সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:০১ অপরাহ্ন
Uncategorized

সিনেমা আর জীবন!

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ৩ আগস্ট, ২০২০

সুমন ধর

সিনেমা আর জীবন যেনো আমাদের সমাজ বিজ্ঞানের সাথে মিশে আছে। প্রতিটি দেশের গল্প আর সম্পর্কের টানাপোড়ন বোঝা যায় সেই দেশের চলচ্চিত্র দেখলে। চলচ্চিত্র সময়ের কথা বলে, চলচ্চিত্র জীবনের কথা বলে, চলচ্চিত্র সেই দেশের উন্নয়নের কথা বলে। প্রতিটি মানুষকে ঘুরে ফিরে কম-বেশি দার্শনিক করে তোলে চলচ্চিত্র। জীবনের একটি অংশ হলো চলচ্চিত্র!

সম্পাদক তার জবানবন্দিতে অনেক কিছু বলতে গেলেও থেমে যায় আজকের এই রুপ দেখে। আমিতো আমার অবস্থান থেকে আমার সমাজের চলচ্চিত্র দেখেই বড় হয়েছি, প্রেমে পরেছি। আজ নেমেছি দু-পায়ে। মানুষের চিন্তার স্ফুরণ, সময়ের তুলনায় এগিয়ে থাকা সামাজিক চেতনা, ভবিষ্যতের দিক-নির্ণয়, কালজয়ী কর্মজীবন এবং ক্ষণজন্মা প্রতিভার সমন্বয়ে গোটা বিশ্বকে এগিয়ে নিয়ে যায় চলচ্চিত্র।

করোনায় হঠাৎ করেই থেমে গেছে বিশ্ব। সাথে সব কিছুর সাথে থেমে গেছে চলচ্চিত্রও। সময়ের কারনে আস্তে-আস্তে সব খুলে গেলেও থেমে আছে সিনেমা অঙ্গন। চলচ্চিত্র থেমে থাকলেও থেমে নেই ডিজিটাল প্লাটফর্মের জগত।

সময়ের সাথে আজ বিশ্ব যখন এগিয়ে যাচ্ছে তাদের নিজ নিজ ভাষার চলচ্চিত্র নিয়ে তখন আমরা সময়ের সাথে পিছিয়ে আছি। আমরা থেমে আছি অর্থের জন্য। যারা সত্যিকার অর্থে সিনেমাটা বানাতে চায়, তারা সিনেমাটা বানাতে পারছেনা। চোখটা বন্ধ আছে কালো বাক্সে। প্রতিবছর সরকার চলচ্চিত্রকে সচল রাখতে অনুদান দেয়। আসলে দিন শেষে, সেই সিনেমা কয়টা পর্দা পর্যন্ত আসে? সেই সিনেমা কি দর্শক দেখতে পায়? যে পর্দা সচল রাখার এই আশীর্বাদ, আধোকি আশীর্বাদ রুপে আছে। উনিশ শতক ও বিংশ শতাব্দী জুড়ে বাংলার মননে যে বৈপ্লবিক আলোড়ন ঘটে গিয়েছিল, যাকে আমরা অনেকেই ‘বাংলার নবজাগরণ’ বলে থাকি, তার অভিমুখ কি আজ আছে?

আমরা এখনো সিনেমা দেখতে ভালোবাসি আর সেই জন্য মাঝে মাঝে ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প তৈরি হয়। তবে এমন একটা-একটা চলচ্চিত্র দিয়ে ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব নয়। সম্ভব সবাই এক হয়ে চলচ্চিত্রের স্বার্থে বাংলা ছবিকে বিশ্বের দরবারে নিয়ে যাওয়া। যেখানে থাকবেনা কোন কালো ছায়া, থাকবেনা কোন লোভ, থাকবেনা কোন হিংসা, থাকবেনা কোন দল, থাকবেনা কোন তেলবাজ, শুধু থাকবে চলচ্চিত্রের প্রতি ভালোবাসা। আজ যদি আমরা না জাগি তাহলে সকাল হলে দেখবো বিদেশি বংশ স্বদেশকে গিলে ফেলেছে।

যে দেশের মানুষ ভাষার জন্য প্রান দিয়েছে সেই দেশের সিনেমা আজ ঘুম ঘরে বন্দি হচ্ছে। তবুও আশায় জেগে উঠি কিছু মানুষের আশার প্রদিপ দেখে। অলঙ্করণ, কস্টিউম ও গ্রাফিক ডিজাইনিং, চিত্রনাট্য ও সাহিত্যরচনা, সম্পাদনা অথবা সুরসৃষ্টির মতো চারুকলার বিভিন্ন পরিসরে তাঁর অবাধ ও দক্ষ চলাচল আধুনিক চলচ্চিত্রকে এগিয়ে নেয়। আমার বিশ্বাস আবার ঘুরে দাঁড়াবে আমাদের চলচ্চিত্র। কারন যারা সত্যি ভালোবেসে চলচ্চিত্রকে লালন করেন তারা আবার ফিরছেন। জয় হোক বাংলা ভাষার বিশ্ব দুয়ারে বাংলা সিনেমা।

(সুমন ধর গল্পকার ও নির্মাতা)

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ