বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

‘ন ডরাই’ চিত্রনাট্যকার নিয়ে ধোঁয়াশা, ‘ফাগুন হাওয়া’য় ৫২’র ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২০

চলচ্চিত্র শিল্পে গৌরবোজ্জ্বল ও অসাধারণ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ২০১৯ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘোষিত হলো সম্প্রতি। সুস্থ এবং সুষ্ঠ ধারার চলচ্চিত্র ও চলচ্চিত্রকর্মীদের জন্য জাতীয় পুরস্কার সব সময়ই প্রেরণার। যদিও প্রতিবছরই পুরস্কার ঘোষণার পর পক্ষে বিপক্ষে কম-বেশী নানা রকম বক্তব্য উঠে আসে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

‘ন ডরাই’ এর চিত্রনাট্যকার কে?

অভিযোগ উঠেছে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, পরিচালক, অভিনেত্রী সহ একাধিক পুরস্কার প্রাপ্ত ‘ন ডরাই’ চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্য করেছেন ভারতের (কলকাতা) জনপ্রিয় চিত্রনাট্যকার শ্যামল সেনগুপ্ত। অথচ চিত্রনাট্যকার হিসেবে পুরস্কার পাচ্ছেন প্রযোজক মাহবুব উর রহমান। চলচ্চিত্রটির আইএমডিবি এবং উইকিপিডিয়াতেও চিত্রনাট্যকার হিসেবে শ্যামল সেনগুপ্তের নাম রয়েছে। যদিও ‘ন ডরাই’ সিনেমার ট্রেইলারে লেখক হিসেবে দেখা যাচ্ছে শ্যামলের নাম। এ ব্যপারে সকলের বক্তব্য সহ বিস্তারিত সংবাদ প্রকাশ করেছে NEWSNEXTBD.COM নামের অনলাইন সংবাদ মাধ্যম। সেখান থেকে জানা যায়, শ্যামল সেনগুপ্ত ২০১৬ সালে ৩ মাস সময় নিয়ে গল্পটি লিখেন এবং বছরের শেষ বাংলাদেশে এসে টানা ৬ দিন কক্সবাজার অবস্থান করেন। এ সময় প্রযোজক, নারী সার্ফার নাসিমাকে নিয়ে নির্মিত বিভিন্ন ডকুমেন্টারী এবং কক্সবাজার বিষয়ক কিছু বই তাকে দেন। দেশে ফিরে তিনি এক বছর সময় নিয়ে চিত্রনাট্য তৈরি করেন। যদিও শ্যামল অভিযোগ করেন, সিনেমার শুটিং শুরু বা সিনেমা মুক্তির ব্যাপারে তাকে কিছুই জানানো হয়নি।

এমন গুরুতর অভিযোগের কথা জানার পরও জুরি বোর্ডের সদস্য সচিব ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সরবোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জসীম উদ্দিন ব্যপারটা খতিয়ে দেখার কোন আগ্রহ দেখান নি। তবে ভয়াবহ এক যুক্তি দিয়ে বলেছেন, প্রযোজক যেহেতু চট্টগ্রামের মানুষ এবং কক্সবাজার তার নিয়মিত আসা-যাওয়া, অন্যদিকে চট্টগ্রামের ভাষা কলকাতার মানুষের পক্ষে জানা সম্ভব না। যে কারণে তিনি মনে করেন না যে, এই অভিযোগ সত্য। হতাশা জাগে তখনই, যখন চলচ্চিত্রে ব্যবহৃত ভাষা আর চিত্রনাট্য দুটো যে দু জিনিস এই সহজ ব্যপারটাও জুরিবোর্ডের অজানা।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালে সরকারী অনুদানে নির্মিত ‘বৃহন্নলা’ চলচ্চিত্রটির কাহিনী পশ্চিমবঙ্গেও সাহিত্যিক মুস্তাফা সিরাজের ছোটগল্প ‘গাছটি বলেছিল’ থেকে নেয়া হলেও মুরাদ পারভেজ কাহিনীকার হিসেবে নিজের নাম দিয়েছিলেন। ফলে তিনি শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, শ্রেষ্ঠ গল্প এবং সংলাপ বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেলেও পরে তা বাতিল করা হয়।

‘ফাগুন হাওয়া’ এবং ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস বিকৃতি:

এবারের শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসেবে পুরস্কার পাওয়া ‘ফাগুন হাওয়া’ সিনেমাটির কাহিনী নেয়া হয়েছে টিটো রহমানের ‘বউ কথা কও’ নামক ছোট গল্প থেকে অনুপ্রাণীত। যদিও সিনেমাটিতে দুটো দৃশ্যের খুব ছোট একটি অংশে মূল গল্পের কিছু পাওয়া গিয়েছে। সিনেমার প্রেক্ষাপট একটি কাল্পনিক শহরে ভাষা আন্দোলনের সময়কার গল্প নিয়ে। সিনেমার শেষাংশে দেখানো হয়েছে ভাষা আন্দোলনে জড়িত একজন কর্মী আন্দোলন চলাকালে পাকিস্তানী বাহিনীর গুলিতে মারা গেলে পুরো এলাকাবাসী তার রক্তমাখা জামা নিয়ে ‘রাষ্ট্র ভাষা বাংলা চাই’ মিছিলে নেমে আসে। আর ভয়াবহভাবে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস বিকৃত হয়েছে ঠিক এই জায়গাটাতে। কারণ ৫২’র ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায় শুরু থেকে শেষ পুরোটা সময় জুড়ে ঢাকার বাইরে কেউ কোথাও শহীদ হোন নি। এখন যদি বলা হয় যে, এটা কাল্পনিক কাহিনী, তাতেও এখানে ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ দূর হবে না। কাল্পনিকভাবে ঢাকার বাইরের নানান স্থানের প্রস্তুতি আসতে পারে। কারণ একাধিক শহর এবং বিভাগীয় শহরে ভাষা আন্দোলন হয়েছিল। কিন্তু শহীদ কোনভাবেই নয়।

অনেক জেষ্ঠ্য, গুণী এবং মেধাবী মানুষ জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জুরিবোর্ডের সদস্য ছিলেন। ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসের সবচেয়ে সরল হিসেবের জায়গাটি সম্পর্কে একজনও জানেন না, এটা মেনে নেয়া কষ্টকর। বাঙ্গালী জাতির ইতিহাসের অন্যতম ঘটনা এবং ভাষার জন্য জীবন দেয়া পৃথিবীর একমাত্র ঘটনার এমন বিকৃতির পরও সিনেমাটি শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র হিসেবে ঘোষণা, আগামী প্রজন্মকে ভুল বার্তা শেখাবে বলে মনে করি। আমাদের রাষ্ট্র থেকে ইতিহাস, আমাদের ঐতিহ্য, আমাদের সমাজ, আমাদের সংগ্রাম-লড়াইয়ের গল্পকে প্রাধান্য দিয়েই প্রতি বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং অনুদান প্রদান করা হয়। কিন্তু যারা তা নির্ধারণ করবেন, তাদের সর্বোচ্চ সতর্কতা সব সময়ই কাম্য।

এবং একটি অবাস্তব ঘটনা:

অন্যদিকে মাসুদ পথিকের চলচ্চিত্র ‘মায়া: দ্যা লস্ট মাদার’ সর্বোচ্চ ১০ টি পুরস্কার পেলেও শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র কিংবা পরিচালক কোনটাই পায় নি। অথচ একটা সিনেমার ভাল-মন্দ সবকিছুই একজন নির্মাতার পছন্দ এবং সিদ্ধান্ত। তার মানে যে ১০ টি পুরস্কার মায়া পেয়েছে সেগুলোর ব্যপারে পরিচালক সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছিলো। সেই সিদ্ধান্তের মূল্যায়ন হলেও, পরিচালক হলো অবমূল্যায়িত! নাকি ১০ টি পুরস্কার ইস্যুটাই প্রশ্নবিদ্ধ হওয়া উচিত! জয় হোক বাংলাদেশী চলচ্চিত্রের। জয় হোক সবার।

লেখক: মিডিয়াকর্মী

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ