শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০৮ অপরাহ্ন
Uncategorized

‘মৃত্যুর পরও আমাকে স্মরণ করলে কৃতজ্ঞ থাকব’

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

দীর্ঘ ছয় দশকের ক্যারিয়ারে অভিনয়ের জোরেই নিজের নামটিকে একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে পেরেছিলেন তিনি। অভিনেতার পাশাপাশি তিনি ছিলেন একজন পরিচালক, চিত্রনাট্যকার, সংলাপ রচয়িতা ও গল্পকার। অভিনয় জীবনে তার প্রাপ্তির খাতায় অপূর্ণতা ছিল না। দর্শক প্রশংসার পাশাপাশি পেয়েছেন অসংখ্য পুরস্কার। তারপরও জীবনের শেষ দিনে স্বপ্ন দেখতে চেয়েছিলেন নতুন সিনেমা নির্মাণের। তবে সেই ইচ্ছে পূরণ হওয়ার আগেই ওপারে চলে গেলেন বরেণ্য অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান। শনিবার নিজ বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন পাঁচ শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করা শক্তিমান এ অভিনয় শিল্পী। পর্দায় আর কখনোই তাকে দেখা যাবে না। লাইট ক্যামেরা ও প্রিয় অঙ্গনের মানুষদের ছেড়ে সব কিছুর উর্ধ্বে চলে গেলেন গুণী এই অভিনেতা। তার চলচ্চিত্র জীবনের শুরু ১৯৬১ সালে পরিচালক উদয়ন চৌধুরীর ‘বিষকন্যা’ চলচ্চিত্রে সহকারী পরিচালক হিসেবে। অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র পর্দায় আগমন ১৯৬৫ সালের দিকে। ১৯৭৬ সালে চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেনের ‘নয়নমণি’ চলচ্চিত্রে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে আলোচনায় আসেন। এরপর অভিনয় করেছেন অসংখ্য নাটক ও সিনেমায়। একান্ত আলাপচারিতায় মুখোমুখি হয়েছিলেন জমজমাট-এর। এটি তার অপ্রকাশিত সাক্ষাতকার।

আপনার শৈশব ও বর্তমান নিয়ে জানতে চাই। শৈশবের সাথে বর্তমানের পার্থক্য কি?

এখন যেমন দেখছেন শৈশবও এমনই ছিল। বন্ধু-বান্ধব ছিল সীমিত। তবে ছেলে বন্ধুর চেয়ে মেয়ে বন্ধু বেশি ছিল। মেয়েদের সাথে আমার বন্ধুত্ব ভালো ছিল। তাদের সাথে তখনও যেমন সম্পর্ক ছিল এখনও তেমনই আছে (হাসি)। ছেলেদের যাদের সাথে সম্পর্ক ছিল তারা অনেকেই এখন নেই। সব সময় সহজ-সরল জীবন-যাপনের পক্ষপাতী। কোন জটিল জীবন বা কারো সাথে ঝগড়া বিপদ এগুলো সব সময়ই অপছন্দের ছিল। আমি সহজেই কারো সাথে তর্কে যেতাম না। আমার কাছে সবাই ভালো।

একাত্রিকবার আপনাকে নিয়ে মৃত্যুর গুজব ছড়িয়েছে যখন শুনেছেন কেমন লেগেছিল?

কম করে হলেও বিশ বার এমন গুঞ্জন উঠেছে। একদিন বললাম, আমি মরার আগে আপনারা আমাকে মারতে চাচ্ছেন কেন? আমি যেদিন পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে ওপারে চলে যাব, যদি পারেন সেদিন আমাকে ঠেকিয়ে রাখবেন।

খল ও কৌতুক অভিনেতা হিসেবে বেশ পরিচিত। চরিত্রের মধ্যে প্রবেশের গল্পটা জানতে চাই-

আপনাকে সব সময় বিশ্বাস রাখতে হবে। বিশ্বাসটা ভেঙ্গে গেলে আর হবে না। আমি যখন যেটা করেছি বিশ্বাসের সাথে করেছি। ভিলেন হিসেবে যদি বলি কোন ভিলেন কোন মেয়ের ঘরে গিয়ে চোখ মুখ গরম করে বলে আমার ঘরে এক গ্লাস পানি নিয়ে আসো কোন মেয়ে কি আসবে? কিন্তু আমি বিষয়টা ঠান্ডা মাথায় বলতাম এবং ঠান্ডা মাথায়ই অনেক গুলো খুন করেছি। ‘আসামী’ ছবিতে নায়িকা নতুন ও রাজ্জাককে ফাঁসানোর জন্য দিলদারকে একটা দা দিয়ে কোপ দেই। দেখি নড়াচড়া করছে আমি বললাম, নড়াচড়া করছিস কেন মরবিই যখন ভালো করে মর। তখন ওরে আরও কয়েকটি কোপ দিলাম। এটা অত্যন্ত মর্মান্তিক দৃশ্য ও নিষ্ঠুরতার কাজ। আমি বিশ্বাস করেছি নিষ্ঠুরতার কাজ নিষ্ঠুর ভাবেও করা যায়। আবার সহজ ভাবেও করা যায়। খুব সম্ভবত বাংলাদেশে আমিই একজন অভিনেতা যে খুব সহজেই ঠান্ডা মাথায় অনেকগুলো খুন করেছি। গতানুগতিক অন্য কোন ভিলেনদের মতো কোন কাজ করিনি। আর এভাবে অভিনয় করতে করতেই জনগনের মনে জায়গা করে নেই।

‘এবাদত’ চলচ্চিত্র নির্মাণের পর আর নির্মাণে দেখা যায়নি কেন?

এ ছবির প্রযোজক রহমান হাবিব এসে বললেন আমার একটি ছবিতে আপনাকে পরিচালনা করতে হবে। সুযোগ পেয়েছি করেছি এরপর তো আমি শারিরিকভাবে অসুস্থ। হয়তো অসুস্থ না থাকলে ফের পরিচালনা করা হতো।

চলচ্চিত্রের এই বেহাল দশার কারণ কী হতে পারে বলে মনে করেন?

আপনাকে সব সময় মাথায় রাখতে হবে কাদের জন্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করছেন। একটা জিনিস মাথায় রাখতে হবে বাংলার মানুষের জন্য চলচ্চিত্র বানাচ্ছি। তাদের জীবন, সংস্কৃতি, আচার-আচরণ সব কিছু নিয়েই চলচ্চিত্র। অন্তত এটুকুও যদি তাদের মাথায় থাকে তাহলে আর কিছু না হোক একেবারে না-দেখার মতো কিছু হবে না। গল্প, সংলাপ থেকে শুরু করে সব কিছুতেই নতুনত্ব আনতে হবে। দর্শক নতুন কিছু না পেলে আপনার ছবিটি কেন দেখবে? এখনও মানুষ সিনেমা দেখতে চায় তবে তারা মন মত গল্প পাচ্ছে না।

চলচ্চিত্রে নতুন খল-অভিনেতা, কমেডিয়ান তৈরি হচ্ছে না কেন?

এর অন্যতম কারণ ভালো স্ক্রিপ্টের অভাব। আমরা না কমেডি বুঝি, না কমেডি কীভাবে লিখতে হয় সেটা বুঝি। এখনকার স্ক্রিপ্ট রাইটাররা চেষ্টা করছেন না। তারা পারছেন না বললে কষ্ট পাবেন। এবার আসুন অভিনেতা সম্পর্কে। অভিনেতা প্রতি মুহূর্তে তার চরিত্রের সঙ্গে কথা বলবে। এভাবে সে চরিত্র আত্মস্থ করবে। আমি এখনও চরিত্র ফুটিয়ে তোলার আগে নিজের সঙ্গে কথা বলি। সব সময় দেখি কোথায় কোন ভুল করলাম। কোথায় উচ্চারণ ভুল হলো। প্রতিনিয়ত ভুল করে যাচ্ছি। ভুল করতে করতেই শিখছি। অভিনেতার ভুল থেকে শেখার মানসিকতা থাকতে হবে। জীবন অনেক দ্রুত গতিতে চলছে। কিন্তু এই গতি অভিনেতার জন্য নয়। তার আলাদা সময় প্রয়োজন। যে সময়টুকু সে তার চরিত্রকে দেবে।

পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং দেশের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদকও পেয়েছেন। কোন আক্ষেপ আছে?

না আমার কোন আক্ষেপ নেই। আমি পেয়েছি অনেক খুশি হয়েছি। না পেলে অখুশি হতাম না। পেয়েছি ভালো লেগেছে। না পেলে আক্ষেপ থাকত না। এর মানে এই নয় যে অনেকরে পিছনে ফেলে আমি এগুলো নিয়েছি।

অসংখ্য ছবিতে অভিনয় করেছেন। আপনার সবচেয়ে সেরা অভিনয় কোনটি?

সবগুলো চরিত্রই আমার কাছে সেরা। কারণ যখন যেটা করেছি মন থেকে করেছি। সমস্ত হৃদয়ের সত্তা দিয়ে অভিনয় করেছি। কোনটা খারাপ হয়েছে কোনটা ভালো হয়েছে এ দোষ আমার না।

এখনকার শিল্পীদের জন্য কি পরামর্শ দিবেন?

আগে পড়ুন, চরিত্রটি ভাবুন তারপর নিজের মধ্যে ধারণ করে সেটি পর্দায় সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলুন। তবে সব কিছুতেই নতুনত্ব থাকতে হবে। গতানুগতিক গল্প হলে দর্শক দেখবে না। বিরক্ত হয়ে মুখ ফিরিয়ে নিবে। যেমন ‘নয়নমণি’ ছবিতে কমেডি স্টাইলে ভিলেন চরিত্রে অভিনয় করেছি। খুব সহজ ভাবে অভিনয় করেছি। তাই তো দর্শকরা আমাকে গ্রহণ করেছেন। যখন যে ছবিতে অভিনয় করি তখন সেটিই আমার প্রিয় ছবি, চরিত্র ও সংলাপ।

সর্বশেষ দর্শকদের উদ্দেশ্য কি বলবেন?

আমি চিরদিন থাকব না, আমাকে বাঁচিয়ে রাখার দায়িত্ব আপনাদের। আমার মৃত্যুর পরও যদি আপনারা আমাকে স্মরণ করেন আমি কৃতজ্ঞ থাকব। আমি না থাকলেও আমার আত্না থাকবে। দর্শকদের কাছে এটুকুই প্রত্যাশা করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ