শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩০ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট আইনের খসড়া অনুমোদন

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট, ২০২০

চলচ্চিত্রকে বলা হয় সমাজের দর্পণ। যে আয়নায় ফুটে উঠে সমাজ জীবনের হাসি-কান্না, দুঃখ-বেদনা ও চাওয়া না পাওয়া কথা। সিনেমা আর জীবন যেনো আমাদের সমাজ বিজ্ঞানের সাথে মিশে আছে। প্রতিটি দেশের গল্প আর সম্পর্কের টানাপোড়ন বোঝা যায় সেই দেশের চলচ্চিত্র দেখলে। চলচ্চিত্র সময়ের কথা বলে, চলচ্চিত্র জীবনের কথা বলে, চলচ্চিত্র সেই দেশের উন্নয়নের কথা বলে। আর দেশীয় চলচ্চিত্রকে শিল্পে পরিণত করতে ১৯৫৭ সালের ৩রা এপ্রিল তৎকালীন শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান প্রাদেশিক পরিষদে উদ্বোধন করেন চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনটি। আর বর্তমান সরকারের সময়ে চলচ্চিত্র পায় শিল্পের স্বীকৃতি। দেশের চলচ্চিত্র শিল্পীদের সার্বিক কল্যাণ ও পেশাগত দক্ষতা বাড়ানোর লক্ষ্যে মন্ত্রি পরিষদের বৈঠকে নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয় ‘বাংলাদেশ চলচ্চিত্র কল্যাণ ট্রাস্ট আইন, ২০২০’।

সোমবার (১০ আগস্ট) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয় থেকে ছয়জন মন্ত্রী এ ভার্চ্যুয়াল বৈঠকে অংশ নেন। মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে এ কথা জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, ২০১৭ সালের ২৪ জুলাই প্রধানমন্ত্রী জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্পীদের কল্যাণে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট নামে একটি ট্রাস্ট গড়ার নির্দেশনা দিয়েছিলেন। সেই মোতাবেক তথ্য মন্ত্রণালয় সব আনু্ষ্ঠানিকতা শেষ করে এ আইনের খসড়া উপস্থাপন করেছে। এর মূল উদ্দেশ্য হলো- চলচ্চিত্র শিল্পীদের কল্যাণ সাধণ, পেশাগত কাজ করতে অক্ষম, অসমর্থ ও অসচ্ছল চলচ্চিত্র শিল্পীকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া, অসচ্ছল ও অসুস্থ চলচ্চিত্র শিল্পীর চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহযোগিতা দেওয়া এবং কোনো চলচ্চিত্র শিল্পীর মৃত্যু হলে তার পরিবারকে প্রয়োজনীয় সহায়তার ব্যবস্থা করা।

ট্রাস্টের জন্য একটি বোর্ড থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, বোর্ডের চেয়ারম্যান থাকবেন তথ্যমন্ত্রী। আর ১৩ জনের বড় একটি টিম আছে, তারা ট্রাস্টের সব কিছু দেখাশোনা করবেন। ট্রাস্টের একজন এমডি থাকবেন, তিনি হবেন নির্বাহী প্রধান। তারা তাদের নিজস্ব ফান্ড ও সরকারের দেওয়া ফান্ড নিয়ে ট্রাস্ট পরিচালনা করবেন। তারা বিভিন্ন জায়গা থেকে ঋণ বা গ্র্যান্টও নিতে পারবে। সে ক্ষেত্রে সরকারের অনুমতি নিতে হবে, যাতে এমন কোনো ঋণ নেওয়া না হয়, যা পরবর্তী সময়ে রাষ্ট্রের ওপর চেপে বসে।

শিল্পীরা তাদের সুবিধা অনুযায়ী আয় বর্ধক বিভিন্ন কার্যক্রমও চালাতে পারবেন এবং এখান থেকে যে টাকাটা তাদের মুনাফা থাকবে, সেটা দিয়ে ওপরের পাঁচটি ক্ষেত্রে চলচ্চিত্র শিল্পীদের সহায়তা করতে পরবেন, যোগ করেন সচিব। মন্ত্রিপরিষদ সচিব আরো জানান, কোনো চলচ্চিত্র শিল্পী যদি মারা যান, তাদের ওপর নির্ভরশীলরাও যাতে সহায়তা পান, সে ব্যবস্থাও আইনে রাখা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ