শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

‘দেশের সূর্য সন্তানদের নিয়ে আরো চলচ্চিত্র নির্মাণ হওয়া দরকার’

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২১

বর্ষীয়ান অভিনেত্রী দিলারা জামান। পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে দাপটের সঙ্গে অভিনয় করছেন। দেশের জনপ্রিয় নাটক, সিনেমা, টেলিফিল্ম কিংবা বিজ্ঞাপন, যা-ই হোক না কেন তিনি নিপুণ অভিনয়শৈলী দেখিয়েছেন। এই অভিনেত্রীর অর্জনের খাতায় আছে একুশে পদক ও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। কাজ ও সমসাময়িক বিষয়ে জমজমাট এর সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

অভিনয়ে অনেকটা সময় পার করলেন। কখনো কি নিজেকে ক্লান্ত মনে হয়েছে?

ক্লান্ত কেন হবো? অভিনয় না করতে পারলেই বরং নিজেকে বেশি ক্লান্ত মনে হয়। মনে হয়, আমার বয়স হয়ে গিয়েছে। বয়স হয়েছে ঠিকই, কিন্তু বয়সকে বেঁধে রেখেই কাজ করতে হবে। ক্লান্তি এলে তো আর সামনে যাওয়া যাবে না।

আপনার অভিনয়ে কখনো বয়সের ছাপ দেখা যায় না। এখনো কিভাবে পারছেন?  

অভিনয় করতে আমি মন থেকে ভালোবাসি। মনের জোর হচ্ছে সবচেয়ে বড় জোর, যেখানে ক্লান্তি আসার কোনো সুযোগ নেই। তবে এখন বয়স বেড়ে যাওয়ায় আগের মতো না পারলেও নিয়মিত অভিনয় করার চেষ্টা করি। নিজেকে মন থেকে দুর্বল ভাবার পক্ষে আমি নই। সবসময় মনের জোরে কাজ করি। মনের বয়স এখনো বাড়েনি।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী নিয়ে যে সিনেমাটি হচ্ছে, সেটিতে আপনাকে দেখা যাবে। মহান এই নেতার মায়ের চরিত্রে অভিনয়ের অনুভূতিটা কেমন?

অনেক ভালো লাগছে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালির মায়ের চরিত্রে অভিনয় করতে পেরে নিজেকে আমি গর্বিত মনে করছি। আসলে এটি শুধু চলচ্চিত্র নয়, আমাদের ইতিহাসও। এই ইতিহাসের হাত ধরে আমরা একটা স্বাধীন দেশ পেয়েছি। এই ইতিহাসের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে নিজের কাছে খুবই ভালো লাগছে।

কয়েকদিন আগে আপনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন। সাক্ষাতে কী কথা হলো?

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শেখ রেহানাও ছিলেন। শেখ রেহানা আমাকে দেখেই হেসে বললেন আমাদের দাদী এসেছেন। পরে আমি বসলাম, অনেক কিছু নিয়েই তাদের সঙ্গে কথা বললাম। তারা পুরোটা সময় আমাকে দাদীই ডেকেছেন। প্রায় তিন-চার ঘণ্টা সেখানে ছিলাম। প্রধানমন্ত্রী ও তার বোনের কাছ থেকে জাতির জনক সম্পর্কে অনেক কিছুই জেনেছি। প্রধানমন্ত্রীকে পেয়ে সবাই অনেক প্রশ্ন করেছেন। তিনি সবার প্রশ্নের উত্তর হাসিমুখে দিয়েছেন। মানুষ হিসেবে তিনি অসাধারণ। তাকে দেখে যে কেউ মুগ্ধ হবেন। বাবার মতোই অদ্ভুত কিছু গুণ আছে তার মধ্যে। তার কথা শুনলে মনে হয় সবাই তার পরিচিত। কখনো বুঝতে দেননি, তিনি একজন প্রধানমন্ত্রী।

দেশের সূর্য সন্তানদের নিয়ে খুব বেশি চলচ্চিত্র নির্মাণ হচ্ছে না। এ বিষয়ে কী বলবেন?

আমি মনে করি দেশের সূর্য সন্তানদের নিয়ে আরো চলচ্চিত্র নির্মাণ হওয়া দরকার। দেশের জন্য তাদের ত্যাগ সম্পর্কে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে জানাতে হবে। তাদের জন্য আজকে আমরা এই সোনার দেশ পেয়েছি। তাদের নিয়ে আরো বেশি সংখ্যক চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে হবে। মানুষ বই পড়ে অনেক কিছুই জানতে পারে কিন্তু চলচ্চিত্র দ্বারা বেশি প্রভাবিত হয়।

বর্তমানে যে ধরনের নাটক-সিনেমা নির্মাণ করা হচ্ছে, তাতে ইন্ডাস্ট্রির ভবিষ্যৎ কেমন মনে হচ্ছে?

ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা না করে আগে ভালো কাজ করার চিন্তা করতে হবে। তাহলে আপনা-আপনিই ভবিষ্যৎ ভালো হবে। পৃথিবীর সব ইন্ডাস্ট্রিতেই ভালো কাজের পাশাপাশি দুর্বল কাজও হয়। কিন্তু ভালো কাজের কথা-ই মানুষ মনে রাখে। তবে অভিনেতা-অভিনেত্রী ও পরিচালকদের একটা কথা মাথায় রাখতে হবে। মানসম্মত কাজ না করলে টিকে থাকা সম্ভব না। তাই কাজ অল্প হলেও মানসম্মত হতে হবে। তবে ভালো কাজ যে হচ্ছে না তা তো নয়। ভালো কাজ না হলে ইন্ডাস্ট্রি এতদিন টিকে থাকতো না।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ