মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা গোয়ার্তুমিমুক্ত করাটা ভীষন প্রয়োজন

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১২ জুন, ২০২২
সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী
আমাদের দেশে বর্তমানে চার ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থা বিরাজমান। বাংলা মাধ্যম, ইংরেজী মাধ্যম, আলিয়া মাদ্রাসা ব্যবস্থা এবং কওমি মাদ্রাসা ব্যবস্থা। এর বাইরে আরেকটা আছে হাফেজিয়া মাদ্রাসা। সময়ের বিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে কিংবা অর্থনৈতিক তাগিদে আমরা নিজেদের শিক্ষা ব্যবস্থা ঢেলে না সাজিয়ে যুগের-পর-যুগ গোয়ার্তুমি করছি। যার ফলশ্রুতিতে আর এক দশক পর সমাজে বর্তমানের তারতম্যের পরিধিটা বিস্তৃত হবে। সমাজের চালিকাশক্তি কিংবা নেতৃত্বের আসনে অধিষ্ঠিত হবে ইংরেজী মাধ্যমে পড়ুয়ারা। ধরুন এইমুহুর্তে দেশের কোনো বড় শিল্প প্রতিষ্ঠান কিংবা কর্পোরেট হাউজে চাকরীর পদ খালি হলো। বিশেষ করে শীর্ষ কোনো পদে। দেখা যাবে আবেদনকারী হাজার-হাজার। ওনাদের কেউকেউ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা বেসরকারী কোনো ইউনিভার্সিটি থেকে মাষ্টার্স করেছেন। একই সাথে আবেদন করলো অক্সফোর্ড, হার্ভার্ড, ক্যামব্রিজ কিংবা সিঙ্গাপুর-হংকংয়ের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রিধারীরা। এতোকাল আমরা জেনে এসেছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হলো “প্রাচ্যের অক্সফোর্ড”। কিন্তু বাস্তবতা কি? সিঙ্গাপুর, হংকং কিংবা চীনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গ্লোবাল র‌্যাঙ্কিং যেখানে ১০০ এর ভেতর সেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এমনকি বুয়েটের অবস্থান এক হাজারের নিচে। মানে, আমাদের দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর (সরকারী এবং বেসরকারী) অবস্থান ভীষন নাজুক। এক্ষেত্রে খুব স্বাভাবিভাবেই লোভনীয় চাকরীগুলো হাতিয়ে নেবে ইংরেজী মাধ্যমে পড়ুয়ারা। দেশীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গ্লোবাল র‌্যাঙ্কিং মন্দ থাকায় এই অবস্থা। পাশের দেশ ভারতের অবস্থাও তেমন ভালো নয়, যদিও ওদের ইউনিভার্সিটিগুলোর গ্লোবাল র‌্যাঙ্কিং ২০০ থেকে ৫০০ এর মধ্যে।
হোসেন মুহাম্মদ এরশাদের শাসনামলে ঢাকঢোল পিটিয়ে বলা হলো সর্বস্তরে বাংলা চালুর কথা। অর্থাৎ, তিনি শিক্ষার্থীদের ইংরেজী বিমুখ করলেন। বললেন, মাতৃভাষাই শিক্ষার ক্ষেত্রে প্রাধান্য পাবে। কিন্তু তিনি নিজে ওনার কোনো সন্তানকে বাংলা মাধ্যমে পড়তে পাঠাননি। বরং ওরা ইংরেজী মাধ্যমে পড়ে বিদেশে গিয়ে উচ্চতর ডিগ্রী নিয়ে এসেছে। আমাদের নেতানেত্রীদের যারাই বাংলা-বাংলা বলে হয়রান, ওনারাও নিজেদের সন্তানদের বাংলা মিডিয়ামে পড়ান না। তারমানে কি দাঁড়ালো?
বাংলাদেশেই ইংরেজী মাধ্যম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর শিক্ষার্থীরা যখন পশ্চিমা কারিকুলামে লেখাপড়া করে দাপটের সাথে বিদেশে স্কলারশিপ নিয়ে অহরহই যাচ্ছে উচ্চতর শিক্ষার জন্যে, তখন বাংলা মিডিয়াম, তথা এদেশীয় বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অবস্থা নাজুক থেকে নাজুকতর হচ্ছে।
আমাদের অর্থনীতির দুটো মূল খাত হচ্ছে রপ্তানী ও প্রবাসী শ্রমিক। আমি জানি, শ্রমিক শব্দ উচ্চারণ করায় অনেকেই বেজার হবেন। কিন্তু বাস্তবতা হলো বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশীদের প্রায় ৯৯ ভাগই শ্রমিকের কাজ করেন। এমনকি দেশীয় ইউনিভার্সিটি থেকে উচ্চতর ডিগ্রী নিয়েও। কারণ একটাই, ওনারা ইংরেজীতে কাঁচা কিংবা ইংরেজী ভাষা রীতিমত ভয় পান। এর পেছনে দায়ী হলো আমাদের শিক্ষা পদ্ধতি। ওই যে বললাম, সর্বস্তরে বাংলা-বাংলা করার ভুত।
এবার আসছি মাদ্রাসা শিক্ষা ব্যবস্থা প্রসঙ্গে। বিনয়ের সাথেই বলতে হচ্ছে, যারা মাদ্রাসায় পড়াশোনা করছেন, বিশেষ করে কওমী কিংবা হাফেজিয়া মাদ্রাসায়, ওনাদের জন্যে দেশেই তো কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা প্রায় নেই। আর বিদেশে তো প্রশ্নই ওঠেনা। মাদ্রাসায় যারা পড়ছেন, ওনাদের স্বপ্ন হলো মাদ্রাসায় শিক্ষকতা কিংবা মসজিদে ইমাম-মুয়াজ্জিন হওয়া। ঠিক আছে, মসজিদে ইমাম-মুয়াজ্জিন হওয়াটাও সম্মানজনক। কিন্তু আমরা কি এবারও ভেবে দেখেছি ১৯৮৬ সালে যেখানে গোটা সোভিয়েত ইউনিয়নে মসজিদের সংখ্যা ছিল মাত্র ৭৮ সেখানে আজ শুধু মস্কো শহরেই মসজিদের সংখ্যাটা শতশত। ইউরোপ-আমেরিকায় প্রতি বছর মসজিদের সংখ্যা বাড়ছে। ওগুলোয় ইমাম-মুয়াজ্জিন চাকরী পাচ্ছেন মূলতঃ পাকিস্তানীরা। কারণ, ওনারা আরবীর পাশাপাশি ইংরেজী কিংবা আন্তর্জাতিক কোনো একটা ভাষা শেখেন। আমরাও তো পারি এটা করতে। এমনটা হলে বাংলাদেশ থেকেই কমপক্ষে ১৫-২০ হাজার মাদ্রাসায় পড়া শিক্ষার্থীরা ওনাদের শিক্ষা জীবন শেষে বিদেশে চাকরী নিতে সক্ষম হবেন। পাশাপাশি মাদ্রাসাগুলোয় যদি আধুনিক কারিগরী শিক্ষা, কম্পিউটার এবং আইটি বিষয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা যায়, তাহলে মাদ্রাসায় লেখাপড়া করাদের প্রায় সবাই পরিণত হবেন সুদক্ষ জনশক্তিতে। এটা করা কি খুবই কষ্টকর?
আমরা এখন ক্রমশ অর্থনৈতিক উন্নতির দিকে ধাবিত হচ্ছি। এবার আমাদের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে শিক্ষা ব্যবস্থায়। কারণ, জাতি সুশিক্ষিত না হলে আমাদের জিডিপির অগ্রগতি এই জায়গায় গিয়ে থেমে যাবে। একারণেই, সর্বস্তরে বাংলা টাইপের গোয়ার্তুমি ভাবনা ছুঁড়ে ফেলে আমাদের দেশীয় শিক্ষায়তন, বিশেষ করে পাবলিক (সরকারী) স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় ইংরেজীসহ আরো কয়েকটা বিদেশী ভাষার ওপর চূড়ান্ত গুরুত্ব দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, বাঙ্গালী মায়ের গর্ভ থেকে বেড়িয়ে এসেই বাংলা শিখতে শুরু করে। কিন্তু ইংরেজী ওরা শেখে শিক্ষায়তনে। তাই ওদের মগজে অহেতুক ইংরেজী আতঙ্ক কিংবা ইংরেজী শেখার ক্ষেত্রে উদাসীনতা বা উন্নাসিকতা সৃষ্টি করাটা অপরাধ। স্বাধীন বাংলাদেশে কৃত্রিম পদ্ধতিতে আবারও দুটো শ্রেণী সৃষ্টির চেষ্টা করাটা অন্যায়। আমরা শিক্ষিত প্রজন্ম চাই। ইংরেজী আর বাংলা মাধ্যমের নামে দুভাগে বিভক্ত সমাজ নয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ