রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:১৫ অপরাহ্ন
Uncategorized

১৫০ পর্বে বৈশাখী টিভির তারকাবহুল ধারাবাহিক ‘জমিদার বাড়ী’

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১

বুধবার (২৭ অক্টোবর) রাত ৯.২০ মিনিটে ১৫০ পর্ব প্রচার হবে বৈশাখী টেলিভিশনের তারকাবহুল ধারাবাহিক নাটক ‘জমিদার বাড়ী’। সপ্তাহে তিনদিন প্রতি মঙ্গল, বুধ ও বৃহষ্পতিবার একই সময়ে প্রচারিত হয়ে আসছে নাটকটি। ধারাবাহিকটিতে অভিনয় করেছেন মনোজ সেন গুপ্ত, শম্পা রেজা, আ খ ম হাসান, নাদিয়া মীম, শিল্পী সরকার অপু, সুব্রত, মোমেনা চৌধুরী, সঞ্চিতা দত্ত, মিলন ভট্ট, নাইরুজ সিফাত, ইমতু রাতিশ, বড়দা মিঠু, রাশেদ মামুন অপু প্রমুখ। গল্প: টিপু আলম মিলন, সংলাপ- চিত্রনাট্য ও পরিচালনা: সাজ্জাদ হোসেন দোদুল । প্রযোজনা: এশিয়াটিক মাইন্ড শেয়ার।

১৫০ পর্ব প্রচার উপলক্ষে পরিচালক সাজ্জাদ হোসেন দোদুল বলেন, দর্শকদের অকৃত্রিম ভালোবাসাই নাটকটিকে এতদূর নিয়ে এসেছে। বিশেষ করে নাটকটি মানসম্পন্ন করার জন্য অভিনয় শিল্পীদের আন্ত-রিকতা এবং আমার চেষ্টার কোনো কমতি ছিল না। সর্বোপরি নাটকের গল্পের কথা না বললেই নয়। বৈশাখী টিভির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন ভাইয়ের গল্প অসাধারণ। কাহিনী দর্শকদের ভালো না লাগলে কিন্তু নাটকটি এতদূর টেনে আনা সম্ভব হতো না। এ রকম অসাধারণ গল্প দেয়ার জন্য তাঁর প্রতি আমি কৃতজ্ঞ।

নাটকের কাহিনীকার বৈশাখী টিভির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলন বলেন, নাটকের জন্য প্রতিটি গল্পতেই ভিন্নতা আনার চেষ্টা করি, ধারাবাহিক ‘জমিদার বাড়ী’ও এর ব্যতিক্রম নয়। দর্শকদের ভালোবাসা নিয়ে নাটকটি ১৫০ পর্ব প্রচার হচ্ছে জেনে ভালো লাগছে। ভালো গল্প, ভালো অভিনেতা-অভিনেত্রী এবং ভালো নির্মাতা হলে দর্শক তা দেখবেই। নির্মাতা সাজ্জাদ হোসেন দোদুলের প্রতি আমার বিশ্বাস আছে, সে নাটকটিকে আরো জনপ্রিয় করে তুলতে পারবে বলে আমি মনে করি। ইতোমধ্যেই জমিদার বাড়ীর ভেতরকার অন্ত:কলহ, দ্বন্দ্ব-সংঘাত আর নানা জল্পনা-কল্পনায় নাটকটি জমে উঠেছে।

নাটকের গল্প নিয়ে বলতে গিয়ে গল্পকার টিপু আলম মিলন বলেন, জমিদারী প্রথা শেষ হয়েছে সেই কবে। ভগ্নপ্রায় জমিদার বাড়ীগুলো এখন পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত। জমিদারী প্রথা শেষ হলেও বংশ পরম্পরায় তাদের ঠাট-বাঁট, আচার-আচরণ, চলন-বলন এখনো রয়ে গেছে। নদী মরে গেলে যেমন তার বাঁক রয়ে যায় তেমনি জমিদারী শেষ হলেও তাদের শরীরে রয়ে গেছে জমিদারী রক্ত। জমিদারী রক্তের কারণেই অহংকারে মাটিতে পা পড়ে না, আশপাশের মানুষকে তাচ্ছিল্য করে, ঘৃনার চোখে দেখে। তাদের চলন বলনে মনে হয় এখনও তারা জমিদার বহাল আছেন, সমাজের সবাই তাদের আগের মতোই সম্মান করবে, কুর্নিশ করবে। তারা মানতেই চায় না এ এক নতুন সমাজ , তাদের জমিদারী আজ আর নেই। কিন্তু তা না থাকলে কি হবে, জমিদারী প্রথার মতোই শ্রেনী বৈষম্য এখন সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে। নব্য সমাজ প্রতিভূ জমিদারদের দাপটে সুন্দর সমাজ আজ ক্ষতবিক্ষত। সমাজের নানা অসংগতিগুলোই ওঠে এসেছে নাটকের গল্পে।

তিনি আরো বলেন, নাটকের মূল উপজীব্য ভগ্নপ্রায় মির্জা জমিদারের বাড়ী। এলাকার মানুষের কাছে এ বাড়ীটি এখনো অনেক বিস্ময়। প্রচুর ধন সম্পদ আর প্রাচুর্যের কারণে এলাকার মানুষের কাছে তাদের অনেক সম্মান। উপর থেকে এই জমিদার বাড়ীর যতই চাকচিক্য থাক না কেন, ভিতরে ভিতরে ফাটল ধরে গেছে। জমিদার রমজান মির্জা মারা যাবার সময় সমস্ত সম্পত্তি স্ত্রী রাবেয়ার নামে লিখে দিয়ে যান। রাবেয়ার তিন ছেলে- বাদশা, নবাব ও সম্রাট। গ্রামের মানুষ এটাও জানে-রাবেয়া মির্জা জমিদারের একক স্ত্রী নন, এক বাঈজীকে বিয়ে করেছে, তার ঘরেও আরো সন্তান আছে। এটা জানার পর ক্ষুব্ধ রাবেয়া মির্জা বিশ্বস্ত লোক দ্বারা জমিদার রমজান মির্জাকে পানিতে ডুবিয়ে হত্যা করান। হত্যার আগে সব সম্পত্তি জোর করে নিজের নামে লিখিয়ে নেন। জমিদারের মৃত্যুরহস্য আজও অজানা। কাহিনী যত এগিয়ে যাবে ততই উন্মোচিত হবে একের পর এক নাটকীয়তা।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ