সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৫৫ অপরাহ্ন

রেকর্ড সংখ্যক ভোটে জয়ী হয়ে আবারও প্রেসিডেন্ট হলেন পুতিন

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ, ২০২৪

তাজুল ইসলাম

টানা তিন দিনের নির্বাচন শেষে রেকর্ড সংখ্যক ভোটে পঞ্চমবারের মতো রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট হলেন ভ্লাদিমির পুতিন। ইউক্রেনের রাশিয়া অধিকৃত এলাকার বাসিন্দাদের ভোটদানে উদ্বুদ্ধ করতে সেখানে ভোটের সময় বরাদ্দ ছিল আরও বেশি। প্রাথমিক ফলাফলে দেখা যায়, কাস্টিং ভোটের মধ্যে ৮৭ শতাংশ ভোট পেয়ে নিরঙ্কুশভাবে বিজয়ী হয়েছেন পুতিন।

সোভিয়েত ইউনিয়ন-পরবর্তী যুগে এটি একটি রেকর্ড। রাশিয়ার নির্বাচনী কর্মকর্তাদের তথ্য অনুযায়ী, ৮০ লাখ ভোটার এবার অনলাইনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন নিজেও অনলাইনে ভোট দিয়েছেন।

এবারের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে রাশিয়ার জনগন ৭১ বছর বয়সী তাদের প্রিয় নেতার আরও ছয় বছর রাশিয়ার ক্ষমতায় থাকার বিষয়টি পাকাপোক্ত করলো। ১৯৯৯ সাল থেকে পুতিন রাশিয়ার ক্ষমতায় রয়েছেন। রাশিয়ার গত ২‘শ বছরের ইতিহাসে পুতিন-ই সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা নেতা। এই নির্বাচনে জয় লাভের মধ্যে দিয়ে পুতিন জোসেফ স্ট্যালিনকেও ছাড়িয়ে গেলেন।

নির্বাচনে জয়লাভের পর দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন পুতিন। তিনি বলেছেন, ‘এই সমর্থনের জন্য এবং আমার ওপর বিশ্বাস রাখার জন্য আপনাদের সবাইকে, সব নাগরিককে ধন্যবাদ জানাতে চাই।’

নির্বাচন-পরবর্তী এক সংবাদ সম্মেলনে পুতিন পশ্চিমা বিশ্বকে উপেক্ষা করার এবং ইউক্রেন আক্রমণ করার সিদ্ধান্তের প্রতিফলন হিসেবে এবারের ফলাফলটি তুলে ধরেন। সোমবার ভোরে সদর দফতর থেকে পুতিন এক ভাষণে বলেন, ‘কে বা কতটা আমাদের ভয় দেখাতে চায়, কে বা কতটা আমাদের দমন করতে চায়, আমাদের সংকল্প, আমাদের চেতনা, ইতিহাসে কেউই এমন কিছুতে সফল হতে পারেনি।’ তার ভাষায়, ‘এটি (পশ্চিমাদের এই কৌশল) এখনও কাজ করছে না এবং ভবিষ্যতেও কাজ করবে না। কখনোই না।’

পুতিন বলেন, সামনে অনেক কাজ আছে। কিন্তু রুশরা যখন ঐক্যবদ্ধ হয়, তখন যে-ই ভয় দেখাতে চায়, দমন করতে চায় না কেন, ইতিহাস বলে, কেউ সফল হয়নি। তারা এখন সফল হয়নি। ভবিষ্যতেও সফল হবে না। ভাষণে পুতিন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক ও বিচারব্যবস্থার কড়া সমালোচনা করেন।

টানা তিন দিনের ভোটগ্রহণ শেষে রোববার ভোট বন্ধ হওয়ার সময় রাশিয়াজুড়ে ভোটদানের হার ৭৪ দশমিক ২২ শতাংশ ছিল বলে নির্বাচনি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এবারের নির্বাচনে ২০১৮ সালের চেয়ে বেশি ভোট পড়েছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনে ভোটদানের হার ছিল ৬৭.৫ শতাংশ।

ভ্লাদিমির পুতিনের নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন কমিউনিস্ট পার্টির প্রার্থী নিকোলাই খারিতোনভ। তিনি পেয়েছেন চার শতাংশের এর কিছু বেশি ভোট। অন্য দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী পেয়েছেন তার চেয়েও কম।

আস্থা রাখার মতো কোনো বিকল্প না পেয়ে লাখো রাশিয়ান পঞ্চমবারের মতো পুতিনকেই রাষ্ট্রপতি পদের জন্য বেছে নিয়েছে । এই ফলাফল ভ্লাদিমির পুতিনের প্রতি সমর্থন এবং ঐক্যের অবিস্মরণীয় বহিঃপ্রকাশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ