বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৭:০৭ অপরাহ্ন
Uncategorized

নাটক ‘বিজয়া’ এবং প্রাসঙ্গিক কিছু কথা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২০

অনিরুদ্ধ রায়: শরতের স্নিগ্ধ প্রকৃতি–শ্রাবণ বিধৌত শ্যামল বনানীর পবিত্র হাসি। ছন্দময় দোলানো শুভ্র কাশফুল। নীলম্বরে সাদামেঘের আল্পনা, শিউলী ঝরা প্রভাত-প্রকৃতি যেন সেজেছে অসুর বিনাশী দেবী দুর্গাকে বরণ করতে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় পার্বণ এই দুর্গা পুজা। আবহামানকাল ধরে এ বাংলায় শারোদীয় দুর্গা উৎসবে মেতে উঠে বাঙালী-সনাতন ধর্মাবলম্বীরা অহর্নিশ প্রার্থনা করেন- একটা শান্ত, নির্মল, অসুর মুক্ত, মায়াময় পৃথিবীর।

এক সময় ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের বাইরেও অনেক আনন্দের বন্যা বইতো। জারি, সারি, পুঁথি পাঠ, কবি গানের আসর বসতো। এভাবেই পূজার আনন্দে বহুমাত্রা যোগ হতো। কালের বির্বতনে সে সব নান্দনিক সংস্কৃতির হয়তো দেখা মেলে না এখন- কিন্তু মিডিয়ার কল্যাণে মানুষ ঘরে বসে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিনোদন উপভোগ করে থাকে।

প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেওয়া হয় বড় বাজটের ছবি। পত্র-পত্রিকা গুলো প্রকাশ করে বিশেষ ক্রোড়পত্র। টিভি চ্যানেল গুলো প্রচার করে বিভিন্ন নাটক, টেলিফিল্ম ও ছায়াছবি। তারই ধারাবাহিকতায় ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট দূর্গোৎসবের আনন্দকে আরও আনন্দময় করে তুলতে বিভিন্ন অনুষ্ঠান তৈরি শুরু করেছে।

অথচ সম্প্রতি ‘বিজয়া’ নামের একটি নির্মাণধীন নাটক নিয়ে দুভাগ্যজনক নাটকীয়তা শুরু হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। যে নাটকটি এখনও আলোর মুখ দেখলো না, প্রচার হলো না-সে নাটক নিয়ে যে সব উস্কানিমূলক শিষ্টাচার বির্বজিত মন্তব্য করা হচ্ছে- তাতে সভ্য এবং প্রগতিশীল সমাজকে ভাবিয়ে তুলেছে।

যে শিশুটি মাতৃগর্ভে-এখনও ভৃমিষ্ঠই হলো না- সে শিশুর আচার কিংবা আকৃতি নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ থাকে না। এ কথা সবারই জানা উচিত যে একটি অনুষ্ঠান নির্মাণ করলেই তা চ্যানেলগুলোতে সরাসরি প্রচার করে না। বেশ কিছু অনুষ্ঠানিকতার সিড়ি পার হতে হয়। বিষয় বস্তু লিখিত ভাবে জানাতে হয়। তারপর প্রিভিউ কমিটির বিজ্ঞজনরা গভীর মনোযোগ দিয়ে অনুষ্ঠানটি দেখে থাকেন। কোথাও কোন অসংগতি, অশালীন বাক্য কিংবা বাক্যে কোন শব্দের অসংযত প্রয়োগ ঘটে অথবা রাষ্ট্র, সমাজ, কোন গোষ্ঠীর, মহল, ব্যক্তি অথবা ধর্মের প্রত্যেক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে কটাক্ষ করা হয়েছে বলে অনুমিত হয় তবে তাৎক্ষিণক সেই অনুষ্ঠানটি প্রচারের অনুপোযুক্ত বলে বিবেচিত হয়। এটাই নিয়ম।

অথচ কোন এক গুজবে কান দিয়ে একটি বিশেষ মহল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘বিজয়া’ নামক নাটকটি নিয়ে অশ্লীল মন্তব্য করেই যাচ্ছে যা আবহমানকাল ধরে সাম্প্রদায়িক কুপমুন্ডকতা উর্দ্ধে থাকা অসম্প্রদায়িক বাঙালী জাতিসত্তার অহংবোধের উপর চরম আঘাত বলে মনে হয়। এমন অবস্থায় খাপটি মেরে থাকা সুযোগ সন্ধানী শিখন্ডীদের অসৎ উদ্দেশ্য হাসিলের পথকে সুগম করবে বই আর কিছু নয়।

আমাদের মহান নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সারা জীবন অসম্প্রদায়িক রাষ্ট্র ব্যবস্থার জন্য জীবন উৎসর্গ করেছেন। আজ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত আছেন সেই মহান নেতার পবিত্র রক্তের উত্তরাধিকার, মানবতার জননী জননেত্রী শেখ হাসিনা। অন্ততঃ তাঁরই শাসন আমলে কেউ ইচ্ছে করলেই রাষ্ট্র, সমাজ, সম্প্রদায় কিংবা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে কোন কিছুর করার সাহস থাকার কথা নয়। কাজেই যে নাটকটি প্রচারই হলো না, দেখা হলো না, জানা হলো না- সে নাটক নিয়ে মহল বিশেষের এমন নাটকীয়তা অসৎ উদ্দেশ্য প্রনোদিত বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞজনরা।

লেখক, সাংবাদিক।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ