রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন

দুর্নীতির টাকায় কোরবানি দিতে গিয়ে ফাঁসলেন রাজস্ব কর্মকর্তা

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪

তাজুল ইসলাম

ছেলের পছন্দমতো ১৫ লাখ টাকার ছাগল কিনে কোরাবানি দিতে গিয়ে এখন “টক অফ দ্যা কান্ট্রি” বনে গেছেন রাজস্ব বোর্ডের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা ড. মতিউর রহমান। শুরুতে রাজধানী ঢাকার একটি জাতীয় দৈনিকে খবরটি প্রকাশিত হলে তা মুহুর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তা ভাইরাল হয়ে যায়। প্রশ্ন ওঠে কোরাবানি দিতে ১৫ লাখ টাকায় ছাগল কেনা ব্যক্তির পরিচয় নিয়ে। কিন্তু ঘটনা আরো চটকদার হয় পত্রিকায় প্রকাশিত ওই লিংকগুলো হঠাৎ উধাও হয়ে যাওয়ায়। বিষয়টি সাপে বর হয়ে যায় রাজস্ব কর্মকর্তা ড. মতিউর রহমানের জন্য। একে একে বেড়িয়ে আসতে থাকে মতিউর রহমানের বৈধ-অবৈধ ভাবে অর্জিত তথ্যাদি, যা আরো চমকপ্রদ।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ১৫ লাখ টাকায় ছাগল কিনে ভাইরাল হওয়া তরুনের নাম মুশফিকুর রহমান ইফাত। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা ড. মতিউর রহমানের ছেলে সে। কোরাবানির আগে বাবার আদরের ছেলে ইফাত আলোচিত সাদিক এগ্রো হতে ১৫ লাখ টাকায় ছাগল কিনে প্রথমে ছাগলটি ধানমন্ডির ৮ নাম্বার সড়কের ৪১/২ নম্বর বাসা ইমপেরিয়াল সুলতানা ভবনের নীচ তলায় রাখেন ইফাত। কিন্তু খবরটি ততক্ষণে ভাইরাল হয়ে গেলে তার সাক্ষাৎকারের জন্য ধানমন্ডি পৌছালে সেখান থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় ছাগলটি। ছেলের কৃতকর্মের জন্য বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ে ইফাতের বাবা প্রথমে বিষয়টিকে ধামাচাপা দিতে নিজের প্রভাব খাটিয়ে কিছু কিছু গণমাধ্যমকে ম্যানেজও করে ফেলেন।

পাশাপাশি ইফাতের ফেইসবুক আইডিটি ডিএকটিভ করে দেওয়া হয়, বন্ধ করে দেওয়া হয় তার ব্যবহৃত ফোন নাম্বারটি। ইফাত সেইসঙ্গে নিষ্ক্রিয় করে ফেলেন নিজের হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট।

ইফাতের ধানমন্ডির বাসায় গেলে সেখানে থাকা নিরাপত্তা কর্মীরা জানায়, ছাগলটি মোহম্মদপুরের বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে চারটি গরুসহ কয়েকটি ছাগল সেখানে দেখতে পাওয়া গেছে। ইফাতের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে সুযোগ নেই বলে চলে যেতে বলেন নিরাপত্তা কর্মীরা।

ইফাতের সাথে সাক্ষাৎ ও তার বক্তব্য না পাওয়া গেলেও সাদিক এগ্রোর কর্ণধার মো. ইমরানের কাছে ছাগল বিক্রির সত্যতা পাওয়া গেছে। গণমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, ইফাত ছাগলটি ক্রয় করতে ১ লাখ টাকা অগ্রিম প্রদান করেছিলেন, ১২ লাখ টাকা মূল্য নির্ধারণ সাপেক্ষে। কিন্তু পরে তারা বাকি টাকা দিয়ে ছাগল ডেলিভারী নেওয়ার কথা থাকলেও তারা ছাগলটি ডেলিভারী নেননি আর বাকি টাকাও দেননি। ছাগলটি এখনও তার ফার্মে আছে এবং ইফাত তার প্রদানকৃত টাকাও ফেরত নেয়নি। উল্লেখ্য ছাগলের পাশাপাশি এই পরিবার ৫২ লাখ টাকা আরো ৪ টি গরুও কোরবানির জন্য কিনেছেন বলে জানা গেছে।

অনুসন্ধানে এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে, রাজস্ব বোর্ডের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা ড. মতিউর রহমান ভাইরাল হওয়া তরুন মুশফিকুর রহমান ইফাতের বাবা। কিন্তু নিজের বিব্রতকর পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে গিয়ে ইফাতের বাবা ড. মতিউর রহমান গণমাধ্যমে বলেছেন ইফাত তার ছেলেই না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ইফাতের সাথে তার ছবির বিষয়ে তিনি বলেন এটা প্রযুক্তির কারসাজি। এখন তাদের পরিচয় সনাক্তকরণের দায়ভার আদালতের অথবা সংশ্লিষ্ট বিভাগের।

আমরা অনুসন্ধানে নেমে পড়ি ড. মতিউর রহমান এর পরিচয় ও কত টাকার মালিক বা কি পরিমান সম্পদের অধিকারী সেটা জানতে। আমাদের প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী রাজস্ব কর্মকর্তা ড. মতিউর রহমানের বাবা-মায়ের দেয়া ডাকনাম পান্নু। সার্টিফিকেট এর নাম মো: মতিউর রহমান। গ্রামের বাড়ী বরিশালের মুলাদী উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামে। পারিবারিক অবস্থা তেমন একটা ভালো ছিলো না। তাই গ্রামের বাড়ীর সাথে পান্নু’র যোগাযোগও তেমন ছিলো না। মায়ের দেখাশোনাও করেনি এমনকি বাবার মৃত্যুতেও পরিবারের কোন সদস্য গ্রামের বাড়ী যায়নি।

ড. মতিউর রহমান বিয়ে করেছেন নরসিংদীতে। স্ত্রী লায়লা কানিজ লাকী তিতুমীর কলেজের প্রভাষক ছিলেন। বর্তমানে নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান। অঢেল সম্পদের মালিক ড. মতিউর রহমান দম্পতি। ছেলে ইফাতের ব্যবহারের জন্য কিনে দিয়েছেন কোটি কোটি টাকা দামের একাধিক গাড়ী। রয়েছে ঢাকা শহরে কয়েকটি ফ্ল্যাট, বহুতল একাধিক বাড়ী, ঢাকা ও ঢাকার আশেপাশে কয়েক’শ বিঘা জমি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ইফাতের ব্যবহৃত নিজ নামের নেমপ্লেট সম্বলিত টয়োটা ক্রাউন মাজেস্টা মডেলের গাড়ীটির দাম কোটি টাকার ওপরে। রয়েছে একটি টয়োটা প্রিমিও যার বাজারদর ৪৫ লাখ টাকা। এটিও ইফাতের নামেই নেমপ্লেট সম্বলিত। এছাড়াও রয়েছে, টয়োটা ল্যান্ড ক্রুজার প্রাডো (ঢাকা মেট্রো -ঘ- ১৫-৯৩২৭) যার বাজারমূল্য ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা। পাখি প্রেমী ইফাতের সংগ্রহ শালায় রয়েছে লাখ লাখ টাকার ইমপোর্টেড বাজপাখিসহ নানান জাতের পাখি। তবে তার ব্যাক্তিগত আয়ের উৎস্য এখনও জানা যায়নি। সূত্র অনুযায়ী এসবই তার বাবা-মায়ের কাছ থেকেই পাওয়া সম্পদ। তাহলে প্রশ্ন ওঠে ড. মতিউর রহমানের আয়ের উৎস্য নিয়ে। প্রথমশ্রেণীর কর্মকর্তা হিসেবে ড.মতিউর রহমানের বেতন স্কেল ৭৮০০০ টাকা, যা সর্বসাকুল্য দুই লাখ টাকাও নিচের অংক। তাহলে কিভাবে তিনি এতো অর্থ সম্পদের পাহাড় গড়লেন? দূর্নীতি ছাড়া যা স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় কোনোভাবেই সম্ভব নয়।

(আসছে বিস্তারিত….)

 

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ