রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন

অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায়ীদের প্রতি সরকারের কঠোর বার্তা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৪ মার্চ, ২০২৪

তাজুল ইসলাম

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, অবৈধ ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল (ভিওআইপি) কার্যক্রম কোনো অবস্থাতেই চলতে দেওয়া হবে না। বিটিআরসির উদ্যোগে এনটিএমসি এবং র‌্যাবের সহযোগিতায় অভিযান চলছে এবং চলবে।

কোন মোবাইল অপারেটর কিংবা তাদের পরিবেশকরাও যদি এ অপরাধের সাথে যোগসাজশ করে থাকে তাদেরও ছাড় দেওয়া হবে না।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ওই অপরাধীদের একটি কঠোর বার্তা দিতে চাই। সেই সঙ্গে মোবাইল সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর নিবন্ধিত ডিস্ট্রিবিউটর ও রিটেইলারদের অবহেলার কারণে অপরাধীরা যেন কোনও সুযোগ তৈরি করতে না পারে, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। অপরাধীরা দেশের যেকোনো প্রান্তে, যত কৌশলেই অপরাধ কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে চেষ্টা করুক না কেন, আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রাখবে।

রোববার (২৪ মার্চ) গাজীপুরের টঙ্গীতে জব্দকৃত ভিওআইপি কাজে ব্যবহৃত সাড়ে ১১ হাজার অবৈধ সিমসহ বিপুল যন্ত্রপাতি পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

সতর্ক উচ্চারণ করে তিনি বলেন, অবৈধ ভিওআইপি বন্ধে সরকার বদ্ধপরিকর। অপারেটররা পরিবেশকদের মাধ্যমে যদি সিম বিক্রির ক্ষেত্রে সংযত না হয় তবে এর দায়ভার তাদেরই বহন করতে হবে।

এনটিএমসির সহযোগিতায় র‌্যাব-১ শনিবার টঙ্গীতে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ অবৈধ ভিওআইপি যন্ত্রপাতি জব্দ করে এবং জড়িতদের আটক করে।

অনুষ্ঠানে এনটিএমসির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল জিয়াউল আহসান, বিটিআরসির চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মহিউদ্দিন আহমেদ, এবং র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মুহাম্মদ মুসতাক আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

পরে সংবাদ সম্মেলনে কমান্ডার খন্দকার আল-মঈন বলেন, এনটিএমসির সহযোগিতায় শনিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১ -এর একটি দল জানতে পারে, টঙ্গীর মধুমিতা এলাকার অগ্রণী টাওয়ার নামের একটি বহুতল ভবনে নিজেদের কেনা ফ্ল্যাটে অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জাম রয়েছে। পরে সেখানে অভিযান চালিয়ে তিনটি ফ্ল্যাটে রাখা ৩২টি সিম বক্স ডিভাইস, কয়েকটি মোবাইল ফোন, বিভিন্ন অপারেটরের প্রায় সাড়ে ১১ হাজার সিম কার্ডসহ তাদের আটক করা হয়। অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত দুই জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। একজন হলো তাজুল (৪0) অন্যজন হলো হারুন (৪০)। র‌্যাবের অভিযানের খবর পেয়ে বাকিরা পালিয়ে গেছে তবে খুব শীঘ্রই ভিওআইপি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত অন্যদের গ্রেফতার করা হবে।

র‌্যাব আরও জানায়, বিটিআরসি কর্মকর্তাদের দেয়া তথ্যমতে, অবৈধ টেলিযোগাযোগ স্থাপনার মাধ্যমে চক্রটি প্রতিদিন প্রায় ১ লাখ আন্তর্জাতিক কল মিনিট অবৈধভাবে দেশে টার্মিনেট করছিল। তাতে সরকার কয়েক লাখ টাকা রাজস্ব হারিয়েছে। তারা এক বছর ধরে সরকারকে কর ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে ভিওআইপি ব্যবসা চালিয়ে আসছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ