বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

বলিউডের সবুজ নয়না ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০

যে চোখে থেমে যায় গোটা পৃথিবী, পলক পড়লেই দিন হয়ে যায় রাত এমন মোহনীয় চোখের অধিকারী পৃথিবীতে হাতে গোনা কয়েকজন। তাদের মধ্যেই একজন হলেন বলিউডের ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। ঐশ্বরিয়ার চোখের আকর্ষণীয় চাহনি, চোখের সবুজাভ রংয়ে ভিন্নতা, এবং চোখের ভাষায় কোটি ভক্তের জীবন আটকে গেছে। এই চোখ জোড়া একবার নয়, বহুবার সিনেমা দর্শকদের মন কেড়েছে। সাবেক বিশ্বসুন্দরী ঐশ্বরিয়ার আজ ৪৭তম জন্মদিন। ‘বয়স শুধুই একটি সংখ্যা’ এই প্রবাদ যে কয়জন সুন্দরীর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য তাদের মধ্য অন্যতম একটি নাম ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। বলিউডের এই জনপ্রিয় এবং আলোচিত অভিনেত্রী গত কয়েক বছর ধরে তার জন্মদিনে সপরিবার ছুটি কাটান দেশের বাইরে। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার সেটি হয়নি। ১৯৭৩ সালের ১লা নভেম্বর ভারতের কর্ণাকট রাজ্যের মাঙ্গোলোরে জন্ম ঐশ্বরিয়া রাইয়ের। বলিউডে যিনি আ্যাশ নামেই পরিচিত। বাবার নাম কৃষ্ণ রাজ রাই এবং মায়ের নাম ব্রিন্দা রাই। দুই ভাই বোনের মধ্যে আ্যাশ ছোট। একমাত্র বড় ভাই আদিত্য রাই ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে মার্চেন্ট নেভিতে কর্মরত আছেন। ছোটবেলায় ঐশ্বরিয়ার বাবা-মা চলে আসেন মুম্বাই শহরে। ছোটবেলা থেকেই পড়ালেখায় বেশ মনোযোগী ছিলেন সাবেক এই বিশ্বসুন্দরী। বিশেষ করে গণিতে তাঁর পান্ডিত্য ছিল চোখে পড়ার মতো। ছোটবেলায় স্থপতি হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন তিনি। সেই লক্ষ্যেই আগাচ্ছিলেন সামনের দিকে। কিন্তু কলেজের গণ্ডি পেরোনোর সৌভাগ্য তাঁর হয়নি। স্থপতি হওয়ার স্বপ্ন পূরণ করতে রচনা সান্সাদ একাডেমি অফ আর্কিটেকচারে ভর্তি হলেও মডেলিং এর জন্য পড়াশোনার ইতি টানেন।

কলেজে পড়াকালীন সময়ে মডেলিং ও সিনেমায় কাজের অফার পান। তাই পড়ালেখা ছেড়ে মিডিয়ায় কাজ করতে দুইবার ভাবতে হয়নি তাঁকে। কিশোরী বয়সে টানা পাঁচ বছর ধরে শাস্ত্রীয় নৃত্য এবং সংগীত চর্চা করতেন ঐশ্বরিয়া। তবে ক্যামেরার সামনে ঐশ্বরিয়া দাঁড়িয়েছেন নবম শ্রেণিতে পড়াকালীন সময়ে। এরপর ১৯৯৩ সালে আমির খানের সাথে পেপসির বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে লাইমলাইটে আসেন। এরপর ১৯৯৪ সালে মিস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন এবং ‘মিস ইন্ডিয়া ওয়ার্ল্ড’-এর মুকুট অর্জন করেন, যার ফলে তিনি বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতায় ভারতকে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পান। সৌন্দর্য এবং বুদ্ধিমত্তায় সবাইকে ছাড়িয়ে তিনি অর্জন করেন বিশ্বসুন্দরীর খেতাব।

‘বিশ্বসুন্দরী’ তকমা নিয়েই শুরু হয় তাঁর ‘বলিউডের রানী’ হওয়ার যাত্রা। ঐশ্বরিয়ার সিনেমার ক্যারিয়ার শুরু হয় ১৯৯৭ সালে মনি রত্নানের তামিল সিনেমা ‘ইরুভার’র মধ্য দিয়ে। একই বছরে তিনি তার ক্যারিয়ারে প্রথম বলিউড সিনেমা ‘অর পেয়ার হো গায়া’তে ববি দেওলের বিপরীতে অভিনয় করেন। ১৯৯৮ সালে আবারও তামিল সিনেমা ‘জিন্স’-এ দেখা যায় ঐশ্বরিয়াকে। দক্ষিণী এই সিনেমাটিও তাকে যথেষ্ট খ্যাতি এনে দিয়েছিল। বলিউডে ঐশ্বরিয়ার প্রথম সফল সিনেমা ছিল ১৯৯৯ সালে সঞ্জয় লীলা বনশালীর পরিচালনায় সালমান খান ও অজয় দেবগন এর বিপরীতে ‘হাম দিল দে চুকে সানাম’। দ্বিতীয় সাফল্য আসে একই বছর সুভাষ ঘাইয়ের ‘তাল’ সিনেমায় অভিনয়ের মাধ্যমে। এই সিনেমাতে তিনি অক্ষয় খান্না ও অনিল কাপুরের সাথে অভিনয় করেছিলেন। প্রতিটি সিনেমাতেই তিনি তার সৌন্দর্য, অভিনয় ও নাচের দক্ষতা দিয়ে সকলের মন জয় করেছেন।

২০০০ সালে প্রথমবারের মতো তিনি শাহরুখ খানের বিপরীতে অভিনয় করেন ‘জোশ’ সিনেমায়। এই সিনেমায় তাদের ভাই-বোনের চরিত্র নিয়ে সকলের মিশ্র অভিব্যক্তি থাকলেও সিনেমাটি ব ক্স অফিসে ব্যবসা সফল ছিল। ২০০২ সালে তিনি আবারো শাহরুখ খানের সাথে সঞ্জয় লীলা বানসালির ড্রিমপ্রজেক্ট ‘দেবদাস’ সিনেমায় জুটিবদ্ধ হন। ‘দেবদাস’ সিনেমায় পার্বতী চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয়ের মাধ্যমে জয় করেন সকলের হৃদয় এবং সিনেমাটিও ব্যাপক সাফল্য পায়। পরবর্তীতে সিনেমাটি কান চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শন করা হয়। এরপর ২০০৪ সালে কলকাতার পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষের ‘রেইনকোট’ সিনেমায় অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তিনি জাত অভিনেত্রী হিসেবে সমালোচকদের প্রশংসা পান। এই সিনেমাটি জাতীয় চলচিত্র পুরস্কার পায়। ২০০৫ সালে ‘বান্টি অউর বাবলি’ সিনেমায় তিনি ‘কাজরা রে’ আইটেম গানে অভিনয় করেন। এক আইটেম গান দিয়েই পুরো ভারতে রীতিমতো হুলুস্থুল ফেলে দেন তিনি৷

২০০৬ সালে ঐশ্বরিয়া অভিনীত দুটি সিনেমা মুক্তি পায়। ‘উমরাও জান’ ও ‘ধুম-২’। ছবিটি একটি মাসালাদার বানিজ্যিক ব্লকব্লাস্টার সিনেমা হিসেবে প্রমানিত হয়। অন্যদিকে ‘উমরাও জান’ বক্স অফিসে তেমন সফলতা না পেলেও সমালোচক এবং বোদ্ধা দর্শকদের কাছে ব্যাপক প্রশংসা পায়। ২০০৭ সালে তার অভিনীত মণিরত্নমের ‘গুরু’ সিনেমাটি বক্স অফিসে সাফল্যের সাথে সাথে আন্তর্জাতিকভাবে বেশ সুনাম অর্জন করে। এরপর ২০০৮ সালে ‘যোধা আকবর’ তার অভিনীত আর একটি জনপ্রিয় ব্যবসা সফল সিনেমা। একই বছর তিনি বিগ বি এবং অভিষেক বচ্চনের সাথে ‘সরকার রাজ’ নামক একটি সিনেমায় অভিনয় করেন। ২০১০ সালে সুপারস্টার রজনীকান্তের সাথে ‘এনথেরান’ সিনেমায় অভিনয় করেন। যেটি হিন্দিতে ‘রোবট’ নামে মুক্তি পায়। হলিউডের ‘ব্রাইড এন্ড প্রেজুডিস’ ও ‘প্রোভোকড’ সিনেমায় তিনি অভিনয় করেছিলেন। ‘ব্রাইড এন্ড প্রেজুডিস’ তার ক্যারিয়ারের একটি অন্যতম সাফল্য। ১৯৯৯ এবং ২০০২ সালে ‘হাম দিল দে চুকে সানাম’ এবং ‘দেবদাস’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য পেয়েছেন ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডে সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার। ‘মোহাব্বতে’ সিনেমার জন্য পেয়েছেন সেরা সাপোর্টিং অভিনেত্রীর পুরস্কার। ২০০৯ সালে তার অসামান্য অভিনয় দক্ষতার কারণে তিনি ভারত সরকারের কাছ থেকে পদ্মশ্রী সম্মাননা অর্জন করেন।

সালমান খান এবং বিবেক ওবেরয়ের সাথে প্রেম থাকলেও শেষমেশ সব অতীতকে পিছনে ছাপিয়ে ২০০৭ সালের ২০শে এপ্রিল বলিউড অভিনেতা অভিষেক বচ্চনকে বিয়ে করেন ঐশ্বরিয়া। যদিও তাঁদের এই প্রেম পর্ব শুরু হয়েছিল আরো আগেই। ২০০৬ সালে ‘উমরাও জান’ সিনেমাতে জুটি বেঁধেছিলেন অভিষেক-ঐশ্বরিয়া। মূলত ছবির শুটিংয়ের সময় ঐশ্বরিয়ায় মুগ্ধ হয়েছিলেন অভিষেক। এক সাক্ষাৎকারে অভিষেক জানান, ২০০৭ সালের জানুয়ারীতে এই ‘বিশ্বসুন্দরী’কে নিজের মনের কথা জানান অভিষেক। ঐশ্বরিয়ার কাছ থেকে ইতিবাচক সাড়া পেয়ে বেশিদিন লুকোচুরি করেননি তারা। ফেব্রুয়ারিতে অর্থাৎ পরের মাসেই অভিষেক বচ্চন মিডিয়ায় তাদের প্রণয়ের কথা স্বীকার করেন। ২০০৭ সালেই পরিণয়ে বাধা পড়েন এই দুই তারকা। এরপর ২০১১ সালে অভিষেক-ঐশ্বরিয়ার প্রথম মেয়ে সন্তান আরাধ্য বচ্চনের জন্ম হয়। এরপর মেয়েকে সময় দিতে ঐশ্বরিয়া মিডিয়া থেকে কিছুটা দূরে চলে যান। ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন মরণোত্তর নিজের চোখ দান করেছেন। আই এসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়াকে নিজের চোখ দান করেছেন বলিউড ডিভা ঐশ্বরিয়া। দানের প্রসঙ্গ যখন এলো তখন এটাও জেনে রাখা ভালো বলিউডের দানবতীদের মধ্যে ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন অন্যতম। নিজের একটা চ্যারিটি ফাউন্ডেশনও রয়েছে তাঁর।

কিছুদিন আগে পুরো বচ্চন পরিবার করোনা আক্রান্ত হয়েছিলো। ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন এবং করোনা জয় করেছেন তিনি। সিনেমায় দেখা না গেলেও টেলিভিশন বা মডেলিং জগতে আজো তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় এক নাম। ঐশ্বরিয়া রায় বিশ্বখ্যাত লরিয়ালের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর। এছাড়া টাইটান ঘড়ি, কোকাকোলা, ল্যাকমে বিউটি প্রোডাক্ট, নক্ষত্র ডায়মন্ড, কল্যাণ জুয়েলার্স সহ নানান প্রোডাক্টের বিজ্ঞাপনে কাজ করছেন। এখন পরিবার এবং মেয়েকে নিয়ে সময় কাটাচ্ছেন এই বলিউড অভিনেত্রী। তবে পছন্দসই স্ক্রিপ্ট পেলেই আবারো লাইট ক্যামেরার সামনে দাঁড়াবেন একথা জানিয়েছেন তিনি। তবে তার ভক্ত এবং অনুরাগীদের অপেক্ষার পালা হয়তো খুব লম্বা হবে না। কারণ মনি রত্নমের আগামী সিনেমায় ডাবল রোলে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে আবারো রুপালি পর্দায় ফিরছেন এই সবুজ নয়না।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ