রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১২:৩০ পূর্বাহ্ন

ঈদুল আযহার বক্সঅফিসে শাকিবের ‘তুফান’ নাকি বুবলির ‘রিভেঞ্জ’ কে জিতবে?

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৬ জুন, ২০২৪

তানজিল আহমেদ জনি

বিগত এক দশক ধরে ঢাকাই সিনেমা মানেই চিত্রনায়ক শাকিব খান। শাকিব খান মানেই যেনো প্রযোজক, পরিচালক , হল মালিক, সিনেমা প্রদর্শক ও বুকিং অ্যাজেন্টদের একমাত্র আস্থার নাম। শাকিব খানকে ঘিরেই যেন সিনেপাড়ার সব আয়োজন, সব সওদাগিরি। সেই ধারাবাহিকতায় বিগত এক দশকে বক্সঅফিসে শাকিব খানের একক দাপটে হারিয়ে গেছে ঢাকাই সিনেমার অনেক নবাগত ও সম্ভাবনাময় নায়ক এবং সফলতার আকাশছোঁয়া নায়িকারাও।

ঢাকাই সিনেমায় কোনো এক অদৃশ্য কারণে ধাপে ধাপে শাকিব খান হয়ে উঠেছেন অপ্রতিরোধ্য মুকুট হীন সম্রাট। শাকিব খানের বিকল্প তৈরি করে ঢাকাই সিনেমা সেক্টরকে ব্যবসায়িক দিক থেকে আরো বেশি লাভজনক কিংবা সুবিধাজনক অবস্থানে নেওয়ার জন্য কোনো এক অদৃশ্য শক্তির কারণে শাকিব খানের বিকল্প ছাড়াও কোনো সহযোদ্ধাও তৈরি হচ্ছে না। ফলে ঢাকাই সিনেমায় লগ্নিকৃত অর্থের লাভ লোকসানের সমীকরণ বছরের পর বছর ধরে শাকিব খানকে ঘিরেই আবদ্ধ থাকছে।

বিগত এক দশকে ঢাকাই সিনেমায় অনেক নবাগত নায়করা এসেছেন। যাদের অনেকেই অনেক বেশি সম্ভাবনাময় ও আশা জাগানিয়ার স্থান অর্জন করতে সক্ষম হয়েছিলেন। এদের মধ্য অন্যতম বাপ্পী চৌধুরী। যার নাম বুকিং এজেন্টদের কাছে শাকিব খানের পরেই আস্থার নাম ছিলো। কিন্তু কোনো এক অদৃশ্য কারণে বাপ্পী চৌধুরী নিজের ক্যারিয়ারের উর্ধ্বগতির সময় রুপালি পর্দায় তার কাজের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারেন নি। অন্যদিকে আরেফিন শুভ ও এবিএম সুমন উভয় ঢাকাই সিনেমায় নিউ ওয়েভ সৃষ্টি করেছেন ঠিকই কিন্তু বক্স অফিসে শাকিব খানের শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে এখনও নিজেদের প্রমাণ করতে পারেন নি। যদিও উভয়ের অভিনয়ের জন্য তারা যথেষ্ট প্রশংসিত হয়েছেন।

অন্যদিকে সাইমন সাদিক, আমান রেজা, জয় চৌধুরী, আসিফ ইমরোজ, সাঞ্জু জন, মামনুন হাসান ইমন, চঞ্চল চৌধুরী, জিয়াউল ফারুক অপূর্ব, শিপন মিত্র, কুমার উদয়, জিয়াউল রোশান, আরফান নিশো, শান্ত খান, শরিফুল রাজ, সিয়াম আহমেদ, সুমিত সেনগুপ্ত, আদর আজাদ, ইমতিয়াজ বর্ষণ, খায়রুল বাসার , ইয়াশ রোহন সহ আরো অনেকে এসেছেন কিন্ত কোথায় যেন ঢাকাই সিনেমা সেক্টরকে আরো একধাপ এগিয়ে নিয়ে বক্স অফিসে নিজের আধিপত্য বিস্তার করার ক্ষেত্রে একটি শূন্যতা থেকেই যাচ্ছে। যদিও এদের মধ্যে অনেকেই অভিনয়ে যথেষ্ট ধারাবাহিকতা রক্ষা করার চেষ্টা করছেন।

একইভাবে শাকিব খানের সাথে যখন কোনো নায়িকা জুটি বেঁধে অভিনয় করেন তখন তিনিও বক্স অফিস ও ঢাকাই সিনেমায় হয়ে উঠেন দাপুটে। এর অন্যতম উদাহরণ অপু বিশ্বাস এবং শবনম বুবলি। যদিও শাকিব খানের বলয়ের বাইরে তাদের কিংবা বাংলাদেশের হাল আমলের কোনো নায়িকার বক্স অফিসে নিজের আধিপত্য প্রতিষ্ঠিত হয়নি। তবে এক্ষেত্রে মাহিয়া মাহীর একটি অবস্থান তৈরির সম্ভাবনা হলেও কোনো এক অজ্ঞাত কারণে আকাশছোঁয়া এই নায়িকার ভাগ্যো তা জুটেনি।

বিগত এক দশকে বক্সঅফিসের সকল হিসাবের বৃত্তের কেন্দ্র বিন্দু যেনো সুপার স্টার শাকিব খান। ইতোমধ্যে নিজের অভিনয় কেরিয়ারের ২৫ বছর পূর্ণ করেছেন তিনি। আসছে ঈদুল আজহায় আসছে তার অভিনীত সিনেমা ‘তুফান’। যা ইতিমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে আলোচনার ঝড় তুলেছে। আলোচিত-সমালোচিত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার ঘরের ছেলে রায়হান রাফী পরিচালিত সিনেমা ‘তুফান’ কি পারবে এবারো বক্স অফিসে শাকিব খানের সাম্রাজ্য টিকিয়ে রাখতে? কারণ সিনেমার মুক্তি আগে প্রতি মূহুর্তে ‘তুফান’কে ঘিরে মেলাতে হচ্ছে নানান জটিল সমীকরণ। কারণ ইকবাল পরিচালিত ‘রিভেঞ্জ’ প্রতি মূহুর্তে পাল্টে দিচ্ছে ‘তুফান’কে ঘিরে শেষ মুহূর্তের সব সমীকরণ।

অ্যাকশনধর্মী ‘তুফান’ সিনেমায় শাকিব খানের সাথে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন টলিউডের আকাঙ্ক্ষিত অভিনেত্রী ও সর্বভারতীয় তৃনমূল কংগ্রেসের যাদবপুরের সাবেক সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। এছাড়াও একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে সিনেমায় অভিনয় করেছেন ‘মনপুরা’ ও ‘আয়নাবাজী’ খ্যাত অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী।

আর ‘রিভেঞ্জ’ সিনেমায় শবনম বুবলির সাথে জুটি বেঁধে অভিনয় করছেন জিয়াউল রোশান। এই দুটি সিনেমা ছাড়াও ঈদুল আযহায় মুক্তি পাচ্ছে মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘ডার্ক ওয়ার্ল্ড’ , রশিদ পলাশ পরিচালিত ‘ময়ূরাক্ষী’ ও জাহিদ হাসান অভি পরিচালিত ‘আগন্তক’ সিনেমা তিনটি। ক্রাইম থ্রিলার ঘরানার ‘ডার্ক ওয়ার্ল্ড’ সিনেমায় টালিউড মিষ্টিমুখ কৌশানী মুখোপাধ্যায় ও বাংলাদেশের নবাগত মুন্না খান।

অন্যদিকে ‘ময়ূরাক্ষী’ সিনেমায় ইয়ামিন হক ববির সাথে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন সুদীপ বিশ্বাস দ্বীপ। আর ‘আগন্তক’ সিনেমায় পূজা চেরির সাথে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন টেলিভিশন এবং ওটিটি প্ল্যাটফর্মের মেধাবী অভিনেতা শ্যামল মাওলা।

ঈদুল আজহায় বক্স অফিসে থাকা পাঁচটি সিনেমার মধ্যে ‘তুফান’ ও ‘রিভেঞ্জ’কে ঘিরেই মূলত কঠিন লড়াই জমে উঠার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। কারণ ‘তুফান’ সিনেমার সাথে রয়েছে বাংলাদেশের প্রভাবশালী ওটিটি প্ল্যাটফর্ম ‘চরকি’ ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান আলফা আই স্টুডিওস। এদের উভয়ের পিআর স্ট্রাটেজি খুব শক্তিশালী।

অন্যদিকে ‘রিভেঞ্জ’ সিনেমার সাথে রয়েছে ঢাকাই সিনেমা সেক্টরের কয়েকজন শক্তিশালী কুশিলব। তাই এবারের ঈদুল আজহায় বক্স অফিসে শাকিব খানের ‘তুফান’ কি তার দাপটে সব লন্ডভন্ড করে আবারো প্রমাণ করবে তার ভাগ্যের বৃহস্পতি এবারও তুঙ্গে এবং আবারো শাকিব খানের দাপটে হারিয়ে যাবে ঢাকাই সিনেমার আরেক নবাগত মুন্না । নাকি ‘রিভেঞ্জ’ বক্সঅফিসের সব সমীকরণ বদলে দিয়ে ঢাকাই সিনেমায় শবনম বুবলিকে এনে দিবে দক্ষিণী সিনেমার নায়িকা নয়নতারার মতো নামের আগে বক্স অফিসের লেডি সুপারস্টারের তকমা।
এখন শুধু দেখার অপেক্ষা।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ