রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৯:১৫ অপরাহ্ন

এক প্রযোজক নির্ভরতা থেকে বের হয়ে আসতে হবে আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পকে

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৮ মে, ২০২৪
সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী 
বর্তমান বিশ্বে ব্যবসা কিংবা শিল্পকারখানা একক বিনিয়োগকারী নির্ভরতা থেকে বের হয়ে আসছে। বিশ্বের সব দেশেই বর্তমানে বড় শিল্পকারখানা প্রতিষ্ঠায় এমনকি বড় ধরনের ব্যবসার ক্ষেত্রে একাধিক বিনিয়োগকারীকে জোট বাঁধতে দেখা যায় হরহামেশা। এর ফলে সংশ্লিষ্ট বিনিয়োগে রিস্ক ফ্যাক্টর কমে যায় এবং কোনো কারণে প্রকল্পটি ব্যর্থ হলেও আবার একই জোট পরবর্তী প্রকল্পের মাধ্যমে আগের লোকশান পুষিয়ে শেষতক সাফল্যের পথ দেখেন।
মাত্র দুই যুগ আগেও আমাদের চলচ্চিত্র সেক্টর শিল্প হিসেবে স্বীকৃতি পায়নি। যদিও এখন এটা শিল্প হিসেবে স্বীকৃত হওয়া সত্বেও অন্য যেকোনো শিল্পের ক্ষেত্রে বিরাজমান সুযোগ-সুবিধা, যেমন ব্যাংক ঋণ, পুঁজিবাজারে অন্তর্ভুক্তি কিংবা বাজারে বন্ড ছেড়ে বড় অংকের অর্থ সংগ্রহ, এর কোনোটাই চলচ্চিত্র শিল্পের জন্যে এখনও উন্মুক্ত করা হয়নি। ব্যাংকগুলো মূলত বিনিয়োগ করে ব্যবসা কিংবা কলকারখানায়। এক্ষেত্রে চলচ্চিত্রকে এরা কখনোই গুরুত্ব তো দেয়ই না, বরং অনেক ক্ষেত্রেই চলচ্চিত্রকে ওরা ধরে নেয় টাকা-পয়সা ওয়ালা লোকদের নেহায়েত সময় কাটানোর মাধ্যম হিসেবে। অথচ এই সেক্টরে ওপর নির্ভরশীল হাজার-হাজার মানুষের জীবিকা।
সাম্প্রতিক সময়ে ইউরোপ-আমেরিকার ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিগুলো চলচ্চিত্র নির্মাণের ক্ষেত্রে একক প্রযোজকের ওপর নির্ভর না কয়ে একাধিক প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানকে একত্রিত করা সম্মিলিত বিনিয়োগের পদ্ধতি শুরু করেছে। এরফলে, নির্মিত চলচ্চিত্রের সংখ্যা বাড়ছে। অন্যদিকে এই সেক্টরে বিনিয়োগে অন্যদের আগ্রহ সৃষ্টি হচ্ছে। আমাদের চলচ্চিত্র শিল্পকেও এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। ধরে নিই একটা সিনেমা বানাতে এক কিংবা দেড় কোটি টাকা দরকার। এই টাকাটাই যদি একজনের বদলে দশজন প্রযোজক মিলে যোগান দেন সেক্ষেত্রে সঙ্গত কারণেই প্রযোজকের সংখ্যা বাড়বে – বেড়ে যাবে নির্মিত চলচ্চিত্রের সংখ্যা।
আরেকটা বিষয়ও খুবই জরুরি। বর্তমানে সারা বিশ্বে বাংলা ভাষাভাষীর সংখ্যা পঁয়ত্রিশ কোটির বেশি। বাংলা বর্তমানে বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম ভাষা। তারমানে, বাংলা চলচ্চিত্রের বাজারটা অনেক বিশাল, যদি আমরা সিনেমাহল আর সিনেপ্লেক্স কেন্দ্রিক চলচ্চিত্র নির্মাণের বদলে আন্তর্জাতিক ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোয় বাংলাদেশে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলো তুলতে পারি। এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক ওটিটি প্ল্যাটফর্ম, যেমন নেটফ্লিক্স এ যদি বাংলাদেশে নির্মিত সিনেমা তুলতে চাই তাহলে সরকারের সহযোগিতা লাগবে। বর্তমান তথ্য প্রতিমন্ত্রী আরাফাত এ রহমানের সাথে চলচ্চিত্র শিল্পের নেতারা দেখা করে এবিষয়ে ওনার সহযোগিতা চাইলে তিনি নিশ্চয়ই রাজি হবেন। আর এটা হলে, তিনিই আমেরিকায় আমাদের কুটনৈতিক মিশনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেবেন নেটফ্লিক্স-এর সাথে কথা বলে সেখানে বাংলাদেশে নির্মিত চলচ্চিত্র ওঠানোর ব্যবস্থা করতে। কাজটা একেবারেই সহজ। শুধুমাত্র আমাদের চলচ্চিত্র শিল্প সংশ্লিষ্ট প্রযোজক, নির্মাতা ও শিল্পীদের এক্ষেত্রে একাট্টা হয়ে মন্ত্রীর কাছে এটা উপস্থাপন করতে হবে।
নেটফ্লিক্সসহ আন্তর্জাতিক ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলোয় বাংলাদেশে নির্মিত চলচ্চিত্র তোলার ব্যবস্থা করার পাশাপাশি একক প্রযোজকের বদলে একাধিক প্রযোজকের বিনিয়োগে চলচ্চিত্র নির্মাণের পদ্ধতি চালু হলে ঘুরে দাঁড়াবে আমাদের চলচ্চিত্র শিল্প।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ