মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০৭ অপরাহ্ন
Uncategorized

সব্যসাচী নাট্যজন মমতাজউদদীন আহমদের জন্মজয়ন্তী

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০২১

সব্যসাচী নাট্যজন মমতাজউদদীন আহমদ-এর ৮৭ তম জয়ন্তী উপলক্ষে আগামীকাল সোমবার (১৮ জানুয়ারি) আনন্দ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে দেশের ঐতিহ্যবাহী নাট্যসংগঠন ‘থিয়েটার’। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে অনুষ্ঠানটি শুরু হবে। ‘থিয়েটার’ আয়োজিত মমতাজউদদীন আহমদ জয়ন্তী অনুষ্ঠানের সহযোগিতায় থাকছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।

মমতাজউদদীন আহমদের উপর নির্মিত তথ্যচিত্র প্রদর্শনী, গান, আবৃত্তি, নাট্যাভিনয় সহ বৈচিত্রময় আয়োজনের মধ্য দিয়ে সাজানো এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এম.পি। বিশেষ অতিথি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সম্মানিত উপদেষ্টা মঞ্চসারথি আতাউর রহমান, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ, বাংলাদেশ শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান লাকী ইনাম, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ প্রমুখ। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক এবং বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশানের চেয়ারম্যান ঋত্বিক নাট্যপ্রাণ লিয়াকত আলী লাকী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখবেন থিয়েটার সভাপতি ড. নিলুফার বানু এবং স্বাগত বক্তব্য রাখবেন ‘থিয়েটার’ এর সাধারণ সম্পাদক নাট্যজন অশোক রায় নন্দী।

ভাষা সৈনিক, বাংলা সাহিত্যের খ্যাতিমান অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমদ বাংলাদেশের একজন প্রখ্যাত নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা। স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে নবনাট্য আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃৎ তিনি। মঞ্চ, টেলিভিশন, বেতার ও চলচ্চিত্র সব মাধ্যমেই তিনি ছিলেন অগ্রগণ্য। এ দেশের মঞ্চ নাটকে পরিপূর্ণতা আনয়নে তিনি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। তাঁর রচিত ও নির্দেশিত নাটক ‘সাতঘাটের কানাকড়ি’ এ দেশের নাট্যাঙ্গনে মাইল ফলক হিসেবে চিহ্নিত। থিয়েটার প্রযোজিত তুমুল জনপ্রিয় এই নাটকটি তৎকালীন সৈরশাসকের ভীত পর্যন্ত কাঁপিয়ে দিয়েছিলো সে সময়।

তার অন্যান্য উল্লেখযোগ্য নাটকগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘বর্ণচোরা’, ‘স্বাধীনতা আমার স্বাধীনতা’, ‘জমিদার দর্পণ’, ‘বটবৃক্ষের ধরমকরম’, ‘রাজা অনুস্বারের পালা’, ‘ফলাফল নিম্নচাপ’, ‘যামিনীর শেষ সংলাপ’, ‘দুই বোন’, ‘ওহে তঞ্চক’, ‘খামাখা খামাখা’, ‘স্বাধীনতার সংগ্রাম’, ‘নাট্যত্রয়ী’, ‘হৃদয়ঘটিত ব্যাপার স্যাপার’ ইত্যাদি। তাঁর লেখা নাটক ‘কী চাহ শঙ্খচিল’ ও ‘রাজা অনুস্বারের পালা’ কলকাতার রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠ্য তালিকাভুক্ত হয়েছিল। তাঁর নিজ হাতে গড়া নাট্যসংগঠন ‘থিয়েটার’ দেশের অন্যতম প্রধান নাট্যদল। তাঁর লেখা গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে ‘বাংলাদেশের নাটকের ইতিবৃত্ত’, ‘বাংলাদেশের থিয়েটারের ইতিবৃত্ত’, ‘নীলদর্পণ’ (সম্পাদনা) ও ‘সিরাজ উদ দৌলা’ (সম্পাদনা) ইত্যাদি।

২০১৯ সালে জানুয়ারিতে তাঁর জীবদ্দশায় ৮৫তম জন্মদিনে বাংলা একাডেমি মিলনায়তনে তাঁকে নাগরিক সংবর্ধনা দেওয়া হয়। নাট্যচর্চায় অবদানের জন্য মমতাজউদদীন আহমদ একুশে পদক পান ১৯৯৭ সালে। এছাড়া বাংলা একাডেমি পুরস্কার, শিশু একাডেমি পুরস্কার, আলাউল সাহিত্য পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন তিনি। পেয়েছেন নাট্যকর্মী থেকে শুরু করে দেশের অগণিত মানুষের ভালোবাসা।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ