শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ১১:৫১ অপরাহ্ন

জীবন নাশের হুমকির মুখে অপূর্ব-মেহজাবিন

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪

তাজুল ইসলাম

জিয়াউল ফারুক অপূর্ব, বাংলা নাটকের একজন জনপ্রিয় অভিনেতা। শুধু বাংলাদেশ ও কলকাতায় নয়, পৃথিবীর যেখানেই বাংলা ভাষাভাষী রয়েছেন এবং যারা বাংলা নাটক দেখেন তারা অপূর্বকে চেনেন – তাঁর নাটক দেখেন। প্রায় এক যুগেরও বেশি সময় নিজের মেধা ও পরিশ্রমে অপূর্ব অর্জন করেছেন আজকের এই অবস্থান। একই ভাবে মেহজাবিনও বাংলা নাটকের শীর্ষ জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের মধ্যে একজন। দেশে ও দেশের বাইরে তাঁদের জনপ্রিয়তা সমানভাবেই ঈর্ষনীয়।

অথচ, হইচই প্লাটফর্ম ও কলকাতার অঞ্জলি জুয়েলার্স এর বিজ্ঞাপনে মডেল হবার ‘অপরাধে’ আজ অপূর্ব সাইবার সন্ত্রাসের শিকার। ওদিকে প্যারাসুট নারিকেল তেলের বিজ্ঞাপনের মডেল হওয়ায় মেহজাবিনও একই ’অপরাধ’ অপরাধ’। এমনকি দুজনকেই এই ‘অপরাধের’ দায়ে প্রাণনাশের হুমকিও দেওয়া হয়েছে। অথচ, এবিষয়ে বাংলা নাটকের কলাকুশলী হতে শুরু করে পুরো মিডিয়া জগতের সদস্যরা এমনকি বিনোদন সাংবাদিকরাও টু শব্দও করছে না। কেন?

ক্ষমতাসীন সরকার ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ক্রমাগত অপপ্রচারকারী পিনাকী ভট্টাচার্য ”যৌন উত্তেজক” ভুয়া-নকল ঔষধ ও ইয়াবা ব্যবসার অপরাধে দেশ হতে পালিয়ে ফ্রান্সে রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থী হিসেবে অবস্থান করে নিজে এখন তথাকথিত বাংলাদেশের একশ্রেণীর মানুষের “ত্রাণকর্তা” বনে গেছেন। ইউটিউবসহ অন্যান্য সামাজক যোগাযোগ মাধ্যমে রাতদিন নানা কিচ্ছা কাহিনী শুনিয়ে এবং হাতিঘোড়া মেরে পিনাকী প্রতিমাসেই কোটি টাকার বেশী কামাই করছেন ওনার ভক্তকূলকে বোকা বানিয়ে। গত কয়েক বছরে ধরেই পিনাকী ক্রমাগত দাবী করেছেন – শেখ হাসিনার সরকার নাকি যেকোনো মুহূর্তে পড়ে যাবে – ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বিদেশে পালাবেন ইত্যাদি। ঠিক ফুটপাতে যেভাবে বানরের খেলা দেখিয়ে শ্রীপুরের বড়ি বিক্রি করতেন কিছু লোক, এখন ঠিক একই পন্থায় নানা গুজব ছড়িয়ে লাখলাখ মানুষকে উস্কানি দিয়ে ধূর্ত পিনাকী চালিয়ে যাচ্ছেন ওনার কোটি টাকার অনলাইন বানিজ্য।

ফ্রান্সে বসে নিজের ফেসবুক পেইজ ও ইউটিউবে সরকার বিরোধী অপপ্রচার করতে করতে এবার মিডিয়া কর্মী তথা অপূর্ব, মেহজাবিন, শরাফত আহমেদ জীবনের মতো খেটে খাওয়া শিল্পীদের পেছনে লেগেছে এই দূর্বৃত্ত। সস্তা বাচনভঙ্গিতে অভ্যস্থ পিনাকী জনপ্রিয় অভিনেতা অপূর্ব, মেহজাবিনকে যে ধরনের ভাষা ব্যবহার করে হুমকি-ধমকি দিয়েছে তা খুবই আপত্তিজনক এবং সাইবার অপরাধ। প্রকাশের অযোগ্য ভাষার ব্যবহার, বিকৃত অঙ্গভঙ্গি পিনাকী’র প্রতিটা কন্টেন্ট এর মূল হাতিয়ার-এটা সবারই জানা। নিজের স্বার্থউদ্ধারের অপচেষ্টায় লিপ্ত পিনাকী তার ‘ইন্ডিয়া আউট’ আন্দোলন এর পরিপন্থী বলে আখ্যা দিয়ে অপূর্ব, মেহজাবিনকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল দিয়ে যেভাবে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছে তা রীতিমতো ভয়নাক ও অসম্মানজনক। শিল্পীদের সাথে এধরনের ধ্রিষ্টতা দেখানোর সাহস পায় কিভাবে এই বদমাশ? শিল্পীদের সংগঠন কিংবা সদ্য গজিয়ে ওঠা কিছু হাইব্রিড নেতা কেনো এসব বিষয়ে জোড়ালো প্রতিবাদ করছেন না?

এতোকাল ধরে জেনে এসেছি শিল্প ও শিল্পীদের কোন সীমানা প্রাচীর নেই। জাত-পাত, ধর্ম-বর্ণ, দেশের সীমানা গন্ডি পেড়িয়ে তাঁরা সবার। অথচ পিনাকী তার ভাষায় তার “ক্ষুদ্র ভ্রাতা-ভগ্নিদের” উদ্দেশ্য করে অপূর্ব ও মেহজাবিন সম্পর্কে “ভরে দেয়ার” মতো সন্ত্রাসী গোছের শব্দ ব্যবহার করে যে আহবান করলো, তার দায়ভার কে নেবে? এখন পিনাকীর ওই ভক্তকূলের কেউ যদি অপূর্ব কিংবা মেহজাবিনের জীবন নাশের অপচেষ্টা চালায় এর দায়ভার তো অবশ্যই পিনাকীর ওপর বর্তাবে। কিন্তু আমরা কি মূর্খের মতো ওই ধরণের কোনো চূড়ান্ত পরিণতির অপেক্ষায় থাকবো? এক্ষেত্রে অপূর্ব, মেহজাবিনেরই বা কী করণীয়? আমাদের মিডিয়া কর্মীদের কি মনোভাব? অভিনয় শিল্পী সংগঠন বা এফটিপি কি পদক্ষেপ নিলো বা নিয়েছে সেটাই দেখার বিষয়। যদিও অনেকের মতোই আমারও সন্দেহ এধরণের এক ভয়ঙ্কর পরিস্থিতে ওনারা আদতেই কিছু করবেন কিনা। সম্প্রতি রাষ্ট্রপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদের সন্তান আরশাদ আদনান টেলিপ্যাব-এর সভাপতি হয়েছেন। তিনি চাইলেই তো এবিষয়ে শক্ত আইনী ব্যবস্থা নিতে পারেন। ফরাসী রাষ্ট্রদূতের সাথে দেখা করে বিষয়টা তাঁকে জানাতে পারেন। করবেন তিনি এটা?

অপূর্ব, মেহজাবিন, শরাফত আহমেদ জীবন এরা সবাই পেশাগতভাবে শিল্পী। এদেরকে নিশ্চয় ফ্রান্সে বসবাসরত বাংলাদেশিরাও খুব ভালো করেই চেনে। তারা কি তাদের প্রিয় শিল্পীদের ওপর পিনাকীর এই হুমকি মেনে নেবেন? ফ্রান্সে বাংলাদেশের দূতাবাসেরও তো উচিৎ, পিনাকী’র এহেন ঘৃন্য অপরাধমূলক কার্যকলাপের বিরুদ্ধে ইউরোপীয় আইনানুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা।

পিনাকী’র এই হুমকি আমাদের মিডিয়ার অধিকাংশই পাত্তা দেবে না। কিন্তু এই বিষয়টি মোটেও ছোটখাটো বিষয় নয়। অতীতে বাংলাদশে এমন ঘটনার নজির আছে। মাত্র কয়েক বছর আগে এমনই হুমকি ধমকিতে পাত্তা না দেওয়ায় জঙ্গি গোষ্ঠীর নৃশংস হামলার শিকার হয়ে প্রান দিতে হয়েছে মার্কিন নাগরিক অভিজিৎ রায়কে। এক্ষেত্রে এমনটা ঘটার আশংকা আছে। কারন, পিনাকী নিজেও একজন ধর্মত্যাগী নব্য মুসলিম সন্ত্রাসী এবং তার সমর্থকগনও সরকার বিরোধী, ভারতবিরোধী ষড়যন্ত্রকারী জঙ্গিবাদী।

অভিনেতা অপূর্ব, মেহজাবিন, শরাফত আহমেদ জীবন-এর উচিৎ নিজেদের জীবনের নিরাপত্তাকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে থানায় সাধারন ডায়েরী করা। আর অভিনয় শিল্পীদের সংগঠনসহ দেশের চলচ্চিত্র ও নাট্যাঙ্গনের সকল সংগঠনের উচিৎ এই ধরনের ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে, প্রাননাশের হুমকি ও সাইবার আক্রমনের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহনে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ