বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:১১ পূর্বাহ্ন

বই লিখে সমাজের মানুষের বিবেকে নাড়া দিলো হিরো আলম !

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৪ অক্টোবর, ২০২২

রিয়েল দাশ রায়

কদিন আগেও হিরো আলম ছিলেন তামাশার পাত্র। প্রায় সবাই প্রতিযোগিতা করে ওর সমালোচনা করেছেন। কিন্তু নিজের লেখা একটা বইয়ের মাধ্যমে হিরো আলম যেনো সমাজের সবার দিকেই প্রচণ্ড শক্তিশালী একটা পারমাণবিক বোমা ছুঁড়ে দিলেন। বিতর্কিত মানুষগুলির মধ্যে তালিকায় প্রথম যাদের নাম আছে তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন হিরো আলম। গান থেকে শুরু করে মিউজিক ভিডিও, অভিনয় সব ক্ষেত্রেই তাকে নিয়ে নানান বিতর্ক তৈরি হয়। তবে সেই সকল বিতর্ককে পাত্তা দিতে দেখা যায় না, হিরো আলমকে। বরং নিজের ছন্দেই সেসবকে তোয়াক্কা না করে নতুন নতুন কিছু না কিছু করে চলেছেন তিনি। এই আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম যাই করুক না কেন, তা নিয়ে তর্কবিতর্ক যেমন তৈরি হয়, ঠিক তেমনি সেগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় আলাদাভাবে সাড়া ফেলে দেয়। যে কারণে তার সোশ্যাল মিডিয়ায় ফ্যান ফলোয়ার্সের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। তিনি এখন সোশ্যাল মিডিয়ার সেন্সেশন হয়ে উঠেছেন।

২০২০ সালে একুশে বইমেলায় ‘দৃষ্টিভঙ্গি বদলান আমরা সমাজকে বদলে দেব’ এই নামে বই লিখেছেন আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলম। প্রচ্ছদে লিখেছেন, বিখ্যাত হতে আসিনি, শুধু দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে চেয়েছি। ভেতরে তিনি বলেন, আমাকে নিয়ে সবাই অনেক হাসিঠাট্টা করেন, ট্রল করেন, কিন্তু পর্দার ওপারে হিরো আলমকে কয়জন চেনেন? এই বইয়ের মাধ্যমে জানতে পারবেন আমার জীবনযুদ্ধ সম্পর্কে। হিরো আলমের লেখা ও সৌরভ আলম সাবিদের সম্পাদনায় বইটি বাজারে এনেছিল তরফদার প্রকাশনী। হেলা করে যারা বইটি পড়েননি তারা পার পেয়ে গেলেও যারা হিরো আলমের লিখা বইটি একবারের জন্য পড়েছেন, তাদের মুখে কুলুপ এটে দিলেন হিরো আলম।তাদের আবারও নতুন করে ভাবতে হচ্ছে হিরো আলমকে নিয়ে। তামাশার পাত্র হিরো আলম যেন হয়ে গেলেন একটি গবেষণার নাম।

তৎকালীন সময়ে হিরো আলম বইটি সম্পর্কে বলতে গিয়ে বলেন, আমার বইটি কেউ কিনবে নাকি না কিনবে সেটা বড় কথা না তবে আমি সকলকে অনুরোধ করবো বইটি একবার হলেও পড়া উচিত, না কিনলেও অন্তত খুলে পড়ে দেখবেন। আমাকে নিয়ে সবাই অনেক হাসি ঠাট্টা করেন ট্রল করেন, কিন্তু পর্দার ওপারে হিরো আলমকে কয়জন চেনেন? আমার জীবনটা কতটুকু কষ্টের মধ্যে পার হয়েছে এবং কতটুকু পরিশ্রমের মাধ্যমে আমি হিরো আলম হয়েছি সেটা শুধু আমি জানি। আমার পর্দার পেছনের ঘটনাগুলো জানলে আজ হয়তো আপনারা আমাকে নিয়ে ট্রল করতেন না, বরং আমাকে উৎসাহ দিতেন। যাই হোক এখনো সময় আছে আপনারা যদি দৃষ্টিভঙ্গি না বদলান, তাহলে আমাদের সমাজ এবং দেশ কখনোই বদলাবে না। আমি হিরো আলম হয়তো মারা যাবো, কিন্তু আমার লেখা বইটি থেকে যাবে এবং একদিন না একদিন আমার এই লেখাগুলো আপনাদেরকে কাঁদাবে,কথা দিলাম।

হিরো আলমের কথার রেশ ধরেই যদি বলি, সত্যিই যারা হিরো আলমের বইটি পড়েছেন, তাদেরকে আজ নতুন করে হিরো আলম ভাবাচ্ছে। জন্ম থেকে বর্তমান অবদি একটা মানুষ কতটা চড়াই-উতরাই পাড় হয়ে আজ এই অবস্থানে এসেছে তা সত্যিই বিস্ময়কর। বাহির থেকে হিরো আলমের নানাবিদ কর্মকান্ড নিয়ে অনেকেই হাসাহাসি করলে ব্যক্তিজীবন সম্পর্কে হিরো আলম কি আর কি তার জীবন গল্প তা বলতে গিয়ে যেন সমাজের সুশীল মানুষদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে গুতো মারলেন। শিক্ষিত সমাজকে আজ করলেন লজ্জিত। হিরো আলমের বইটিতে চোখে পড়ার মত দশটি লাইন আছে। পাঠকদের মতে হিরো আলমের লিখা ১০ টি চুম্বক লাইন। যা আপনার ঘুমন্ত বিবেককে জাগ্রত করবে,যা আপনার চোখের কালো কাপড় দিয়ে বাধা পর্দাকে সড়াতে ভূমিকা রাখবে। হিরো আলমের বইয়ের ১০টা চুম্বক লাইনে লিখেছেন ‘আপনারা শিক্ষিত কাগজে কলমে, মনুষ্যত্বের শিক্ষা শিক্ষিত লোকের মাঝে তেমন একটা নাই’, ‘আমি অশিক্ষিত হয়ে লাত্থি উস্টা খেয়েও বেচে আছি, আপনারা শিক্ষিতরা কেন আত্মহত্যা করেন?’, ‘আমার চেহারাটা নিয়ে আর কি বলবেন? আল্লাহই তো আমারে বানাইছে। আমি তো বানাই নাই। আমি কি করবো? এই চেহারা চেঞ্জ তো করতে পারবো না’, ‘জীবনের সব ব্যবসা আমি টাকা দিয়ে করেছি, শুধু নির্বাচন ছাড়া’, ‘শিক্ষিতরা যে আমারে নিয়ে মজা করেন, আমার জায়গায় থাকলে তো রিসকা চালায়ে খাইতেন,আমি তো তাও চেহারা খারাপ বলে মিডিয়ায় আইছি, আপনার তো চেহারা মুটামুটি। আপনি তো তাও পারতেন না’, ‘আমি আমার ভক্তগো একবার ধন্যবাদ দিলে সমালোচকগো দুইবার ধন্যবাদ দেই। তারা আমার ভিডিও খিয়াল করে দেখে। ঘুমাতে যাওয়ার আগেও দেখে, উইঠেও দেখে’, ‘সার্টিফিকেটধারী শিক্ষিত লোক হইলো ভীতু। নিজেরা তো কিছু করবেই না, কেউ করতে দেখলেও গা জ্বলে। এরা যে কি চায় নিজেরাই জানে না’, ‘আমি পরিত্যক্ত সন্তান হয়ে চানাচুর বেচে, সিডি, ডিস লাইন, মিউজিক ভিডিও করে ১০-১৫টা মানুষের দায়িত্ব নিতে পারি, আপনি শিক্ষিত হয়ে কিছু পারেন না কেন?’ ‘আমি হিরো আলম আমার ভিডিও দেখে খালি মানুষ হাসবে এই জন্যে কাজ করি। আমার মাইনসের হাসিমুখ দেখতেই ভালো লাগে। এই সব ভাইরাল, সমালোচনা এসবের জন্যে কাজ করি না’,‘আমি সকল বিধবা মা, পরিত্যক্ত নারী ও শিশুদের জন্যে একটা সংস্থা করে যেতে চাই, যাতে, আমার মায়ের মতো কারো মার যেন মাইর খেয়ে রাস্তায় বাচ্চা নিয়ে রাত কাটানো না লাগে’ ।

হিরো আলম যেন সমাজের একটি তামাশার পাত্রের সাথে সাথে সমস্যার নাম হয়ে গেছে অনেকের কাছে। হিরো আলম যাই করে তাই এক শ্রেনীর মানুষের কাছে হাসির আবার অন্যদিকে অন্যায় বলে দাবী করেন এক শ্রেনীর মানুষ। প্রতিবাদ উঠে সোশ্যাল মিডিয়ায়।হিরো আলমের গান গাওয়া নিয়ে রয়েছে অনেকের ঘোর আপত্তি। শখের বসেই তার এই গান গাওয়া হলেও তার গান যে মানুষ দেখে ও শোনে সেটা কিন্তু প্রমাণিত। গান প্রকাশের পরই সেটার মিলিয়ন ভিউসই তার প্রমাণ। তবুও এই গানের কারনেই তাকে পুলিশের কাছে দিতে হলো মুচলেকা! আশ্চর্যজনক ঘটনা হলেও এটাই সত্যি, রবীন্দ্রসঙ্গীত গাইবার অপরাধে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয় হিরো আলমকে। রবীন্দ্রসঙ্গীত গাওয়া বন্ধ করতে হবে এই মর্মে পুলিশ হিরো আলম থেকে মুচলেকা নেয়। এই ব্যাপারে গণমাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে হিরো আলম বলেছিলেন, ‘ওরা আমাকে বললেই আমি ডিবি অফিসে যেতাম। এভাবে আমাকে উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার কী দরকার ছিল? তারা বুঝাতে চেয়েছে আমি আপসে গেছি। কিন্তু আমি তো আপসে যাইনি। আমাকে তারা উঠিয়ে নিয়ে গেছে। লোক দেখানোর জন্য তারা নিজেরাই আমার হেঁটে যাওয়ার ভিডিও করে। হেঁটে যাওয়ার ভিডিওটি দুপুর ১টার দিকের। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ করার পর যখন আমি চলে আসব, ঠিক তার কিছুক্ষণ আগে তারা সেই ভিডিও ধারণ করে।’

দেশে কতজন ভালোভাবে, নিয়ম মেনে রবীন্দ্রসঙ্গীত গায়? সে হিসাব কার কাছে- প্রশ্ন থেকে যায়। মুচলেকা নেওয়ার বিষয়টি কতটা যৌক্তিক, কে জবাব দিবে! তার আগেও হিরো আলমের রবীন্দ্রসঙ্গীত নিয়ে কথা উঠলে তার যুক্তি ছিল, তিনি গাইতে ভালবাসেন। তার গান অনুরাগীরা ভালবাসেন। তাই গান প্রকাশ করেন। তিনি আরও বলেন, সঙ্গীত নিয়ে সবার আপত্তি মেনে নিয়েছি। তার পরেও সেই গান ছড়িয়ে পড়ার পিছনে আমার হাত নেই। সত্যি কারা তার গান শোনে, কারা শেয়ার করে, কীভাবে হাজার হাজার মানুষের কাছে পৌঁছায়?

মাইকেল মধুসূদন দত্ত একবার বলেছিলেন, ‘রেখো, মা, দাসেরে মনে, এ মিনতি করি পদে। সাধিতে মনের সাদ, ঘটে যদি পরমাদ, মধুহীন করো না গো।’ অর্থাৎ একজন কবির টিকে থাকার আকুল আগ্রহ। অমরত্বের স্বাদ নিতে কবিরা এমনি। অথচ, ধুলোকাঁদা থেকে উঠে আসা এক আলাভোলা গেঁয়ো উচ্চারণে কবির গান গাইতে চেষ্টা করছে। সংশ্লিষ্ট অনেকে মনে করেন রবীন্দ্রনাথ বেঁচে থাকলে খুশি হতেন। খুশি হয়ে হিরো আলমের পিঠ চাপড়ে দিতেন। বলতেন ‘কাঠের শহুরে প্রাণহীন শিল্পীর চেয়ে তুমি আমার মাটিমাখা আরাম।

লক্ষণীয় বিষয় এই যে, হিরো আলমকে নিয়ে প্রকাশিত নিউজ, ভিডিও’র নিচে কমেন্টে আসে ‘তুই কে রে’, ‘তোরে কী এটা মানায়’, ‘আনস্মার্ট’, ‘অশিক্ষিত, খ্যাত (ক্ষেত)’, ‘গরীব’ , ‘তোরে সামনে পাইলে খাইয়া পালামু (খেয়ে ফেলবো)’ ,‘মুর্খ একটা কোনানকার (কোথাকার)’, ‘তারে কেউ গুলি করে না ক্যান (কেন)’ এমন অশ্রাব্য বাক্য। অহেতুক তাকে নিয়ে বুলিং করতে ছাড়ছে না অনেকেই, যা অমানবিক। তাকে নিয়ে এতো হিংসা, কেন? গায়ের রঙ, শারীরিক গঠন, গ্রাম্য আচরণ? অনেকের মতে, রাষ্ট্র সমাজপতিদের কতকিছু আছে অপছন্দের , যা অনেকের ভালো লাগে না- গ্রহণ করার মতো না- সেই ক্ষেত্রে আমরা কি করি? কেবলমাত্র হিরো আলম, আমাদের মাথা ব্যথা। হিরো আলমের চেয়ে চারপাশের বহুবিষয়, বহু সঙ্কট আছে কথা বলার, আলোচনা করে সমাধান করার, তা নিয়েই আলাপ করি। সভ্য সমাজ হলে, তা ভেবেই লজ্জা লাগার কথা।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ