সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৪৩ অপরাহ্ন
Uncategorized

নাটকে অশ্লীলতা, হুমকির মুখে দেশীয় সংস্কৃতি

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২

রিয়েল তন্ময়

সুস্থ ধারার বিনোদন চর্চা বলতেই বাংলা নাটকের কথাই আগে আসে। একটা সময় পারিবারিক বিনোদনের একমাত্র মাধ্যম ছিল টেলিভিশন নাটক। টেলিভিশনকে বলা হয় ড্রয়িং রুম মিডিয়া। এখানে পরিবারের সকলে একসঙ্গে বসে টিভি দেখেন। কিন্তু সময়ের পরিক্রমায় ও প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনে এটি এখন ড্রয়িং রুমে সীমাবদ্ধ নেই। ইউটিউবসহ বিভিন্ন অ্যাপে এখন নাটক দেখছে দর্শকরা। সেসময় ছিল না ইন্টারনেট ও ইউটিউবের আধিপত্য। সময়ের সঙ্গে আধুনিকতা আমাদের মধ্যে এসেছে। তাই বলে অশ্লীলতাকে নিজেদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া যাবে না। আজও দর্শক হৃদয়ে রাজত্ব করছে সকাল সন্ধ্যা, এইসব দিনরাত্রি, বহুব্রীহি, সংশপ্তক,অয়োময়, কোন কাননের ফুল, কোথাও কেউ নেই, রুপনগর, নক্ষত্রের রাত,আজ রবিবার, রঙ্গের মানুষ, উড়ে যায় বকপক্ষী, নুরুল হুদা একদা ভালবেসেছিল, কাছের মানুষ, ভবের হাট, রমিজের আয়না, সাকিন সারিসুরি, হাড় কিপ্টে,আলতা সুন্দরীসহ আরও অনেক শিক্ষণীয় ও মার্জিত নাটকগুলো।

কিন্তু বর্তমানে আমরা ইউটিউব কেন্দ্রিক হয়ে পড়ছি। এখন আর অপেক্ষার প্রহর গুণতে হচ্ছে না টেলিভিশন সেটের সামনে। নাটক এখন একইসঙ্গে টিভি ও ইউটিউব দু’মাধ্যমের জন্য নির্মাণ হচ্ছে। ফলে নাটক নির্মাণের সংখ্যা বেড়েছে। ইউটিউব ভিউজের পিছনে ছুটতে গিয়ে নাটকে বাড়ছে অশ্লীলতা। অশ্লীল সংলাপ, পোশাক ও বিভিন্ন ধরনের সুড়সুড়ি দৃশ্য দিয়ে দর্শককে আকৃষ্ট করার প্রতিযোগিতা চলছে এই সময়ের অনেক নাট্য নির্মাতার মধ্যে। দেশীয় নাটকের কুরুচিপূর্ণ নাম, অশ্লীল দৃশ্য ও সংলাপ এখন যেন ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে! গল্প ও শিল্পীদের চরিত্রের চেয়ে এসব নির্মাতার টার্গেট এখন ইউটিউব ভিউয়ার্স। ভিউয়ার্স বাড়ানোর প্রতিযোগিতায় মেতে তারা যা-তা নির্মাণ করছে বলেই নাট্যবোদ্ধা এবং অনেক দর্শকের অভিমত। সাম্প্রতিক কিছু নাটকের নাম শুনলেই চোখ কপালে উঠবার মত অবস্থা! এসব নামের মধ্যে রয়েছে- ‘এক্স গার্লফ্রেন্ড’,এক্স যখন শালি, এক্স এখন ভাবি, শালী যখন বউ, এক্স এর হাতে অপারেশন, ক্রাশ যখন বেয়াইন, গার্লফ্রেন্ড শুধু খেতে চায়, জামাই আদর, আমি সিঙ্গেল, আইটেম বয়, পেইনফুল গার্লফ্রেন্ড, ছাত্রী যখন বউ, এক্স ওয়াইফ যখন আপন শাশুড়ি, গার্লফ্রেন্ড যখন অজ্ঞ্যান, বান্ধবী যখন শাশুড়ি, বেশরম ,প্লেবয়, ফাউ গার্ল,গার্লফ্রেন্ডের চাপ,বাবু খাইছো, বউ তো নয় যেন সিসি ক্যামেরা, বেড সিন, সেন্ড মি নুডস প্রভৃতি। নাটকগুলোর এমন নাম শুনে রীতিমতো বিস্ময় ও বিরক্তি প্রকাশ করেছেন নাট্যজনেরা। এ সময়ের কয়েকজন পরিচালকও এ ধরনের নামের বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। অনেকে নাটকের এমন উদ্ভট ও অরুচিকর নামকরণকে পরিচালকদের সৃজনশীলতা ও শিক্ষার অভাবকে দায়ী করছেন। এ ছাড়া অনেক জনপ্রিয় তারকার নাটকেও দেখা যায় অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি।

সম্প্রতি ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ নামে একটি নাটকের কয়েকটি পর্ব নিয়ে সোস্যাল মিডিয়ায় তুমুল সমালোচনা লক্ষনীয়। বিতর্কের তোপে পড়ে কর্তৃপক্ষ ইউটিউব থেকে সড়াতে বাধ্য হয় সেই নাটকের চার পর্ব। দর্শকদের চাহিদা ও রুচির প্রতি শ্রদ্ধা সম্মান রেখে পরবর্তীতে দর্শকদের চাহিদা অনুযায়ী নাটক উপহার দিবেন বলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানিয়ে দেয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তাতেই কি সমাধান?

বর্তমানে টিভি নাটকের চেয়ে ইউটিউবের জন্য যেসব নাটক নির্মাণ হচ্ছে সেগুলোতেই অশ্লীলতা বেশি দেখা যায়। টেলিভিশনেই দর্শকরা একটা সময় নাটক উপভোগ করতেন। সময়ের পরিক্রমায় টিভি থেকে নাটক চলে আসে ইউটিউবে। এখন অনেক নির্মাতা টেলিভিশনকে উপেক্ষা করে শুধু ইউটিউবের জন্যই নাটক নির্মাণ করছেন। ইউটিউব মুক্তবাজার। যে কারো স্বাধীনতা আছে এটির জন্য নির্মাণ করার। ইউটিউবে নেই কোনো সেন্সরবোর্ড। ফলে নতুন নির্মাতারা এই সুযোগটা ব্যবহার করছেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানান। শুধু অভিনয় ও নির্মাণ করলেই চলবে না। শিল্পী ও নির্মাতাদেরও সমাজ এবং দেশের প্রতি দায়বদ্ধতা আছে বলে মনে করছেন নাট্যবোদ্ধারা। সমাজ ও তরুণদের মধ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে এই ধরনের নাটকে অভিনয় থেকে শিল্পীদের দূরে থাকা উচিত। নির্মাতাদেরও ভালো নাটক নির্মাণের জন্য এগিয়ে আসতে হবে বলেই মনে করছেন সুশীল সমাজ।

তরুণ নির্মাতাদের মধ্যে এখন ভিউয়ের প্রতিযোগিতা চলছে। ভিউয়ের দিক থেকে তাকে এগিয়ে থাকতে হবে এই মানসিকতা থেকে নির্মাতাদের বের হয়ে আসতে হবে। তাহলে নাটকে স্থিতিশীলতা আসবে। দর্শকরা এডাল্ট কন্টেন্ট খায় এমন ভাবনা থেকে বের হয়ে আসতে হবে। দর্শকরা এখন হয়তো খাচ্ছে। কিন্তু একটা সময় এসব আর মেনে নিবে না। তখন কি হবে? ভালো কন্টেন্টে ভিউ কম হলেও তৃপ্তি থাকে একজন নির্মাতার। গড্ডালিকার প্রবাহে গা ভাসিয়ে নিজেদের ক্ষতির পাশাপাশি বাংলা নাটকের ক্ষতিটা করছেন নাতো?

ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্টের কর্ণধার সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী বলেন, নাটক হচ্ছে সুস্থ বিনোদনের একটা শক্তিশালী মাধ্যম। আমরা এটাকে নিজেদের খায়েসের বশে কিংবা অতি মুনাফার লোভে এডাল্ট কনটেন্ট-এর তকমা জুড়ে দিতে পারিনা। যে নির্মাতারা ওনাদের নাটকে এডাল্ট কনটেন্ট বলছেন, ওনাদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেয়া উচিত। এনিয়ে বিবেকসম্পন্ন মানুষেদের প্রতিবাদী হয়ে উঠা দরকার বলেই আমি মনে করছি। কথাগুলো আমি বলছি দেশের অন্যতম শীর্ষ প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি হিসেবে। আমরা নাটক নির্মাণ করি মানুষকে সুস্থ বিনোদন দেয়ার প্রত্যাশায়। পরিবারের সদস্যদের, বিশেষ করে শিশুদের গালাগাল শেখাতে নয়। যারা নাটকের নামে স্বঘোষিত এডাল্ট কনটেন্ট নির্মাণ করে সমাজে অসুস্থতার বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে, এদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনী ব্যবস্থা নেয়ার দাবী জানাচ্ছি।

নাটকে অশ্লীল সংলাপ দিয়ে ভাইরাল হয়ে যাওয়া শিল্পীদের প্রসঙ্গ টেনে নাট্যনির্মাতা আকাশ রঞ্জন বলেন, যে নাটক করার পরে মা বাবার পরিচয় নিয়ে প্রশ্ন উঠে এর থেকে বড় লজ্জা আর কি হতে পারে। সিনেমায় অশ্লিলতা ঢুকেছিল ডাইরেক্ট আর এখন নাটকে ঢুকে গেছে মুখে। এসব বলে লাভ নাই তবুও বলছি যারা অশ্লীল সংলাপ দিয়ে ভাইরাল অভিনেতা তাদের কখনো আমার নাটকে নিবো না।

একটি শব্দ কোথায় কীভাবে উপস্থাপন হবে সেটি পরিবেশ বলে দেয়। সঠিক ক্ষেত্রে সঠিক ভাষা প্রয়োগ করা প্রয়োজন। শুধু শুধু অন্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য কিছু বলার মধ্যে সাহসিকতার কিছু নেই। নাটক আমাদের সমাজের কথা বলে। এখানে সমাজের অনেক কিছু তুলে ধরার সুযোগ আছে। তবে সেটির উপস্থাপনায় অবশ্যই শৈল্পিক ব্যাপারটা থাকতে হবে। সমাজের কথা বলতে গিয়ে নিজের খেয়াল-খুশিমতো কিছু করার কোনো মানে হয় না। সুস্থ উপস্থাপনার মধ্য দিয়ে নাটকে সমাজের অনেক অসঙ্গতি নির্মাতারা দর্শকের সামনে নিয়ে আসতে পারেন। এই সময়ে আমাদের নাটকের মান কমে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে সংশ্লিষ্ট একদিন সবাইকে কাজ ছাড়া থাকতে হবে। নাটক সংশ্লিষ্ট অনেকের অভিমত, প্রতিযোগিতার নামে কোনো কোনো নির্মাতা কিংবা অভিনয়শিল্পী অকারণে এত বেশি খোলামেলা হচ্ছে তা চোখে লাগার মতো। সময়ের কিছু খারাপ দৃষ্টান্ত স্থাপন করছে তারা। এগুলো থেকে বের হয়ে আসতে না পারলে দর্শক ভিনদেশের সংস্কৃতির দিকেই ঝুঁকে পড়বে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ