মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৫:১২ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

তাল তমালের বনেতে আগুন লাগে মনেতে…

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৯ জুলাই, ২০২০

চারুকলার পুরনো বিল্ডিংয়ের পেইন্টিং এর যে মেয়েটা এলোচুল পেন্সিলে খোপায় আটকে নিমগ্ন হয়ে ক্যানভাসে স্বপ্ন ফুটিয়ে তুলত, সেই আগুন লাগা মনের মেয়েটা কখনো ভাবেইনি ক্যানভাসে ছাড়াও সে একদিন ছবি আঁকবে তবে তা ক্যামেরার পিছনে। এই যে ক্যানভাস থেকে ক্যামেরার পিছনের জার্নি, তা খুব লম্বা সময়ের না হলেও যে অভিজ্ঞতা দিয়েছে তা বহু যুগের বললেও কম বলা হবে। আমার প্রথম সিনেমা ‘চল যাই’। এই ছোট নামটার সাথে যে কত ভালবাসা, কত অভিমান জড়িয়ে! প্রথম কাজ, তাও বেশ বড় পরিসরেই। তাই ভোগান্তিও খুব কম হয়নি।

নিজেরা যখন অন্য একটা সিনেমা বানানোর স্বপ্ন নিয়ে এই শহরে বাচার লড়াই করছি, তখন হুট করে সুর্য শিশির ফাউন্ডেশনের সভাপতি রাসেল ভাই একদিন একটি সিনেমা বানানোর প্রস্তাব দিলেন। সিনেমার গন্তব্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সামনে! আর আমাদের টিমের গন্তব্য এই শহরকে, শহরের দুর্ভোগ গুলোকে অতিক্রম করে একাত্তরের একটা গল্প ছুয়ে টুঙ্গিপাড়ায়। যেহেতু আগে থেকেই সিনেমা বানানোর ইচ্ছে ছিল, টিম একটা ছিলই। অভিনয়কে জীবনের একমাত্র লক্ষ্য ভেবে ছুটে চলা স্বপ্নবাজ খালিদ মাহবুব তূর্য যে কিনা নিজের অভিনয়টার জন্য সিনেমার বোঝা বইতে রাজি, একা হাতে দশজনের কাজ সামলান আমাদের ওয়ান ম্যান আর্মি সীমান্ত, শান্ত – গভীর শিহাব, রিসার্চার হিসেবে বিধুনন। আর সাথে যোগ দিল আরেক যাদুকর, ডিওপি সুমন সরকার। যার হাতে ক্যামেরা কথা বলে। এই যে টিম, আমিসহ সবাই সদ্যই পড়াশোনার পাট চুকানো একেকজন স্বপ্নবাজ তরুণ, তাদের কাছে সিনেমা ক্যারিয়ারের পথ নয় বরং ভালবাসা।

আমরা স্বপ্ন দেখতাম আর সিনেমা আমাদের সেই স্বপ্নকে সবার মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার একমাত্র মাধ্যম। ‘চল যাই’ বাংলাদেশের প্রথম সিনেমা যা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি উদ্ধৃতির উপর নির্ভর করে নির্মাণ করা হয়েছে। প্রতিটি দেশে যুদ্ধ হয়, এবং যুদ্ধে অন্য সব বিপর্যয়ের সাথে যেই করুণ এবং চরমতম নিষ্ঠুরতার শিকার হয়েছিলেন যারা সেই বীরাঙ্গনাদের নিয়ে অন্য কোন দেশ বা জাতি কিছু বলেনি সেভাবে। একমাত্র আমাদের মহান নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভেবেছিলেন যুদ্ধ পরবর্তি দেশে সহায় সম্বলহীন, নিরাশ্রয় বীরাঙ্গনাদের কথা। সমাজ এমনকি তাদের পরিবারও যখন তাদের অস্বীকার করে, কোথাও ঠাই মেলে না, উনি পৃথিবীর একমাত্র নেতা যিনি তাদের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। বলেছিলেন ‘ওদের ঠিকানা ধানমণ্ডি বত্রিশ নাম্বার আর পিতার নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’! মুজিব একটা বিশাল আকাশ, আর এই নিয়ে যখন কাজ করতে গেলাম, তাঁকে নিয়ে অনেক পড়াশোনা, রিসার্চ চললো। সিনেমার স্ক্রিপ্টের সাথে সাথে আমাদের নিজেদের বোধও তাতে যথেষ্ট সমৃদ্ধ হয়েছে বৈকি! এই করে স্ক্রিপ্ট শেষ হল, এবার শুরু হল আসল যুদ্ধ-শুটিংয়ের প্রস্তুতি, কাস্টিং, কস্টিউমস, লোকেশন নির্ধারণ। আমরা চেয়েছিলাম গতানুগতিক লোকেশান গুলোর বাইরে একেবারে ভিন্ন কিছু দর্শকের সামনে তুলে ধরতে। অন্য প্রকৃতির, অন্য মায়া! প্রথম লটের শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা শেষতক খুব ভালো না হলেও, সেবার আমি প্রেমে পড়লাম।
‘স্বপ্ন কে ফ্রেমে বাঁধার প্রেমে’। সেবার বুঝলাম একজন ভালো প্রোডাকশন ম্যানেজার একটা সিনেমার জন্য কত্ত জরুরী। টিমেও কিছু রদবদল এলো। কাস্টিং ডিরেক্টর সাইফ অহী, প্রোডাকশন ম্যানেজার উজ্জ্বল ভাই, লাইটে ইসমাইল ভাই।

পরের লটটায় খুবই শান্তিতে শুটিং করেছি। সেবারের কাস্টিং মূলত এই শান্তির ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রেখেছিল। প্রিয় মানুষ লুসি তৃপ্তি গোমেজ, গুণীজন জাহাঙ্গীর চৌধুরী, তূর্য, ছোট্ট শরিফুল আর প্রয়াত আয়াত। হ্যাঁ, প্রয়াত আয়াত। এত্তো কম বয়সি একটা মেয়ে, নিজের প্রথম সিনেমার অভিনয় পর্দায় দেখার আগেই পাড়ি দিয়েছে মৃত্যুনদীর ওপাড়ে। চল যাই একটা দীর্ঘ যাত্রা, যেখানে অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে আসতে গিয়ে অনেক কিছু পেয়েছি যেমন, হারিয়েছিও কম নয়। এর পরের লটের শুটিং ছিল অন্য শিল্পী, অন্য পরিবেশের। সে সব ভোগান্তির কথা আজ আর নাই বলি।
শেষ লটের শুটিং আমাদের নিয়ে গেল টুঙ্গিপাড়ায়, বঙ্গবন্ধুর মাজারে।

আনিসুর রহমান মিলন ভাইয়ের বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারতের ক্যামেরা বন্দী আবেগের বাইরেও যে আবেশে ভাসছিলেন তার ঢেউ উঠে ছিল সবার মাঝে। আর অ্যাম্ফিথিয়েটারে করা উনার শেষ দৃশ্য দেখে কাদেননি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কৃতজ্ঞতা জানবেন মিলন ভাই। সিনেমার শুটিং শেষের কাজ গুলোর ক্রেডিট যায় আশিকুজ্জামান অপু ভাই এবং দীপু ভাইয়ের কাছে। সব সময়ের সাপোর্ট দিয়েছে রাব্বিকুল ইসলাম সজীব। সিনেমা যে শুধু দৃশ্য তৈরি করে না, সম্পর্কের বাধনেও বেধে দেয়, এই মানুষ গুলো ছাড়া কি করে জানতাম?

কিছু সীমাবদ্ধতার জন্য ‘চল যাই’ এর প্রচারণা যথাযথ ভাবে হয়নি, তাই প্রথমেই সবার কাছে পৌঁছাতে পারেনি। আবার যখন সময় এলো তখন দুর্ভাগ্যক্রমে করোনার কারনে হুট করেই সব বন্ধ হয়ে গেল। তবু সিনেপ্লেক্সগুলোয় চলার সুবাদে যারা দেখেছেন, তাদের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা আমাদের সকল পরিশ্রম সার্থক করেছে। প্রতিটি রিভিউ নতুন কাজ করার প্রেরণা যোগায়। শেষে এটুকুই বলার, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প আরও উন্নত হোক আর সমৃদ্ধ হোক নির্মাণে।ভালবাসা অবিরত।

মাসুমা তানি, চলচ্চিত্র নির্মাতা।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ