রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৮:০৮ অপরাহ্ন

চলচ্চিত্রের নামে ভারতে কোটিকোটি টাকা পাচারের অভিযোগ

জমজমাট ডেস্ক
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ জুন, ২০২৪

জমজমাট প্রতিবেদক

চলচ্চিত্র নির্মাণের নামে বাংলাদেশের প্রযোজকেরা বিদেশে কোটিকোটি টাকা পাচার করছেন বলে অভিযোগ করেছেন রাষ্ট্রপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদের ছেলে ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ভার্সেটাইল মিডিয়ার কর্ণধার আরশাদ আদনান।

সম্প্রতি বাংলাদেশ ফিল্ম ডেভেলাপমেন্ট কর্পোরেশন (এফডিসি) চত্বরে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় তিনি বলেন, ভারতে চলচ্চিত্র নির্মাণের নামে কোটিকোটি টাকা পাচার হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তাঁর প্রযোজিত রাজকুমার চলচ্চিত্রটির শ্যুটিং করতে তিনি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অনুমোদন নিয়ে বিদেশে টাকা নিয়ে গেছেন এবং সেখানে বৈধভাবে শ্যুটিং করেছেন। এক্ষেত্রে তিনি কতো টাকা নিয়ে গেছেন এটা পরিষ্কার করেননি।

উল্লেখ্য, রাজকুমার ছবিতে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেন নিউ ইয়র্ক শহরের উঠতি মডেল কোর্টনি ক্যাফেই। তাঁকে কতো টাকা পারিশ্রমিক দেয়া হয়েছে এটা জানা যায়নি। পাশাপাশি একজন বিদেশী শিল্পীকে বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে কাজ করাতে হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হয় এবং বিদেশে টাকা নিয়ে যেতে হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ বিভাগের অনুমতি নেয়া বাধ্যতামূলক। বাংলাদেশের চলচ্চিত্র প্রযোজকরা এই আইন অনুসরণ করছেন কিনা এবিষয়ে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলছে বাংলাদেশে দীর্ঘ বহুকাল থেকেই একদল দুর্নীতিবাজ ও কালো টাকার মালিক চলচ্চিত্রে বিনিয়োগ কিংবা চলচ্চিত্র প্রযোজনার নামে বিপুল অংকের অর্থ হালাল করছেন। বিষয়টা একেবারেই ওপেন সিক্রেট।

সূত্রটি বলে, বাংলাদেশে বর্তমানে যেখানে মাত্র ১৫০টি সিনেমাহল ও সিনেপ্লেক্স, সেখানে একটা সিনেমা থেকে ১০-১৫ কোটি টাকার ব্যবসা হচ্ছে এমন দাবি একেবারেই অসম্ভব। যারা এসব কথা বলে ওরা আদতে কালো টাকা সাদা করার সাথে জড়িত। এক্ষেত্রে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এবং দুর্নীতি দমন কমিশনকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে দুর্নীতিবাজ ও কালো টাকার মালিকদের চিহ্নিত করার মাধ্যমে এদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে।

এদিকে ভারত-বাংলাদেশ যৌথ উদ্যোগে নির্মিত আসন্ন ঈদের ছবি তুফান-কে ঘিরে চলমান বিতর্কের মাঝেই আরশাদ আদনান ইঙ্গিত করেছেন ওই ছবি নির্মাণের নামে ভারতে ৮-১০ কোটি টাকা পাচার হয়েছে। যদিও এর আগে ভারতের সাথে যৌথ উদ্যোগে জাজ মাল্টিমিডিয়াসহ আরো বেশ কয়েকটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান চলচ্চিত্র নির্মাণ করলেও ওসব ক্ষেত্রে টাকা পাচারের অভিযোগ ওঠেনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরির আরো নিউজ

পুরাতন খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
© All rights reserved © 2018 jamjamat.net
ডিজাইন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট : উইন্সার বাংলাদেশ