মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:১১ অপরাহ্ন

জীবনের আরেক প্রান্তে মাসুম আজিজ ভাই

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২২

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

একুশে পদকপ্রাপ্ত অভিনয়শিল্পী, নাট্যকার মাসুম আজিজ জীবনের অন্যপ্রান্তের দিকে পা বাড়ালেন বেলা তিনটায়। রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন তিনি। ক্যানসার ও হৃদরোগে ভুগছিলেন অনেকদিন। এ বছরের ২ জানুয়ারি তার শরীরে ক্যানসার ধরা পড়ে।

১৯৭৯ সালের কথা। তখন আমরা মগবাজার এলাকায় থাকি। পড়ি মোহাম্মদপুর এলাকার একটা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে। সকালে বাসা থেকে বের হতাম সাইকেল চালিয়ে। বিকেলে ফিরতাম। আব্বা আমাদেরকে স্কুলে গাড়ী নিতে দিতেন না। কারণ ওনার ধারণা ছিলো গাড়ী নিয়ে স্কুলে গেলে আমাদের মনে অহঙ্কার জন্মাবে। আমার আব্বা কলকাতার ইসলামিয়া কলেজ থেকে বাংলায় অনার্স ডিগ্রী অর্জন করার পর প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে মাষ্টার্স করেন। থাকতেন কলকাতার বিখ্যাত বেকারস হোষ্টেলে। একই হোষ্টেলে থাকতেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

আমাদের স্কুলের কিছু সহপাঠী তখন পাইওনিয়ার ফিল্ম সোসাইটির সদস্য। আমিও সংযুক্ত হলাম ওই ফিল্ম সোসাইটিতে। তারপর নিজেই প্রতিষ্ঠা করলাম ঝংকার ফিল্ম সোসাইটি। ঢাকা শহরে অবস্থিত সোভিয়েত সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, ভারতীয় হাইকমিশন কালচারাল সেন্টার, আলিয়ঁস ফ্রঁসেজসহ বিভিন্ন অডিটোরিয়ামে আয়োজন করতাম চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর। প্রতি তিনমাসে একবার ঝংকার ফিল্ম সোসাইটির স্মরণিকা ছাপা হতো। মূলত চলচ্চিত্র নিয়ে বিভিন্ন লেখালেখি থাকতো ওগুলোয়। ওই সময়টায় মোরশেদুল ইসলাম ভাই (বর্তমানে সময় নিউজ এর শীর্ষ কর্মকর্তা) চলচ্চিত্রম নামে একটা ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি ছিলেন। ঢাকার কোনো মিলনায়নে বিদেশী চলচ্চিত্র চালাতে হলে তখন সেন্সর বোর্ড থেকে অনুমতি নিতে হতো। একারণেই মাঝেমাঝে মোরশেদ ভাইর সাথে দেখা হতো – কথা হতো।

ঝংকার ফিল্ম সোসাইটির স্মরণিকা ছাপা হতো মগবাজার এলাকার জিপি প্রিন্টার্স নামের একটা ছাপাখানায়। ওটার মালিক ছিলেন বাবলু ভাই। একদিন ওই প্রেসেই দেখা হয়ে গেলো মাসুম আজিজ ভাইর সাথে। তিনি তখন থিয়েটার পরিক্রমা নামে একটা পত্রিকা চালাতেন। পেশাগতভাবে থিয়েটার কর্মী। তখন যেহেতু টেলিভিশন চ্যানেল বলতে শুধুই বিটিভি তাই আজকের দিনের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মতো ওনাদের আর্থিক স্বচ্ছলতা ছিলো না। মাসুম আজিজ ভাইকে দেখতাম অল্প দামের সিগারেট টানতে। ওনার আর আমার মাঝে বয়সের বিশাল পার্থক্য থাকা সত্বেও আমি ফিল্ম সোসাইটির সাথে সম্পৃক্ত শুধু এই কারণেই তিনি স্নেহ করতেন। স্কুল ছুটির দিনে বাবলু ভাইর প্রেসে মাসুম ভাইর সাথে ঘণ্টার-পর-ঘন্টা আড্ডা চলতো। কখনো সত্যজিৎ রায় – কখনো মৃণাল সেন কিংবা জহির রায়হান। ওনাদের চলচ্চিত্র নিয়ে নানা কথা। আমার অনুরোধে ঝংকার ফিল্ম সোসাইটির স্মরণিকাতেও মাসুম আজিজ ভাই সময় পেলে লিখতেন।

এরপর কেটে গেলো অনেকগুলো বছর। ১৯৯২ সালে একদিন মাসুম ভাইর সাথে দেখা হয়ে গেলো পুরনো পল্টনে মুক্তধারা বইয়ের দোকানে। সংক্ষিপ্ত কথার ফাঁকে ওনাকে বললাম, আমি রাশিয়ার সংবাদ সংস্থার বাংলাদেশে প্রধান প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। তিনি খুশি হলেন। অফিসের ঠিকানা নিলেন। পরবর্তীতে বেশ ক’বার তিনি আমার অফিসে এসেছেন। মাঝে-মাঝেই বলতেন, রাশিয়ায় বাংলাদেশী থিয়েটার গ্রুপের নাটক মঞ্চস্থ করার ব্যবস্থা করতে। আমি তাকে বিনয়ের সাথে বললাম, এবিষয়ে ধানমন্ডিতে রাশিয়ান কালচারাল সেন্টারে কথা বলুন। তিনি বললেন, ওখানে কাউকে চিনিনা। আমি কালচারাল সেন্টারের প্রধান সুখানভের সাথে ফোনে কথা বলিয়ে দিলাম।

আবারও কেটে গেলো অনেকগুলো বছর। ২০০৯ সালে হঠাৎ মনে হলো একটা সিনেমা প্রযোজনা করবো। একজন সহকর্মীকে বললাম, মাসুম আজিজ ভাইর মোবাইল নম্বরটা লাগবে। মোবাইলে কল দিলাম। অন্যপ্রান্ত মাসুম আজিজ ভাই। তখন তিনি ভীষন ব্যস্ত নাট্যশিল্পী। আমার নাম বলতেই বললেন, “আরে শোয়েব! এতোদিন কই ছিলেন আপনি? চলে আসেন আমার বাসায় এক্ষুনি”।

মাসুম ভাইর বাসায় গেলাম। বনশ্রী এলাকায়। বুঝলাম ওনার আর্থিক টানাপোড়েন আর নেই। গল্প হলো দীর্ঘ সময়। তারপর বললাম, আমি একটা সিনেমা প্রযোজনা করবো। আপনি বানাবেন। এক কথায় রাজী হয়ে গেলেন।

গল্প তৈরী হলো। চিত্রনাট্য তৈরী হলো। তারপর একটা গান। এসআই টুটুলের কণ্ঠে – ধরা দিলা কথা দিলা, আপন করলা না। গানের কথা ও সুর আমার। গানটা রেকর্ডিংয়ের সময় মাসুম আজিজ ভাই ভীষন আগ্রহ নিয়ে বসে থাকলেন। রেকর্ডিং শেষে একটা সিডিতে কপি করে নিলেন।

তারপর চিত্রনাট্যের কাজ আর এগোতে পারেনি ওনার অসুস্থতার কারণে। আমিও আগ্রহ হারিয়ে ফেললাম।

বছর দুয়েক আগে হঠাৎ ওনার সাথে দেখা হলো ক্রাউন অফিসে। তিনি এসেছিলেন ডাবিংয়ের কাজে। কাজ শেষে তাড়াহুড়ো করে চলে গেলেন। বললেন, “একদিন সময় করে আসবো আড্ডা দিতে”।

সেই সময় আর মাসুম ভাইর হলোনা। এখন তিনি জীবনের অন্য আরেক প্রান্তের বাসিন্দা।

ভালো থাকবেন প্রিয় মাসুম ভাই!

(সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পুরস্কারপ্রাপ্ত সাংবাদিক, লেখক, গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞ এবং প্রভাবশালী ইংরেজী কাগজ ব্লিটজ এর সম্পাদক)

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ