রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৮:১৪ অপরাহ্ন

কলকাতার মধুফাঁদে খুন হোয়া সরকার দলীয় এমপি আনার এখনও নিখোঁজ!

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

কলকাতার মধুফাঁদে নৃশংসভাবে খুন হোয়া ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার-কে এখনও খুঁজছে পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের পুলিশ। এখন অব্দি এ ঘটনায় বেশকিছু সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার কিংবা আটক করা হলেও ঘটনার জট যেনো ক্রমশই আরো জটিল হচ্ছে। বাংলাদেশের গণমাধ্যমে এমপি আনার হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত বিবরণ প্রকাশিত হলেও এবিষয়ে পশ্চিমবঙ্গের গণমাধ্যম করছে রহস্যজনক আচরণ। সেখানকার ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের কোনো নেতা কিংবা সরকারের দায়িত্বশীল কেউই এখন অব্দি স্বীকার করেননি হত্যাকাণ্ডের বিষয়টা। বরং ওরা সবাই আকারে-ইঙ্গিতে বোঝাতে চাইছেন – আওয়ামীলীগের সংসদ সদস্য, যার বিরুদ্ধে ২০০৮ সালে ইন্টারপোল রেড নোটিশ জারি করে এবং যিনি চোরাচালানসহ নানা অভিযোগে অভিযুক্ত তিনি আদতে স্বেচ্ছায় কলকাতার বিলাসবহুল এপার্টমেন্ট থেকে আত্মগোপনে গেছেন কিংবা তাঁকে অপহরণ করে কোথাও আটকে রাখা হয়েছে। আর, তৃণমূল নেতা এবং ওদের আজ্ঞাবহ গণমাধ্যমের এই দাবির আগুনে ঘি ঢেলে দিয়েছেন জার্মান টিভি চ্যানেল ডয়েচে ভেলে’র জনপ্রিয় উপস্থাপক খালেদ মহিউদ্দিন। তিনিও নানাভাবেই চেষ্টা করেছেন খুনের এই ঘটনা ভিন্নদিকে ঘুরিয়ে দিতে।

এদিকে, কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা, যেটি কোনো ঘটনা ঘটলে একের-পর-এক রিপোর্ট প্রকাশে দারুণ পারঙ্গম, ওই পত্রিকাও শহরের অভিজাত এলাকায় ঘটে যাওয়া আনার হত্যাকাণ্ড নিয়ে তেমন কিছুই বলছেনা। কারণ, একজন বিদেশী আইন প্রণেতার এই হত্যাকাণ্ডের ফলে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চরম অসস্তিতে পড়েছেন। এই একটা ঘটনার মাধ্যমেই প্রমাণিত হয়ে যাবে, তৃণমূল কংগ্রেস সরকার আইন শৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এবং মানুষের জীবনের নিরাপত্তা দিতে কতোটা ব্যর্থ। আর এই বিষয়টাকে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ ভারতীয় জনতা পার্টি বেশ ভালোমতোই নির্বাচনী হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করবে। বিদেশী পর্যটকদের মনেও কলকাতা সম্পর্কে এক ধরনের ভীতির সঞ্চার হবে। এরইমাঝে জমজমাট এর অনুসন্ধানী একটা রিপোর্টে বলা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে অসংখ্য মধুফাঁদ আছে যেখানে যারা যান এদের সবার ভিডিও গোপনে ধারণ করে পরবর্তীতে ব্ল্যাকমেইল করা হয়।

অন্য একটা সূত্র বলছে, বাংলাদেশের অন্তত কয়েক হাজার পুরুষ কলকাতা শহরে বেড়াতে কিংবা অন্যকোনো কাজে গিয়ে ওসব মধুফাঁদে পা রেখে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের শিকার হয়ে এখন প্রতিমাসেই নির্দিষ্ট অংকের টাকা দিতে বাধ্য হচ্ছেন। পশ্চিমবঙ্গের ওই মধুফাঁদগুলোর পেছনে থাকা অপরাধীচক্র ব্ল্যাকমেইলিংয়ের শিকার বাংলাদেশীদের কাছ থেকে প্রতিমাসে পাঁচ থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকা আদায় করছেন। আর এসব অর্থ আদায়ে বাংলাদেশেই নিযুক্ত আছে ওদের এজেন্ট, যারা বিকাশ কিংবা নগদের মাধ্যমে টাকা তুলে এগুলো হুন্ডির মাধ্যমে ভারতে পাঠিয়ে দেন। বিনিময়ে ওরা পান নির্দিষ্ট অংকের কমিশন।

আরো জানা গেছে, পশ্চিমবঙ্গের ওই মধুফাঁদগুলোয় কেবল বাংলাদেশের নাগরিকরাই নন, ওখানে গিয়ে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের শিকার হচ্ছেন অন্য দেশের নাগরিকরাও, যাদের কাছ থেকেও প্রতিমাসে নির্দিষ্ট অংকের টাকা আদায় করা হয়।

সূত্র বলছে, পশ্চিমবঙ্গের ওসব মধুফাঁদের সাথে বাংলাদেশের বিনোদন জগতের কিছু অভিনেত্রী এবং মডেলও জড়িত, যারা নানা কৌশলে টার্গেট করা পুরুষদের কলকাতায় নিয়ে গিয়ে মধুফাঁদের জালে আটক করেন। এরপর প্রতিমাসে আদায়কৃত টাকার অর্ধেক ওরা কমিশন পান। আর এভাবেই, ওসব অভিনেত্রী কিংবা মডেলরা প্রতিমাসে লাখলাখ টাকা আয় করছেন। মধুফাঁদে আটকা পড়া পুরুষরা যেহেতু এসব বিষয় নিয়ে আইনি কোনো ব্যবস্থা নেননা, একারণে বিষয়গুলো থেকে যাচ্ছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর নজরের বাইরে। এমন কথাও শোনা যায়, ওসব মধুফাঁদে আটকা পড়াদের মাঝে পদস্থ সরকারি কর্মকর্তাও আছেন, যাদের কাছ থেকে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের মাধ্যমে নগদ টাকার বদলে বিভিন্ন কাজ করিয়ে নেয়া হয়।

এমপি আনার বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকার কেনো রহস্যজনক আচরণ করছে – কেনোই বা বিষয়টা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে, এ প্রসঙ্গে অনেকেই বলছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসন চাইছে সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনারের হত্যাকাণ্ডকে আত্মগোপন হিসেবে চালিয়ে দিতে। যদিও এক্ষেত্রে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয়ার কিংবা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা শেষতক তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের জন্যেই বুমেরাং হয়ে দাঁড়াতে পারে। কারণ, এরই মাঝে বিভিন্ন গণমাধ্যম দাবী করছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের “অযোগ্যতা” এবং ব্যর্থতার ফলে কলকাতা শহরই কেবল অপরাধ আর অপরাধীদের রাজধানীতে পরিণত হয়নি, এসব অপকর্মের পেছনে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে তৃণমূল কংগ্রেসের অনেক নেতার সম্পৃক্ততার অভিযোগও উঠছে।

এদিকে কেউকেউ বলছেন, যেহেতু আনোয়ারুল ওই এপার্টমেন্টে যাওয়ার আগে সাড়ে চার লাখ ভারতীয় রুপি সঙ্গে নিয়ে যান, এক্ষেত্রে আতকে ওঠার মতো কোনো তথ্যও সামনে চলে আসতে পারে। কারণ, বাংলাদেশের কিছু পত্রিকা গোয়েন্দা সূত্রের বরাত দিয়ে বলছে, ওই টাকা আনার নিয়ে গেছেন স্বর্ণের বার কেনার উদ্দেশ্যে। এই তথ্য সঠিক হলে স্বাভাবিক কারণেই প্রশ্ন জাগবে – এতো অল্প টাকার স্বর্ণ কেনার জন্যে কেনো তিনি নিজেই গেলেন। পাশাপাশি আরেকটা প্রশ্ন সামনে আসবে। এমপি আনার ওই সাড়ে চার লাখ ভারতীয় রুপি তাঁরই বন্ধু গোপাল বিশ্বাসের কাছ থেকে আনেন। গোপাল বিশ্বাস কোন্ কারণে এতো টাকা ব্যাংকের বদলে তাঁর বাড়িতে রাখলেন এই প্রশ্ন সামনে এলে এটাও হয়তো তদন্তকারীরা জানতে চাইবেন, গোপাল বিশ্বাস আদতে কে। তিনি কি এমপি আনারের বন্ধু নাকি ক্যাশিয়ার। নাকি ইনিও আলোচিত ওই সংসদ সদস্যের নানা অপকর্মের সক্রিয় অংশীদার। এখানে উল্লেখ করা দরকার, এমপি আনারের বিরুদ্ধে অস্ত্র, মাদক ও স্বর্ণ চোরাচালানের অভিযোগের পাশাপাশি অবৈধ হুন্ডি ব্যবসার অভিযোগ আছে।

এমপি আনার নিখোঁজ মামলায় এরই মাঝে সন্দেহভাজন বেশ ক’জনকে বাংলাদেশ ও ভারতে গ্রেফতার কিংবা আটক করা হয়েছে। এদের মাঝে সবচেয়ে আলোচিত কসাই জিহাদ এবং এই ঘটনার নাটেরগুরু মার্কিন নাগরিক আক্তারুজ্জামান শাহিনের মেয়েবন্ধু শিলাস্তি রহমান। পুলিশের কাছে শিলাস্তি যেসব তথ্য দিচ্ছেন এর সবই ঘটনা ভিন্নখাতে ঘুরিয়ে দেয়ার সূক্ষ্ম চেষ্টা। হতে পারে গ্রেফতার হোয়ার আগে শিলাস্তি তার ছেলেবন্ধু শাহিনের সাথে কথা বলেছেন এবং শাহিনই তাকে পুলিশের কাছে কি বলতে হবে তা শিখিয়ে দিয়েছেন।

গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান হারুনুর রশিদের বরাত দিয়ে ঢাকার গণমাধ্যম বলছে, শিলাস্তি দাবী করছেন এমপি আনার-কে হত্যার কোনো পরিকল্পনাই নাকি ছিলো না। ওদের উদ্দেশ্য ছিলো, বিলাসবহুল এপার্টমেন্টে তাকে নিয়ে জোর করে অন্তরঙ্গ কিছু ভিডিও ধারণ করে এগুলোর মাধ্যমে পরবর্তীতে ব্ল্যাকমেইলিং করে মোটা অংকের টাকা আদায়। শিলাস্তি নিজেও জানতেন ওদের শিকার একজন ভিআইপি এবং বিত্তবান লোক।

কিন্তু, শিলাস্তির এই বক্তব্য যে ডাহা মিথ্যে এটার প্রমাণ হলো ১৩ মে তারিখে কলকাতার ওই ফ্ল্যাটে কসাই জাহিদের উপস্থিতি। কারো নগ্ন কিংবা অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ধারণ করতে একজন পেশাদার কসাইকে কেনো রাখা হলো? এই প্রশ্নটা গোয়েন্দারা শিলাস্তি রহমানকে করেছেন কিনা আমার জানা নেই। তবে, তার সম্পর্কে ভয়ঙ্কর কিছু তথ্য আমার কাছে একটা সূত্র থেকে এসেছে। বলা হচ্ছে, পারিবারিক অশান্তির শিকার শিলাস্তি বহু বছর থেকেই অপরাধ জগতে জড়িয়েছেন। নানা পন্থায় ফুঁসলিয়ে বিভিন্ন ধনাঢ্য ব্যক্তিকে তিনি কলকাতায় নিয়ে গেছেন এবং একাধিক ব্যক্তিকে মধুফাঁদে আটক করে নিয়মিত টাকা আদায় করছেন। পশ্চিমবঙ্গের অপরাধ জগতের সাথেও তার ঘনিষ্টতা আছে।

নির্ভরযোগ্য একটা সূত্রের দাবি, ঢাকা শহরে বিভিন্ন অপরাধ সিন্ডিকেটের সাথে যুক্ত যে ক’জন অভিজাত সোসাইটি গার্ল আছেন শিলাস্তি এদের অন্যতম। বিত্তবান পুরুষদের শয্যাসঙ্গী হোয়ার পাশাপাশি মধুফাঁদের জালে ফেলে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের মাধ্যমে টাকা আদায়সহ তিনি মাদক ও স্বর্ণ চোরাচালান, অবৈধ অস্ত্র নির্দিষ্ট ক্রেতার কাছে পৌঁছে দেয়া এবং হুন্ডির টাকা আনা-নেয়ার কাজেও তিনি জড়িত। শিলাস্তি-কে ঠিকমতো জিজ্ঞাসাবাদ করা গেলে এসব বিষয়ে অনেক তথ্য জানা যাবে। আরো জানা যাবে ঢাকা শহরের আর কোন্ কোন্ নারী এসব অপরাধচক্রের সাথে যুক্ত কিংবা আর কারা-কারা কলকাতা তথা পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মধুফাঁদগুলোয় যাওয়া-আসা করেন।

সরকারদলীয় এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যাকাণ্ডের রহস্য সঠিকভাবে উন্মোচিত হলে আরো অনেক লোমহর্ষক কিংবা ঝড় তোলা তথ্য হয়তো আমাদের সামনে আসবে।

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একাধিক পুরস্কারপ্রাপ্ত জঙ্গিবাদ বিরোধী সাংবাদিক, কাউন্টারটেররিজম বিশেষজ্ঞ, রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও প্রভাবশালী ইংরেজি পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ