সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:২১ অপরাহ্ন
Uncategorized

একজন শামীম জামানের গল্প

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : শনিবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২০

রঞ্জু সরকার: আশি-নব্বই দশকের সোনালী সেই দিনগুলো সফলতার সাথে পেরিয়ে আজ বাংলা নাটক পদার্পণ করেছে অত্যাধুনিক যুগে। এ যুগে শিল্প বিপ্লবের সাথে সাথে আধুনিকতার স্পর্শ লেগেছে প্রতিটি ক্ষেত্রে। তেমনই এ শিল্প থেকে বাদ পড়েনি আমাদের নাট্যশিল্পও। আজ আমাদের নাট্য শিল্প যেসব প্রযোজক, পরিচালক, অভিনেতা, অভিনেত্রী ও কলাকুশলীদের হাত ধরে আধুনিকতার শীর্ষে পৌঁছেছে তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন শামীম জামান। যিনি আধুনিকতার মাঝে থেকেও ভুলতে পারেন নি আমাদের গ্রাম বাংলাকে। যার নাটক মা ও মাটির কথা বলে। কথা বলে আবহমান বাংলার গ্রাম্য সমাজের। তার নির্মিত ও অভিনীত নাটকগুলোতে আমরা খুঁজে পাই আবহমান বাংলার নিজস্ব রূপ, গন্ধ, শিল্প ও ঐতিহ্য। আধুনিকতার স্রোতে গা ভাষিয়েও আমরা খুঁজে পাই নজরুল, জসীমউদ্দিন ও জীবনানন্দ দাশের রূপে রূপবতী সোনার বাংলা। অনুভব করতে পারি চিরায়ত বাংলার ঘ্রাণ।

সাংস্কৃতিক মনস্ক শামীম জামান স্কুলে পড়াকালীন সময় থেকেই ছিলেন অভিনয়ের প্রতি প্রবল আগ্রহী। তাই তিনি ছোট বেলা থেকেই ঝুঁকে পড়েন অভিনয়ের প্রতি ও যোগ দেন স্থানীয় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনে। যার প্রেক্ষিতে তিনি ছাত্র অবস্থায় স্কুল ও কলেজের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে স্বতঃস্ফূর্ত অংশ গ্রহণ করেন এবং কৃতিত্বের সাথে সফলতা অর্জন করেন। আরণ্যক নাট্য দল এ যোগ দেয়ার পর তিনি প্রথমে কাজ শুরু করেন মঞ্চ নাটকে। এ সংগঠনের সাথে যুক্ত থেকে তিনি করেন ‘ইবলিশ’, ‘পাথর’, ‘জয়জয়ন্তী’, ‘কথা ও ময়ূর সিংহাসন’,‘প্রকৃতজন’ ‘সংক্রান্তি’ ইত্যাদি নাটক। মঞ্চ নাটকে সফল ও জনপ্রিয় হওয়ার পর পরই তার অভিষেক ঘটে টেলিভিশনের পর্দায়। এখানে তিনি নিজের মনন, মেধা ও চেষ্টায় উন্নতি করেন এবং কৃতিত্বের সাথে উন্নীত হন একজন সফল, সুদক্ষ নির্মাতা, পরিচালক ও প্রযোজকে। তার বহুল আলোচিত নাটক গুলো হচ্ছে ‘দয়াগঞ্জ’, ‘কলেজ স্টুডেন্ট’ ও ‘সার্ভিস হোল্ডার’।

নাটকের পাশাপাশি তিনি কয়েকটি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেন। তার অভিনীত চলচ্চিত্র হচ্ছে ‘আধিয়ার’, ‘বাংলা মায়ের দামাল ছেলে’, ‘ছানা ও মুক্তি যুদ্ধ’। তিনি তাঁর সরল ও নিখুঁত অভিনয়ের মাধ্যমে স্থায়ী আসন করে নেন হাজারো দর্শকের হৃদয়ে। যার দরুণ তিনি আজ বাংলাদেশে সুপরিচিত। সাবলীল অঙ্গভঙ্গি ও স্পষ্ট সংলাপ উচ্চারণের মাধ্যমে পাকাপোক্ত ভাবে স্থায়ী আসন করে নেন বাংলা নাটকে। বিশেষ করে রূপক কমেডি নাটক গুলোতে। তিনি ২০১০ থেকেই নাট্য পরিচালনা করে আসছেন। তাঁর পরিচালিত উল্লেখযোগ্য নাটকগুলো হলো- ‘রজব আলী’, ‘তার কাফনের কথা’, ‘ছত্রিশ খালেক’, ‘ঝামেলা আনলিমিটেড’, ‘আনন্দ গ্রাম’, ‘চাটাম ঘর’, ‘হিটলার হারুন’, ‘প্রবাসী জামাই’, ‘ভেসপা-১৫০’। তাঁর নাটক গুলো হাস্যরসাত্মক রসে ভরপুর থাকলেও অধিকাংশ নাটকগুলোতে উঠে এসেছে আমাদের সমাজ ব্যবস্থার বাস্তব চিত্র। যা তিনি আমাদের সামনে উপস্থাপন করেছেন সরল ও নিখুঁত ভাবে। তিনি তাঁর নাটকের মাধ্যমে যেমন দেখান গ্রামীণ সমাজ জীবনের টানাপোড়ন আবার তেমনই দেখান শহুরে জীবনের বাস্তবতা। গ্রামীণ চরিত্র চিত্রায়নে তিনি বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। তাঁর কর্মের মাধ্যমে মা, মাটি ও মানুষের কথা বলেন। তাই শহুরে সমাজের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করেন আবহমান বাংলার গ্রাম্য সমাজ ব্যবস্থা, পরিবেশ, সমস্যা ও তার সমাধান। গ্রামের আতিথেয়তা, সম্পৃতি, ভ্রাতৃত্ব, বন্ধুত্ব, ভালোবাসা, সর্ম্পকের দাম, উৎসব ও অনুষ্ঠানগুলো পরিচিত করানোর চেষ্টা করেন আমাদের শহুরে সমাজে বেড়ে ওঠা আগামী প্রজন্মের কাছে। তিনি তাঁর কর্মে মূলত চেষ্টা করেন আমাদের সংস্কৃতিকে ধরে রাখার জন্য। যেন তা হারিয়ে না যায় কালের কড়াল গ্রাসে।

শামীম জামান অভিনয় ও পরিচালনা পেরিয়ে একজন সফল প্রযোজকও বটে। তাঁর ‘শরৎ টেলিফিল্ম’ নামের একটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এই প্রতিষ্ঠান থেকে বেশ কিছু নাটক উপহার দিয়েছেন। নাট্য শাখার প্রতিটি জায়গায় রয়েছে তার অবদান। উপরিউক্ত গুণগুলো ছাড়াও তিনি একজন সঙ্গীত লেখকও। এ পর্যন্ত কয়েকটি গান লিখেছেন ও বের করেছেন দুটি অ্যালবামও। তিনি তার প্রথম অ্যালবাম বের করেন ‘পরাণ বন্ধু’ দ্বিতীয় অ্যালবাম ‘একটা চিঠি’। ‘জামাই মেলা’ ও ‘সোশ্যাল নেটওয়ার্ক’ নাটক দুটিতে তিনি সূচনা সঙ্গীত গেয়েছেন। শামীম জামান সম্প্রতি শেষ করেছেন বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাস সচেতনার একটি একক নাটক। নাম ‘বিনি সুতার মালা’। এদিকে ক্রাউন এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত ‘বিজয়া’ শিরোনামের একটি একক নাটক নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা দুটিই হচ্ছে। এ ব্যাপারে উল্লেখ করে এ অভিনেতা বলেন, অভাগ লাগছে আমার কাছে যে নাটকটি এখন পর্যন্ত প্রচারই হলো না সেটার ভালো মন্দ নিয়ে আমরা কিভাবে কথা বলি। মনে হয় কোন একটা চক্র তাদের পিছনে লেগেছে। শামীম জামান বর্তমানে অভিনয়ের চেয়ে নির্মাণে বেশি ব্যস্ত। অভিনেতা ও নির্মাতা দুই পরিচয়ে তিনি স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। পরিশেষে বলতে পারি শামীম জামান নাট্য জগতের বিভিন্ন শাখা-প্রশাখায় আর দর্শককে উপহার দিয়েছেন তার সময়োপযোগী কিছু অসাধারণ সৃষ্টিকর্ম। যার প্রেক্ষিতে আমরা তাকে ‘একজন শামীম জামান’ বলে অভিহিত করতে পারি এবং অপেক্ষা করতে পারি তার কালজয়ী উপযোগী কিছু সৃষ্টি কর্মের জন্য। যার মাধ্যমে তিনি স্থায়ী ভাবে আসন করে নিতে পারেন ইতিহাসের পাতায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ