রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন

কারাগারগুলোয় একের-পর-এক অঘটন: কর্তৃপক্ষ নির্বিকার

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৬ জুন, ২০২৪

জমজমাট প্রতিবেদন

সিনেমাটিক কায়দায় বগুড়া জেলা কারাগার থেকে গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চার আসামি ছাদ ফুটো করে দেয়াল পার হয়ে পালিয়েছিলেন। পরে তাঁদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

বগুড়া জেলা কারাগারের জেলার মোহাম্মদ ফরিদুর রহমান গনমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, চারজনই ফাঁসির আসামি। তাঁরা পালিয়েছিলো। পরে দ্রুত সময়ের ব্যবধানেই কারাগারের পাশের এলাকা থেকে তাঁদের ধরা হয়েছে।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চার আসামি হলেো মো. নজরুল ইসলাম মঞ্জুর (৬০), মো. ফরিদ শেখ (২৮), মো. আমির হামজা ওরফে আমির হোসেন (৩৮) ও মো. জাকারিয়া (৩১)।

বগুড়ার পুলিশ সুপার (অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী বলেন, দিবাগত রাত ৩টা ৫৬ মিনিটে বগুড়া জেলা কারাগারে থাকা মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত চার আসামি প্রিজন সেলের ছাদ ফুটো করে পালিয়ে যায় বলে তাঁরা খবর পান। সঙ্গে সঙ্গে বেতারবার্তার মাধ্যমে বগুড়া সদর থানার সব টহলদলকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রাখা হয়।

বগুড়া সদর থানার টহলদল জেলা কারাগার-সংলগ্ন নদীর ওপারের চাষীবাজার থেকে ভোর রাত ৪টা ১০ মিনিটে তাঁদের গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। এরপর তাঁদের বগুড়া গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে নেওয়া হয়। পুলিশ হেফাজতে থাকা চারজনকে শনাক্ত করেন বগুড়া জেলা কারাগারের জেলার। পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনায় পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে চারজনকে আদালতে হাজির করা হবে।

এদিকে নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, ২৫শে জুন মঙ্গলবার বেলা ১০:৪৫ মিনিটে কাশিমপুর-১ কেন্দ্রীয় কারাগার (পার্ট-১)-এর ৩০ সেল (কনডেমন্ড সেল) এর ১২ নম্বর রুমে মৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত বন্দি অমিত হাসান, পিতা জলিল ও মৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত বন্দি আলিম রেজা খানের সহায়তায় তাদের কাছে থাকা অবৈধ মোবাইল ফোন দিয়ে আনসার আল ইসলাম (জামাতুল মুজাহেদিন বাংলাদেশ – জেএমবি নামেও পরিচিত), যেটির সাথে সরাসরি আল কায়েদার সংযোগ আছে, এটির সদস্য এবং মৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত বন্দি জঙ্গি মাসুদ ওই সংগঠনের সাথে যোগাযোগ করার সময় কারা সিআইডি এই ঘটনা দেখে ফেলেন এবং এদের হাতেনাতে ধরে মোবাইল ফোন সিজ করেন। এই অভিযানের নেতৃত্ব দেন সুবেদার ইউনুস ও করিম ভুঁইয়া। আরো ছিলেন কারা সিআইডি জমাদার মজনু। আরো ছিলেন কয়েদি সিআইডি আসামি মামুন ও তরিকুল।

সূত্রের তথ্য অনুযায়ী, মৃত্যুদন্ডাদেশপ্রাপ্ত বন্দি আসামি অমিত ও আলিম রেজা কারাগারের ভেতরে দীর্ঘদিন মাদক ব্যবসা করে আসছে এবং একাধিকবার ধরাও পড়েছে। এদের এই মাদক ব্যবসার মুনাফার বড় একটা অংশ চলে যায় জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের ফান্ডে। কিন্তু এধরণের অবৈধ কার্যকলাপ পরিচালনা করে বারবার ধরা পড়ার পরও এদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোনো ব্যবস্থাই নেয়নি কাশিমপুর-১ কেন্দ্রীয় কারাগার (পার্ট-১) এর কর্তৃপক্ষ।

আরো জানা গেছে, কাশিমপুর-১ কেন্দ্রীয় কারাগার (পার্ট-১) এর কনডেমন্ড সেলে জঙ্গি সদস্যরা বাইরে থেকে মাইক কিনে এনে সেলের বারান্দায় মসজিদ স্থাপন করেছে, যেখানে যোহর ও আসরের নামাজের পাশাপাশি জুমার নামাজ আদায় হয়। এসব নামাজের সময় জঙ্গিরা নিয়মিতভাবে ওয়াজের নামে জিহাদি বক্তব্য দেয়, এমনকি ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকারকে “ভারতের দালাল” ও “ইসলামের শত্রু” আখ্যা দিয়ে উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলে।

দেশের নিরাপত্তার জন্যে হুমকিস্বরূপ ভয়ঙ্কর এসব জঙ্গিদেরেকে কাশিমপুর-১ কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন কিনা এবং এবিষয়গুলো কারা অধিদপ্তরের নজরে আনা হয়েছে কিনা, এবং আনা হয়ে থাকলে কেনো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নেননি এবিষয়গুলো জানতে চেয়ে আমরা কারাগার কর্তৃপক্ষ বরাবর মেইলে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কোন উত্তর পাইনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ