বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

সিনেমাপাড়ায় কেন এত দ্বন্দ-মামলা-অভিযোগ!

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১ অক্টোবর, ২০২২

রিয়েল তন্ময়

খুব বেশি দিন আগের কথা নয়। সিনেমা হল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন দর্শক। চলচ্চিত্রে চলছিল ক্লান্তিকাল। মন্দা বাজার আর খরার মধ্য দিয়েই যেন যাচ্ছিল দেশীয় চলচ্চিত্র। কথায় আছে মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি। ঠিক এমনটাই ঘটেছে দেশীয় চলচ্চিত্রে। গত ঈদ উল ফিতর থেকে নতুন সিনেমা মুক্তির পর থেকেই যেন পালটে গেছে সকল হিসাবনিকাশ। সম্প্রতি যে সিনেমা গুলো মুক্তি পেয়েছে তা দর্শক-সাফল্য যেন সিনেমায় নতুন দিনের ইঙ্গিত দিচ্ছে। চলচ্চিত্রে ফিরতে শুরু করেছে সুদিন। দর্শক হলমূখী হচ্ছে এটা সত্যিই সাফল্যের খবর। কিন্তু সিনেমার বাজার যখনই চাঙ্গা হবার দ্বারপ্রান্তে ঠিক তখনই শিল্পী-পরিচালক-প্রযোজকদের মধ্যে যে দ্বন্দ,মামলা ও অভিযোগের খবর গণমাধ্যমে আসছে সেটা কি চলচ্চিত্রের ক্ষতি করছে না? বর্তমানে ফেসবুক ইউটিউব ব্যবহারকারীর সংখ্যা অনেক বেশি। তাৎক্ষণিক তারকাদের সেকোন খবর চলে যাচ্ছে সাধারণ মানুষের কাছে। সাধারণ মানুষ খিস্তি করছে হিল্লি করছে তারকাদের নিয়ে। যে তারকাদের ব্যক্তিগত খবরও সাধারণ মানুষ জানতে পারবে সেই তারকার প্রতি দর্শকদের চাহিদা স্বভাবতই থাকার কথা নয়। যাদেরকে ফেসবুক ইউটিউবে অহরহ দেখা যায়,টাকা দিয়ে নিশ্চই তাদের সিনেমাহলে দেখতে যাবে না কেউ। এ ব্যাপারে একটু সতর্ক হওয়া উচিত নয় কি শিল্পীদের? চলচ্চিত্র ও এফডিসি এখন সাধারণ দর্শকদের কাছে এক প্রকার নাটক পাড়া হয়ে গেছে। অনেকে তো মজার ছলে বলেই ফেলে ‘এফডিসিতে এখন আর সিনেমা হয় না, এখন হয় নাটক’ । নিশ্চই এই মন্তব্য আমরা আশা করিনা। দর্শকদের কাছে আমাদের এমন ভাবে হাজির হতে হবে যেন দর্শক শিল্পীদের শ্রদ্ধা ও সম্মানের চোখেই দেখে এবং স্বপ্নের নায়ক নায়িকার স্থানেই রাখে। আজ এসবের জন্য দায়ী কারা?চলচ্চিত্র পাড়ায় এখন সিনেমার আলোচনার চাইতে যেন বেশি হচ্ছে কাঁদা ছুড়াছুঁড়ি।শিল্পী-পরিচালক-প্রযোজকদের বিরুদ্ধে মামলা,দ্বন্দ, অভিযোগ এগুলাই বেশি শোনা যাচ্ছে। এগুলা যেন এখন স্বাভাবিক ঘটনা হয়ে গেছে। এইতো চলতি বছরের এই ৯ মাসে প্রায় ৯ থেকে ১০ টি ঘটনার কথা গণমাধ্যমে এসেছে, মিশা-জায়েদের নামে আলমগীরের মামলার ঘোষণা, জায়েদ-নিপুণের পাল্টাপাল্টি মামলার হুমকি,মালেক আফসারীর বিরুদ্ধে অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাসের মামলার ঘোষণা ,জায়েদ বনাম ওমর সানী দ্বন্দ্ব ও মামলা, পরীমনির বিরুদ্ধে মামলা, দুই দেশে অনন্ত জলিলের বিরুদ্ধে মামলার ঘোষণা, হাওয়া সিনেমা ঘিরে মামলার আবেদন, প্রযোজকের মামলার হুমকি নিয়ে মাহিয়া মাহির পাল্টা জবাব, সাংবাদিক রাহাত সাইফুলের বিরুদ্ধে অভিনেতা রাসেল মিয়ার থানায় অভিযোগ ।এই ব্যাপার গুলো কি চলচ্চিত্র ঘুরে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করবে না?

এই ব্যাপারে চলচ্চিত্র পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান একটা মন্তব্যে বলেন, অবশ্যই সেটা চলচ্চিত্রের শিল্পের জন্য হুমকির ও ক্ষতিকর। শিল্পীদের তো আমরা বারণ করেছি। যেমন যারা বলার কথা না, তারাও এখন বক্তব্য দিচ্ছে। আর এই ব্যাপারগুলো ইউটিউবাররা নিজেদের মত করে ক্যাপশন দিয়ে ছড়িয়ে দিচ্ছে। তাতে করে দুই পক্ষের মধ্যে একটা দ্বন্দ তৈরি হয়। এতে শিল্পের ক্ষতি হচ্ছে বেশি। আর ইউটিউবে যদি আমি আর্টিস্টকে অহরহ দেখতে পারি তাহলে আমি সিনেমা হলে কেন যাব। সিনেমা হলে যেয়ে তার ছবি দেখব না তার কথা শুনব না। তার প্রতি যে আমার ভালো লাগা সেটা থাকবে না । আর নিজেদের মধ্যে যদি কোন দ্বন্দ বা অভিযোগ থাকে সেটা সকল সংগঠন মিলে বসে সমাধান করা যায়। কিন্তু তা নিয়ে বাইরে যাওয়া, ফেসবুক ইউটিউবে সাক্ষাৎকার দিয়ে ত্রিশূল নিক্ষেপ করে কথা বলা এটা ঠিক না। তাতে করে সাধারণ দর্শকদের কাছে আমাদের মূল্যায়ণটা আর থাকছে না। আমাদের এই ঘরের বিষয় গুলো ঘরে বসেই সমাধান করা উচিত।

দর্শক তার প্রিয় তারকা সম্পর্কে সব কিছু জানতে চাইবে এটা দোষের কিছু নয়। সোস্যাল মিডিয়ার যোগে এখন সারা বিশ্বের তারকাই যেন হাতের মুঠোই। কিন্তু এক্ষেত্রে তারকাদের একটু সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত। এমন কিছু ব্যাক্তিগত ইস্যু যেন সামনে না আসে যা শিল্পীর তথা চলচ্চিত্রের উপর মানুষের কটু দৃষ্টি চলে আসে। সম্প্রতি শাকিব-বুবলী প্রসঙ্গ টেনে যদি বলি, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই প্রসঙ্গটা নিয়ে এতটাই চর্চা হচ্ছে যে বুঝাই যায় দেশীয় চলচ্চিত্র নিয়ে মানুষের চাহিদা আছে অনেক। আসলে এই ব্যাপারটা আমাদের চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা যদি বুঝেন তাইলেই হয়। শিল্পীদের ব্যাক্তিগত বিষয় গুলো প্রকাশে আসায় দর্শকদের এতটাই চাহিদা বেড়েছে যে, সিনেমা মুক্তি পেলেও ততটা আগ্রহ দেখা যায় না।শাকিব-বুবলীর প্রসঙ্গটি এতটাই ট্রেন্ডিংএ আছে যে গত শুক্রবার ‘ঈশা খাঁ’ নামে একটি নতুন সিনেমা মুক্তি পেয়েছে সেই খবর যেন অনেকটা ভাটা পড়ে গেছে।

চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সবারই ব্যক্তি স্বাধীনতা আছে। শিল্পী বলেই সে বিয়ে,প্রেম করতে পারবে না তা কিন্তু নয়। তবে একটা কথা মাথায় রাখতে হবে। শিল্পীরা কখনো তার একার নয় সে সবার। তাকে নিয়ে দর্শকদের আগ্রহ থাকবে এটাই স্বাভাবিক।এমন কিছু করবেন না যা আপনার ও আপনার শিল্পের ক্ষতির কারণ হয়। আপনাদের ব্যক্তিগত বিষয় গুলো সোস্যাল মিডিয়াতে আসলে তা নিয়ে দর্শক আগ্রহ দেখাবে এটাই স্বাভাবিক। আর তা নিয়ে সাধারণ দর্শক সোস্যাল মিডিয়ায় নেতিবাচক মন্তব্য করবে এর প্রভাব কিন্তু পড়বে চলচ্চিত্রে। একজন শিল্পী কখনোই সবার কাছে প্রিয় হতে পারেনা। তাই আপনাদের এই কাঁদা ছুড়াছুঁড়ি দর্শকদের দুইটি ভাগে বিভক্ত করে দিচ্ছে।তাতে করে দর্শক খরা সৃষ্টি হবে সিনেমা হলে। দর্শকদের কাছে প্রিয় হবার চেষ্টা করতে হবে। দর্শকদের আহ্বান করতে হবে সকল সিনেমা দেখার। শিল্পীদের কিন্তু দর্শক অনুকরণ করে। যা বর্তমানে অনেকটাই কমে গেছে। কারণ অনুকরণীয় শিল্পীর সংখ্যাই হাতে গুণা দু-একজন।তাই দর্শকদের ভালো কিছু দিতে অবশ্যই নিজেদের ব্যক্তিত্ব বজায় রাখতে হবে। ব্যক্তিগত জীবনেও শিল্পীদের সুখকর স্মৃতিগুলোই দর্শক দেখতে চায়। দর্শক চায় তার প্রিয় তারকারা পর্দায় যেমন প্রেম ভালোবাসায় জড়িয়ে থাকে, তেমনি বাস্তব জীবনটাও যেন হয়। দর্শকের কল্পনার স্বপ্নের নায়ক নায়িকা হয়েই থাকুন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ