রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন

আলোচিত মতিউর রহমান, দ্বিতীয় স্ত্রী শাম্মী, তিন’শ কোটি টাকা ও মেয়াদোত্তীর্ণ গাঁজা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই, ২০২৪

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী

আলোচিত রাজস্ব কর্মকর্তা মতিউর রহমান সম্পর্কে একটা আষাঢ়ে গল্প মেয়াদোত্তীর্ণ গাঁজা খাওয়া কিছু সাংবাদিক কিছু না বুঝেই ছড়িয়েছে। ওদের দাবী, মতিউর কোভিড আক্রান্ত হয়ে মুমূর্ষ অবস্থায় থাকাকালে ওনার দ্বিতীয় স্ত্রী শাম্মী আকতার শিবলী মতিউরের কাছ থেকে তিন’শ কোটি টাকার চেক লিখিয়ে নেন। তারপর শাম্মী ব্যাংক থেকে পঞ্চাশ কোটি টাকা উত্তোলন করেন, যার প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী একজন আত্মীয়। এই সংবাদটা যারাই পড়েছেন, সবাই এটাকে গসপেল ট্রুথ গণ্য করে বিশ্বাস করেছেন।

এবার এই ঘটনার একটু গভীরে যাবো। আমরা যারা নিয়মিত ব্যাংকে লেনদেন করি তারা সবাই জানি, কোনো ব্যক্তির নামে ইস্যু হওয়া পঞ্চাশ কোটি টাকার চেক ক্যাশ করার জন্যে ব্যাংকে জমা দিলেই ওই বিষয়টা বাংলাদেশ ব্যাংকের ফিনান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স শাখা জেনে যাবে। তার ওপর একসাথে পঞ্চাশ কোটি টাকা তুলতে হলে এক হাজার টাকার নোটের পাঁচ হাজার বান্ডিল হবে। পাঁচ হাজার বান্ডিল! মানে ওটা বহন করতে পিকআপ লাগবে। মাইক্রোবাসেও ওই পরিমাণ টাকা তুললে বাইরে থেকে স্পষ্ট দেখা যাবে। অর্থাৎ, মতিউরের দ্বিতীয় স্ত্রী ব্যাংকে গেছেন। পঞ্চাশ কোটি টাকা উত্তোলন করেছেন, যা ওনার এক আত্মীয় নিজের চোখে দেখেছেন বলে গণমাধ্যম কর্মীদের বললেন, এক্ষেত্রে ওই আত্মীয়কে গোয়েন্দা সংস্থা কিংবা দুদক ডেকে নিয়ে প্রশ্ন করেনি কেনো – টাকাটা শাম্মী ব্যাংক থেকে নিলেন কিভাবে।

হ্যাঁ, বাংলাদেশের অনেক ব্যাংকের শাখাতেও দৈনিক দুই-তিন’শ কোটি টাকা লেনদেন হয়। এটা স্বাভাবিক বিষয়। একজন গ্রাহক এক থেকে পাঁচ কোটি টাকা ব্যাংক থেকে তুলে সেটা জিপ কিংবা মাইক্রোবাসে নিয়েও যান। কিন্তু পঞ্চাশ কোটি টাকা একজন গ্রাহক ব্যাংক থেকে উত্তোলন করে নেয়ার ঘটনা আমি অন্তত দেখিনি। অন্য কেউ দেখে থাকলে বলবেন।

বলা হচ্ছে মতিউর রহমানের নাকি হাজার-হাজার কোটি টাকা। হতেও পারে। নগদ এবং সম্পদ মিলিয়ে। তিনি বিদেশে নাগরিকত্ব কিনেছেন এটা একদম সত্যি। একটা নাগরিকত্ব নিতে বাংলাদেশী টাকায় বারো থেকে ত্রিশ কোটি টাকা ওই দেশে বিনিয়োগ দেখাতে হয়। বর্তমান প্রেক্ষাপটে এমন টাকা অনেকেরই আছে। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাংকে মতিউর ও ওনার পরিবারের শত-শত কোটি টাকা আছে এটা বিশ্বাস করা অনুচিত। হ্যাঁ, আমি একজন দুর্বৃত্তের খবর জানি যার নিজের নামে এবং স্ত্রী ও তিন কন্যা সন্তানের নামে সোনালী ব্যাংক কেন্দ্রীয় শাখায় পাঁচ’শ কোটি টাকা জমা ছিলো। ব্যাংক ওই টাকার সূত্র জানতে চেয়েছে, জমা নেয়ার সময়ই। তিনিও সম্পত্তি বিক্রি করে ওই পরিমাণ টাকা পাওয়ার প্রমাণ ব্যাংকে জমা দিয়েছেন। মানে, খুব বড় অংকের টাকা জমা দিতে হলেও ব্যাংকের কাছে কারণ দেখাতে হয়। মতিউর রহমানের ক্ষেত্রে ব্যাংক ওই নিয়ম মানেনি এটাও যদি ধরে নিই, তাহলে একটা প্রশ্ন তো আসবেই – পনেরো লাখের ছাগল ঘটনার পর হুট করে বাজারে মতিউরের নাম আসার সাথে-সাথেই তিনি ঈদের ছুটির মাঝেই শতশত কোটি টাকা ব্যাংক থেকে তুলে নিয়েছেন, এটা বিশ্বাস করা সম্ভব?

মতিউর রহমানের প্রথম স্ত্রী-কে চেনেন এমন কেউকেউ বলে বেড়াচ্ছেন ওনার পরণের গহনার দামই নাকি পাঁচ-দশ কোটি। আমি ওনার যে ক’টা ছবি দেখলাম সেগুলোয় ওনার গলায় বেশ পুরু নেকলেস জাতীয় অলঙ্কার। ধরে নিই ওই নেকলসের ওজন ত্রিশ ভরি। তাহলে এটার দাম কত? পনেরো থেকে আঠারো লাখ। কিন্তু ওই আঠারো লাখের অলঙ্কারের দামই হয়ে গেলো পাঁচ-দশ কোটি। ঠিক এভাবেই ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে তথ্য ছড়ানো হচ্ছে গণমাধ্যমে।

মতিউর রহমান শতকোটিপতি নাকি হাজার কোটিপতি এটা মুখ্য বিষয় নয়। মূল কথা হচ্ছে, ইনি দুর্নীতিবাজ এবং রাষ্ট্রের সম্পদ লুটকারী। তিনি এখন কোথায় বা কেনো তাকে গ্রেফতার করা হলোনা – মামলাও হলোনা, এটাই মূল বিষয়। ওনার প্রথম স্ত্রী লায়লা কানিজ লাকি প্রকাশ্যে বললেন তিনি বড়বড় সাংবাদিকদের ম্যানেজ করে ফেলেছেন। অর্থাৎ, টাকা দিয়ে কিনেছেন। এরপর সত্যি-সত্যিই লাকি আর গণমাধ্যমের রিপোর্টে নেই। তাহলে তো ধরে নিতেই পারি, বাংলাদেশের কথিত বড়বড় সাংবাদিকরা গরুর হাটের বলদগুলোর মতো মতিউর রহমানের কাছে বিক্রি হয়ে গেছে।

মতিউরের দ্বিতীয় ঘরের সন্তান ইফাত যেভাবে পনেরো লাখ টাকা দামের ছাগলের গলা জড়িয়ে ধরে ছবি তুলে সারাদেশে তোলপাড় করে দিয়েছে, ঠিক একইভাবে লায়লা কানিজ লাকির উচিত কিনে ফেলা বড়বড় সাংবাদিকগুলোকে ওনার পায়ের কাছে বসিয়ে ছবি তুলে সেটা জনগণের মাঝে বিতরণ করা।

একটা নির্ভরযোগ্য সূত্রে জেনেছি, লাকি নাকি ভীষন ধুরন্ধর। উনি সবকিছুই ভিডিও করে রাখতে পছন করেন। আমার একটাই আব্দার – বড়বড় সাংবাদিক যারা মতিউর রহমান কিংবা ওনার পরিবারের কাছ থেকে টাকা নিয়ে বিক্রি হয়েছে ওদের ভিডিওগুলো জাতির সামনে প্রকাশ করা হোক।

 

সালাহ্ উদ্দিন শোয়েব চৌধুরী , আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন একাধিক পুরস্কারপ্রাপ্ত জঙ্গিবাদ বিরোধী সাংবাদিক,কাউন্টারটেররিজম বিশেষজ্ঞ, রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও প্রভাবশালী ইংরেজি পত্রিকা ব্লিটজ-এর সম্পাদক।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ