। গতবছর স্বাধীন বাংলার রূপকার এই স্থপতির জন্মশতবার্ষিকীও ছিল অনেক গুরুত্বপূর্ণ। ঠিক যেমনিভাবে গুরুত্বপূর্ণ আমাদের মহান একুশে ফেব্রুয়ারির ভাষা দিবস ও ২৬ মার্চের মহান স্বাধীনতা দিবসও। কিন্তু অনুতাপের বিষয় এই যে, এসব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে কেন্দ্র করে কিংবা গুরুত্বপূর্ণ এই দিনগুলোকে উপজীব্য করে খুব একটা টিভি নাটক-টেলিফিল্ম নির্মিত হয় না। হাতেগোনা কিছু কনটেন্ট নির্মিত হয়। স্পন্সর কোম্পানি ও ইউটিউব চ্যানেলগুলোর এই ধরনের কনটেন্টগুলো নিয়ে আগ্রহ কম থাকার পরও গত বছর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী, জাতীয় শোক দিবস ও মহান স্বাধীনতা দিবসে দেশের শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ‘ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট’ প্রযোজিত ও ক্রাউন ক্রিয়েশনস্ এর বিপনন ব্যবস্থাপনায় বেশকিছু ফিকশন নির্মিত হয়। যেগুলোর মধ্যে শোয়েব চৌধুরী’র গল্পে বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর মোহাম্মদ মনি পরিচালিত ‘জনক ও সন্তান’, মাসুম রেজার রচনা ও আবু হায়াত মাহমুদ পরিচালিত ‘কমরউদ্দিন সম্বল’, শোয়ের চৌধুরীর গল্প অবলম্বনে গোলাম সোহরার দোদুল পরিচালিত ‘রানার’, গোলাম ফরিদা ছন্দা পরিচালিত ‘জোসনা’, সুমন ধর পরিচালিত ‘আমাদের খোকা’ ও অনিক বিশ্বাস পরিচালিত ‘জননীর চোখ’সহ আরো কিছু উল্লেখযোগ্য। অথচ এই প্রজন্মকে মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়কার নানান ঘটনা জানানোর জন্য তথ্যপ্রযুক্তির এই সময়ে ফিকশন নির্মাণ করে জানানো দরকার। বর্তমানে ইউটিউব আর সোশ্যাল মিডিয়ার কল্যাণে এসব ফিকশনের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্ম উজ্জীবিত হতো নব চেতনায়। স্বাধীনতায় মহান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভূমিকার সত্য সব কথা নাটকীয়ভাবে টিভি নাটকে উপস্থাপন বেশ প্রয়োজন।

তাহলে এই সময়ে এসে কেনো এতো কম নির্মিত হচ্ছে এই ধরনের কনটেন্ট? এমন প্রশ্নে বিজ্ঞাপনী সংস্থা ক্রাউন ক্রিয়েশনস এর ম্যানেজিং পার্টনার তাজুল ইসলাম বলেন, ‘অনেকেই এই ধরনের ফিকশনগুলোকে পলিটিক্যাল ফিকশন বলে থাকে। মুক্তিযুদ্ধ কী পলিটিক্যাল? বর্তমান সময়ে একটি নাটক বা টেলিফিল্ম শুধুমাত্র টিভি চ্যানেল থেকে পুরো ইনভেস্টমেন্ট উঠিয়ে আনা যায় না। সেক্ষেত্রে আমরা টিভি চ্যানেল, ইউটিউব চ্যানেলের কাছে বিক্রি ও স্পন্সর- এই তিন জায়গা থেকে আমাদের লগ্নিকৃত টাকা তুলে আনার চেষ্টা করি। তবে দুঃখের সাথে বলতে হয়- দু’একটা কোম্পানি ছাড়া স্পন্সর কোম্পানিগুলোর এই বিষয়ে আগ্রহ কম থাকে। এটার সাথে ইউটিউব চ্যানেলগুলোও এই ধরনের নাটকের ভিউ কম হয় বলে-তারা আপলোড দিতে চায় না। ফলে অনেক প্রযোজনা সংস্থার আগ্রহ থাকার পরও নির্মিত হয় না আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ তথা দেশপ্রেম নিয়ে ফিকশন। তারপরও গত বছর ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট লাভ হবে না জেনেও শুধুমাত্র দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে এই বিষয়ে বেশকিছু নাটক-টেলিফিল্ম নির্মাণ করেছে। অথচ ভ্যালেন্টাইনের মতো স্থুল বিষয়েও আমাদের এখানে প্রচুর নাটক-টেলিফিল্ম নির্মিত হয় এবং তা টিভি চ্যানেল ও স্পন্সর কোম্পানি থেকে শুরু করে ইউটিউব চ্যানেলগুলোর বেশ আগ্রহ থাকে। অথচ আমাদের মূল শেকড় হচ্ছে মহান মুক্তিযুদ্ধ। এই ধরনের কনটেন্ট নির্মাণের জন্য যে বাজেট প্রয়োজন সেটাও কিন্তু একটা বিষয়। টিভি নাটকের ইনভেস্টমেন্ট মূলত উঠে আসে স্পন্সর কোম্পানিগুলো থেকেই। সেখানেই আমরা পিছিয়ে যাই।’

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ টিভিতে প্রচার হওয়া প্রথম নাটকটিই ছিল মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে। নাটকের নাম ‘বাংলা আমার বাংলা’। ড. ইনামুল হকের লেখা নাটকটি নির্মাণ করেছিলেন আবদুল্লাহ আল মামুন। পরের বছর আরেকটি আলোচিত নাটক প্রচার হয়। ‘জনতার কাছে আমি’ শিরোনামের নাটকটি রচনা ও পরিচালনা করেছিলেন মোস্তাফিজুর রহমান। একটা সময় স্বাধীনতা দিবস ও বিজয় দিবসের বাইরেও মুক্তিযুদ্ধের নাটক প্রচার হতো বাংলাদেশ টেলিভিশনে। নতুন প্রজন্ম টেলিভিশনে মুক্তিযুদ্ধের নাটকের মাধ্যমে অনেক অজানা ইতিহাস জেনে থাকে। কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় বেড়েছে আমাদের টিভি চ্যানেলের সংখ্যা। নাটক নির্মাণের অনেক সংখ্যাও বেড়েছে। তবে কমেছে মুক্তিযুদ্ধের নাটক নির্মাণ। বর্তমানে ডিসেম্বর কিংবা মার্চ মাস এলেই টেলিভিশনে নতুন-পুরাতন কিছু মুক্তিযুদ্ধের নাটক প্রচার হতে দেখা যায়। তাও নামমাত্র। অথচ এই ইউটিউব এর যুগে এর সংখ্যা বাড়ার কথা। একটি দেশের ইতিহাস ও সংস্কৃতিকে এগিয়ে নিতে টিভি নাটক দারুণ ভূমিকা রাখে। সেখানে নির্দিষ্ট বৃত্তের মধ্যে এখন নির্মাণ হচ্ছে নাটকগুলো। প্রেম ভালোবাসা ছাড়া অন্য কোনো বিষয় খুব একটা থাকে না এসব নাটকে। নাটক সংশ্লিষ্ট অনেকেই বলেন, ভালোবাসা দিবসসহ বেশ কিছু দিবসে প্রায় প্রতিটি চ্যানেল নাটক নিয়ে নানা রকম আয়োজন করে। অথচ দেশের নাটকের জন্য তাদের সেই আয়োজন ও বাজেট থাকে না। এটি আমাদের জন্য বেদনাদায়ক। ডিসেম্বর কিংবা মার্চের বাইরেও মুক্তিযুদ্ধের নাটক নির্মাণের জন্য টিভি চ্যানেল-নির্মাতা-স্পন্সর কোম্পানি ও ইউটিউব চ্যানেল সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

লেখক: সাংবাদিক, নাট্যকার এবং ক্রাউন ক্রিয়েশনস এজেন্সি’র সিওও

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ