বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৫:৪৮ অপরাহ্ন
Uncategorized

পূজায় মেতে উঠেছে সিনেমার তারকারা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২১

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। উৎসবের রঙ লেগে থাকে পূজার দিনগুলোতে। সাধারণ মানুষের মত তারকারাও মেতে উঠেন উৎসবে। সেনিটাইজার, মুখে মাস্ক ও ছয় ফুটের দূরত্ব বিধি, রাতে প্যান্ডেলে প্রতিমা দেখার নানা বিধিনিষেধ। সবাই বুকে করোনা সংক্রমণের ভয় নিয়ে শারদীয় দুর্গাপূজা উদযাপন করছেন। মহামারি করোনার কারণে এবারও উৎসবে দেখা গেছে ভিন্নতা।

বর্ণিল আলোকসজ্জা, মেলা কিংবা আরতি প্রতিযোগিতা এমন নানা আয়োজনে প্রতি বছর পালিত হয় দুর্গাপূজা। দলবেঁধে বিভিন্ন মন্দিরে মন্দিরে পূজা দেখতে যাওয়ার মাঝে আত্মতৃপ্তি খুঁজেন বাঙালি হিন্দুরা। তবে, করোনার প্রকোপে কিছুটা রং হারিয়েছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় এই উৎসবটি। প্রতি বছর শোবিজ তারকাদের পূজা ঘিরে নানা আয়োজন থাকলেও অধিকাংশ তারকার এবারও ঘরবন্দি কাটছে দুর্গাপূজা।

অপু বিশ্বাস

মহালয়ার দিন থেকে ছোটবেলায় শুরু হতো আমার উৎসব। ভোরে রেডিওতে মহালয়া শোনার পর চলে যেতাম মন্দিরে। ভাস্কর তখনও প্রতিমায় রঙ করায় ব্যস্ত। দেখতে খুব ভালো লাগত। পূজায় প্রতিবার কম করে হলেও চারটি ড্রেস কিনতাম। প্রতিদিন এক একটি ড্রেস পরতাম। পরার আগে কেউ যদি আমার ড্রেস দেখে ফেলত, তা হলে সেই ড্রেস আর পরতাম না। নতুন আরেকটা কিনে আনতাম। নতুন ড্রেসের সুবাস ছিল আমার খুব প্রিয়। আর এখন ব্যস্ততার কারণে কখন পূজা আসে আর কখন যায়- টেরই পাই না। গত বছর থেকে পূজায় মা নেই। সবসময় পূজার সব আয়োজন মা করতেন। তবে, গত বছর থেকে আমাকেই করতে হয়। এই সময়টাতে মাকে খুব মিস করি।

বাপ্পি চৌধুরী

আমি নাচতে খুবই পছন্দ করি। তবে, পূজা এলে এখন আর সেই সুযোগটা হয় না। পূজার এই কদিন মণ্ডপে মণ্ডপে ঘুরছি। ছোটবেলার পূজা অনেক বেশি মজার ছিল। কারণ, আমি নাচতে অনেক ভালোবাসি। পূজা মানে সারা রাত নাচতাম আর সকালে ঘুমাতাম। এখন সেই নাচটা চাইলেও করতে পারি না। সেইসব দিনগুলো খুব মিস করি। প্রতি বছর দশমীর দিন নিজেকে লুকিয়ে পূজা দেখতে বের হই।

বিদ্যা সিনহা মীম

পূজার সময় নৌকায় বসে বিসর্জন দেওয়া দেখা বেশ উপভোগ করি। শৈশবে পূজায় অনেক মজা করতাম। তবে, লাক্স সুন্দরী হওয়ার পর যখন পরিচিতি পাই তারপর আর সেভাবে পূজা উপভোগ করতে পারি না। শৈশবের সেই দিনগুলো খুব মিস করি। একবার এক দুর্ঘটনার কবলে পরে অল্পের জন্য রক্ষা পাই।

শিপন মিত্র

পূজার আগেই কাজ কমিয়ে দিয়েছি। চেষ্টা করেছি একটু ব্যতিক্রমভাবে এবার পূজার পরিকল্পনা করার। গত চার বছর পূজার আনন্দ থেকে বঞ্চিত ছিলাম। তবে, এবার আর সেই আনন্দ থেকে নিজেকে বঞ্চিত করিনি। ছোটবেলায় পূজার উপহার পেতে খুবই ভালো লাগত। দশমীর সময় সালাম করলে বকশিস পেতাম। সেই দিনগুলো খুব মিস করি। অভিনয় আসার পর অন্যরকমভাবে সম্মান পাই। পূজামণ্ডপে গেলে সবাই খুব সম্মান করে।

পূজা চেরি

এক সময় খুলনার গাজীরহাটে নিজেদের বাড়িতে পূজা উদযাপন করতাম। সেখানে বড় পরিসরে পূজার আয়োজন করা হতো। গত কয়েক বছর ধরে ঢাকাতেই পূজা করা হয়। এবার তো শুটিংয়ের ব্যস্ততা। তারপরও পূজার জন্য ঢাকায় ফিরেছি। ছোটবেলার পূজার আনন্দটা এখন আর নেই। সেই দিনগুলো খুব মিস করি। আমাদের বাড়ির উঠানে সবচেয়ে বড় মণ্ডপ হতো। মিডিয়ায় কাজ শুরু করার পর থেকে মণ্ডপে গেলে অনেকেই আমাকে চিনে ফেলেন। ছবি তুলতে চান। ব্যাপারটা উপভোগ করি

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ