মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:২৫ অপরাহ্ন
Uncategorized

টানা পাঁচ মাস সিনেমা হল বন্ধ, বিপাকে কর্মচারীরা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৮ জুলাই, ২০২০

জমজমাট প্রতিবেদক: টানা পাঁচ মাস ধরে সিনেমা হল বন্ধ, বিপাকে পড়েছেন হলগুলোর হাজারো কর্মচারী। প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ থাকার সময় যত দীর্ঘ হচ্ছে ততই বিপাকে পড়ছে ঢাকা ও ঢাকার বাইরের হাজারো কর্মচারী। এরইমধ্যে অনেকেই হল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এমন বাস্তবায়তায় সরকারি প্রণোদনার দাবি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির। এক যুগ আগে সারা দেশে সিনেমা হলের সংখ্যা ছিল ১৪০০। প্রদর্শক সমিতির তথ্য অনুযায়ী বর্তমানে সারা দেশে সিনেমা হলের সংখ্যা মাত্র ৬৮টি। করোনা সংকটের কারণে সম্প্রতি এর সংখ্যা আরো কমার আশঙ্কা। দেশে সবচেয়ে বড় সিনেমা হল যশোরের মণিহার। যেখানে ৩২ জন কর্মচারী করোনার কারণে পাঁচ মাস ধরে বেতন না পেয়ে মানবেতার জীবন যাপন করছে। এই চিত্র জেলার ছয় হলের।

যশোরের মণিহার সিনেমা হলের ব্যবস্থাপক তোফাজ্জেল হোসেন বলেন, ‘সিনেমা হলের যে ব্যবসা সে ব্যবসা তো নেই। আশে পাশে যে দোকানপাট ছিল তারাও ক্ষতিগ্রস্ত। মালিক আমাদের স্পস্ট বলেছে সিনেমা হল না খোলা পর্যন্ত আমাদের বেতন দিতে পারবে না।’ একই চিত্র মুন্সিগঞ্জের। প্রণোদনা না পেলে হল বন্ধ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে পান্না সিনেমা হলের মালিক।

পান্না হলের মালিক আলী আজগর পান্না বলেন, ‘গত দুই বছর যাবত আমাদের সিনেমা হলের ব্যবসার অবস্থা ভালো যাচ্ছে না। প্রণোদনা পেলে হল খোলার চিন্তা ভাবনা করে দেখবো। না হলে হল খোলার যুক্তিই দেখি না। লস দিয়ে এ ব্যবসা করা আমাদের পক্ষে আর সম্ভব না। কর্মচারী বসিয়ে বসিয়ে কত দিন বেতন দেব? গত কয়েক বছর যাবত সিনেমার ব্যবসা ভালো যাচ্ছে না। তারপরও লোকশান গুনে হল খোলা রেখেছি। এ রকম কত বছর লোকশান দেব? তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি হল মালিকদের জন্য কোন প্রণোদনার ব্যবস্থা না করলে হল খেলবো না।’

রাজধানী ঢাকার চিত্র ভিন্ন নয়। ৪২টি হল থাকলেও তার সংখ্যা কমে দাড়িয়েছে এক অংকের ঘরে। সিনেমা ব্যবসা মন্দা হওয়ায় বন্ধ হচ্ছে রাজধানীর টিকাতুলির অভিসার সিনেমা হল। অভিসার সিনেমা হলের কর্ণধার সফর আলী ভূইয়া জানান, প্রতি মাসে চার লক্ষ টাকা লস হওয়াতে হল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেই। এদিকে সিনেমা হল ব্যবসা না থাকায় কর্মচারীদের বেতন দিতে হিমশিম খাচ্ছে হল মালিকরা। এমন বাস্তবতায় সরকারি প্রণোদনার দাবি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সভাপতি কাজী শোয়েব রশিদ বলেন, ‘সিনেমা হল যদি না বাঁচে প্রযোজক সিনেমা বানালে কোন লাভ নেই। সিনেমা বাঁচাতে সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে।’

সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্বল বলেন, ‘সিনেমা ও সিনেমা হল বাঁচাতে সরকারি প্রণোদনা জরুরি। আমরা সরকারের কাছে প্রণোদনার দাবি জানিয়েছি। আশা করি এটি দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।’

বাংলা চলচ্চিত্রর ইতিহাসে এই প্রথম রোজার ঈদে বন্ধ ছিল প্রেক্ষাগৃহ। কোরবানির ঈদেও বন্ধ থাকছে সিনেমা হল। করোনা পরবর্তী সময়ে বাংলা চলচ্চিত্রর ভবিষ্যৎ কি সেটিই এখন দেখার বিষয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ