মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৩১ অপরাহ্ন

ঈদের মুক্তি প্রতীক্ষিত সিনেমা নিয়ে হরেক প্রশ্ন

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২২ মার্চ, ২০২৪
জমজমাট প্রতিবেদক
বাংলা চলচ্চিত্রের আলোচিত প্রযোজক আরশাদ আদনান প্রযোজিত ব্যয়বহুল সিনেমা ‘রাজকুমার’। সব ঠিকঠাক থাকলে এই ঈদে “মহাসমারোহে’ মুক্তির জন্য জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন প্রযোজক। এ নিয়ে বিস্তারিত জানানো হয় এক আয়োজনে। সেখানে উঠে আসে সিনেমাটি বিদেশে শ্যুটিংয়েই নাকি খরচ হয়েছে বিপুল অংকের অর্থ। যদিও এই অর্থ বিদেশে পাঠানোর ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমতি নেয়া হয়েছে কিনা এটা স্পষ্ট নয়। দেশে যখন বিদেশী মুদ্রার সংকট চলছে তখন এভাবে কোটিকোটি টাকা খরচ করে বিদেশে শ্যুটিং করার বিষয় নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন। কেউকেউ বলছেন, যদি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনুমোদন ছাড়া বিদেশে টাকা পাঠানো হয়ে থাকে তাহলে এটা মানি লন্ডারিং আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। যদিও এসব কথা প্রকাশ্যে বলছেন না কেউই। কারণ, গতবছর মোহাম্মদ সাহাবউদ্দিন রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তাঁর সন্তান চলচ্চিত্র ও নাটক সেক্টরের অনেক বিষয়েই যুক্ত হচ্ছেন।
এর আগে, মোহাম্মদ সাহাবউদ্দিন দুর্নীতি দমন কমিশনে যোগ দিলে আরশাদ আদনান ঢাকার নিকেতন এলাকায় একটা মিডিয়া অফিস খুলে বসেন এবং বেশ কিছু নাটক ও চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেন। এরপর তিনি নাটক সেক্টরের একটি সংগঠনের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিপুল ভোটে পরাজিত হওয়ার পর নিরবেই তাঁর নিকেতনের অফিস বন্ধ করে দেন।
প্রেসিডেন্ট পুত্রের ‘রাজকুমার’ সিনেমাটি ঘিরে আরশাদ আদনান দারুন প্রত্যাশার ব্যক্ত করলেও ফিল্ম পাড়ায় ঘুরে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। একাধিক প্রদর্শক ও বুকিং এজেন্টের অনাগ্রহী কিংবা নিরাশভঙ্গিমায় স্পষ্ট হয়েছে তাদেরকে ‘রাজকুমার’ চালাতে নানাভাবে বাধ্য করা হচ্ছে। কিন্তু এরপরও সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চাপ দিয়ে হয়তো হলে সিনেমা তোলা সম্ভব কিন্তু এর সাফল্য সম্পূর্ণভাবেই দর্শকদের ওপর নির্ভরশীল। এক্ষেত্রে রাজকুমার ছবিটি ভালো ব্যবসা করতে পারবেনা বলে অনেকেই আশঙ্কা করছেন। কারণ সিনেমাটির মেরিট দুর্বল, গল্প গড়পড়তা, নির্মাণ শৈলীও গতানুগতিক। গণমাধ্যমে সিনেমাটির প্রযোজক ক্রমাগত ফাঁকা আওয়াজ করলেও এখন অব্দি এই সিনেমার ব্যাপারে কারো মাঝেই তেমন আগ্রহ সৃষ্টি হয়নি।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সূত্র মতে রাজকুমার ছবিটি মুক্তি ঘিরে বিভিন্ন জেলা-উপজেলার প্রশাসনকেও অলিখিত নির্দেশনা দেওয়া হবে, যাতে হলগুলোকে এই সিনেমা চালাতে বাধ্য করা হয়। এ অবস্থায় একাধিক প্রদর্শক ঈদে যখন একাধিক ভালো সিনেমা প্রদর্শনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে ঠিক তখনই ‘রাজকুমার’ চালানোর জন্য চাপতাপের মতো অভিযোগ নানা সমালোচনার জন্ম দিচ্ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে আরো দশটি সিনেমা ঈদে মুক্তির জন্য প্রস্তুতি নিলেও ‘রাজকুমার’র রক্তচক্ষু উপেক্ষা করার সাহসও হল মালিকরা দেখাতে পারছেন না। চাপ মেনেই যদি সিনেমাটি চালাতে হয় সেক্ষেত্রে টানা পাঁচ মাসের অর্থনৈতিক ধাক্কায় পড়তে হবে তাদের। তাদের অভিযোগ এ অবস্থা থেকে পরিত্রানের জন্য হল মালিক সমিতিকেও তারা পাশে পাচ্ছেন না।
এখানে উল্লেখ্য, সম্প্রতি ডিরেক্টরস গিল্ড এর বিদ্যমান সংকট নিয়ে মহামান্য রাষ্ট্রপতির ছেলে যেভাবে প্রকাশ্যে বারবার তাঁর বাবাকে উদ্বৃত করছিলেন এবং প্রকাশ্যেই বললেন কিভাবে তিনি একজন মন্ত্রীকে নিষেধ করেছেন গিল্ডের বনভোজনে অংশ না নিতে তা রীতিমত দৃষ্টিকটু লেগেছে। একইভাবে ৭ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে তিনি পাবনায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ঘোষণা দেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে তিনি নির্বাচনে লড়বেন এবং তার বাবা নাকি তাকে এলাকার জন্যে বলি দিয়েছেন। পরবর্তীতে অবশ্য তিনি মনোয়ন পাননি। কিন্তু তাকে দিয়ে এ ধরনের বক্তব্য কে বা কারা দেয়ালো এবং এর পেছনে ক্ষমতাসীন দলসহ খোদ রাষ্ট্রপতিকে বিব্রত করার কোনো ষড়যন্ত্র ছিলো কিনা এটা অবশ্য কেউই খতিয়ে দেখেননি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ